ফারজানা আক্তার বিথী

  ১০ অক্টোবর, ২০২১

দৃষ্টিপাত

প্রবাসী নারীশ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

পরিবারে একটু সচ্ছলতা আনতে অনেক নারীই বিদেশে গেছেন, এখনো অনেকে যাওয়ার প্রক্রিয়ায় আছেন। কিন্তু কষ্টের প্রবাস থেকে ফিরেও জীবনখাতায় শূন্য দেখছেন বেশির ভাগ নারী। গত পাঁচ বছরে প্রবাস থেকে ৪৮৭ নারীর লাশ এসেছে দেশে। এরই মধ্যে আত্মহত্যা করেন ৮৬ জন। স্ট্রোকে মারা যান ১৬৭ জন ও দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান ৭১ জন, ১১৫ জনের স্বাভাবিক মৃত্যুর কথা বলা হয়েছে। লাশ হয়ে ফেরা ছাড়াও শারীরিক, মানসিক ও যৌন নির্যাতনসহ প্রতারণার শিকার হয়ে অনেক নারী দেশে ফিরে আসেন বলে জানায় বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাক ও মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন (এমজেএফ)।

‘১ লাখ ৩০ হাজার টাকা দিয়ে সৌদি আরব গিয়েছিলাম। ১১ মাসের মাথায় ফিরে আসতে হয়েছে। ওরা কাজ করায় কিন্তু বেতন দেয় না। কোনো টাকা নিয়ে আসতে পারিনি। যার কাছ থেকে টাকা নিয়েছিলাম, তাকে ফেরত দিতে পারিনি। তিনি এখন হুমকি দিচ্ছেন, মামলা করবেন। স্বামীও ছেড়ে চলে গেছেন। চার মেয়েকে নিয়ে অনেক কষ্টে দিন পার করছি।’ ডয়েচে ভেলেকে তার এই কষ্টের কাহিনি জানিয়েছেন করোনা মহামারির মধ্যে সৌদি আরব থেকে কাজ হারিয়ে দেশে ফেরা গাজীপুরের কালিয়াকৈরের রত্না আক্তার।

২০০৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৩ হাজার ৭৯৩ জন নারীশ্রমিক প্রবাসে মৃত্যুবরণ করেছেন। সম্প্রতি সরকার থেকে প্রকাশিত এক তথ্য বিবরণীতে এ সংখ্যা পাওয়া যায়। ২০১৭ সালে বাংলাদেশ থেকে গৃহপরিচারিকার কাজ করতে জর্ডান গিয়েছিলেন মৌসুমি আক্তার। সম্প্রতি তার লাশ ফিরেছে বাংলাদেশে। ডেথ সার্টিফিকেটে লেখা ছিল স্ট্রোক করে মারা গেছেন মৌসুমি। পরিবার বলছে নির্যাতিত হয়ে মারা গেছেন তিনি। মৌসুমির চাচা মোহাম্মদ ইমরান খান বলেন, মৌসুমির লাশে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। প্রবাস ফেরত এক নারীর তথ্য প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে বাংলাদেশ সংবাদ মাধ্যমে। তাতে বলা হয়েছে, সাত মাস আগে গৃহকর্মী হিসেবে সৌদি আরবে গিয়ে নির্যাতনের ক্ষত নিয়ে দেশে ফিরেছেন। সম্প্রতি রিয়াদ বিমানবন্দরের উড়োজাহাজে বসে এক আরবকে নির্যাতনের বর্ণনা দেন তিনি। তার বক্তব্য ভিডিও করেন ওই আরব। ভিডিওতে ওই নারীর এক হাতে ক্ষত চিহ্ন, আরেক হাতে গোটা গোটা ফোস্কা দেখা যায়। এক প্রশ্নের জবাবে ওই নারী বলেন, সৌদি আরবে কাজে আসার পর প্রতিদিন তাকে ছয় থেকে সাতবার গরম কিছু দিয়ে ছ্যাঁকা দেওয়া হতো। ওই ছ্যাঁকাতেই হাতে ফোস্কা হয়েছে। নির্যাতনের কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাংলাদেশে কারো সঙ্গে, বিশেষ করে স্বামীর সঙ্গে কথা বলতে চাইলে মালিক দিত না। দেশে ফিরতে চাইলে নির্যাতন করা হতো। এভাবে নির্যাতনের পর সৌদি মালিক তাকে বিমানবন্দরে রেখে চলে যায়। এই কয়েক মাস তাকে কোনো বেতন দেওয়া হয়নি। কিন্তু বিমানবন্দরে রেখে যাওয়ার সময় বেতন দিয়েছেন মর্মে স্বাক্ষর নিয়ে গেছেন মালিক। ভিসা ও পাসপোর্টের তথ্যানুযায়ী, নির্যাতিত ওই নারীর বাড়ি চুয়াডাঙ্গায়। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কিশোরী উম্মে কুলসুম (১৪) পাসপোর্ট বয়স ২৬ দেখিয়ে সৌদি আরব যায় ২০১৯ সালে। গৃহকর্মী হিসেবে সৌদিতে যাওয়ার পর সাত মাস নিয়মিত টাকা পাঠায়। হঠাৎ পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। ছয় মাস পর কুলসুম ফোন করে জানায় মালিক মেরে তার হাত পা, কোমর ভেঙে দিয়েছেন। ২০২০ সালে ১০ আগস্ট মেয়ের মৃত্যুর খবর পায় কুলসুমের পরিবার। এখন পর্যন্ত পরিবারটি কোনো আর্থিক সহায়তা পায়নি।

এ নারীদের অনেকেই যাচ্ছেন দালালদের খপ্পরে পড়ে। ফলে বিদেশে যাওয়ার পর তারা দাস-দাসীর মতো আচরণের শিকার হচ্ছেন। যেমন- তাদের ঠিকমতো খেতে দেওয়া হয় না, বেতন চাইলে তারা শারীরিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। সৌদি আরব যখন বাংলাদেশি পুরুষ শ্রমিকের নিয়োগ সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেয়। বাংলাদেশের একটা বড় শ্রম বাজার বন্ধ হয়ে যায়। ২০১৩ সালের এপ্রিলের মাঝে ৯ সদস্যের এক সৌদি প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ সারা খাদ্দামা বা নারী শ্রমিক পাঠানোর প্রস্তাব দেয়। তৎকালীন প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী ‘মারহাবা মারহাবা’ বলে সে প্রস্তাব লুফে নেন। রটিয়ে দেওয়া হয় সৌদি শ্রমবাজার খুলে গেছে। নারী দিয়ে শুরু হবে, পরে পুরুষরাও যাবে। মূলত নারী শ্রমিকদের একপ্রকার ব্যবহার করার উদ্দেশ্যই এখানে প্রকট। নারী কর্মীদের কেউ কেউ আবার ধর্ষিতা হয়ে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে বা সন্তান নিয়ে দেশে ফিরতে বাধ্য হন। পান না ধর্ষণ-নির্যাতনের বিচার। সন্তান নিয়ে দেশে ফেরা এক নারী গণমাধ্যমে জানান, বাড়ির মালিকের ছেলে তাকে ধর্ষণ করেছে। এ কথা ছেলের মা-বাবাকে জানাতে ছেলে নিষেধ করেছিলেন। উপায় না পেয়ে জানালে পেটের বাচ্চাকে মেরে ফেলার জন্য আনারসের জুস খাওয়ানো, বড় বড় জাজিম বা তোশক নিয়ে সিঁড়ি বেয়ে ওঠানামা করানো, সিঁড়ি থেকে ফেলে দেওয়াসহ বিভিন্ন চেষ্টাই করেছেন ছেলের মা। শেষ পর্যন্ত বাড়ির মালিক জেলখানায় পাঠিয়ে দেন। জেলখানায় সন্তানের জন্ম হয়। আদালত বা চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার সময় এই নারীকে হাত ও পায়ে হাতকড়া পড়ানো হতো।

প্রবাসে নির্যাতনের মাত্রা এত বেশি যে, মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে দেশে ফিরেছেন অনেকে। আবার অনেকে বিদেশে মারাও যাচ্ছেন। এরপরও মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে নারীরা যাচ্ছেন পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর স্বপ্ন নিয়ে, নিজেদের ভবিষ্যৎ বদলের আশায়। নারীদের চেয়ে পুরুষদের আয় বেশি হলেও পুরুষ শ্রমিকরা আয়ের ৭০-৮০ শতাংশ দেশে পাঠান। তবে নারী কর্মীরা তাদের আয়ের প্রায় পুরোটাই পাঠান। রিফিউজি ইউনিটের তথ্য মতে, কোভিড-১৯-এর সময় নারী শ্রমিকরা বেশি হারে টাকা পাঠিয়েছেন যা ৬৯ শতাংশ। সংসারে নিদারুণ কষ্ট আর অভাব না থাকলে কোনো মা-বাবা তার আদরের সন্তানকে, স্বামী তার স্ত্রীকে, সন্তান তার মাকে প্রবাসের অচেনা-অজানা স্থানে পাঠাতে চায় না। ভাতের কষ্ট, কাপড়ের কষ্ট, টাকার কষ্ট। সে কষ্টের কোনো শেষ না থাকায় এরা আজ প্রবাসী শ্রমিক।

এসব প্রবাসী নারীর পাশে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ শেখ হাসিনার সরকারকেই দাঁড়াতে হবে। অসাধু ট্রাভেল অ্যাজেন্সি, লোভী, অসৎ ও অসাধু দালালদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। পুরুষ শ্রমিকদের শ্রম বাজার পেতে নারী শ্রমিকদের যেন আমরা ব্যবহার না করি সে বিষয়ে তৎপর হতে হবে। বয়স বিবেচনা করে উপযুক্ত দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ এবং সঠিক কর্মসংস্থান সৃষ্টির ওপর জোর দিতে হবে, উপযুক্ত পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা প্রবর্তন যা দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তৃপক্ষের জবাবদিহি নিশ্চিত করবে এবং ক্রমান্বয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ নীতিকাঠামো প্রণয়নে প্রশাসনকে উদ্যোগী হতে হবে- এটুকুই প্রত্যাশা থাকল।

লেখক : শিক্ষার্থী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

[email protected]

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close