reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২

তারুণ্যের অন্তরে বঙ্গবন্ধু যেমন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তরুণ শিক্ষার্থীদের কাছে এক অনুপ্রেরণার নাম। তার হাত ধরেই একাত্তরে এসেছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়। ধর্মনিরপেক্ষ ও সমাজতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়ে তোলা এ মানুষটিকে শ্রদ্ধা জানিয়ে শিক্ষার্থীরা যা বললেন তা তুলে ধরেছেন মাহামুদুর রহমান নাজিদ

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক ও অভিন্ন

বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। হাজার বছরের ইতিহাসে বাঙালির শ্রেষ্ঠ অর্জন বাংলাদেশের স্বাধীনতা। আর এই স্বাধীনতা সংগ্রামের সঙ্গে যার নাম চির স্মরণীয় হয়ে আছে তিনি হলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু তার রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন একজন সাধারণ কর্মী হিসেবে; কিন্তু খুব অল্প সময়ের মধ্যে তিনি হয়ে ওঠেন কোটি কোটি মানুষের অবিসংবাদিত নেতা। তার ছিল অসাধারণ সাংগঠনিক ক্ষমতা। বঙ্গবন্ধু ছিলেন সাধারণ মানুষের নেতা। তার বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের প্রায় পুরোটা কেটেছে সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য আন্দোলন, সংগ্রাম আর কারাবরণ করে। জেল-জুলুম ও নির্যাতনের কাছে তিনি কখনো মাথা নত করেননি। তার দূরদর্শী, বিচক্ষণ এবং সঠিক নেতৃত্বেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল।

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ আজ তাই বাঙালি জাতির কাছে এক ও অভিন্ন নাম।

উম্মে আয়মান

মার্কেটিং বিভাগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

বঙ্গবন্ধুর মধ্যে ছিল নেতৃত্বের সব গুণাবলি

নেতা/নেত্রী তো সবাই হয়, কিন্তু নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতা নিয়ে কয়জন জন্মায়। আর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জন্মেছিলেন নেতৃত্বের এমন সব গুণাবলি নিয়ে, যা বাল্যকাল থেকে প্রস্ফুটিত হতে থাকে। তার চিন্তা, মনের উৎকর্ষ সবকিছুতেই ছিল সাধারণ মানুষের পক্ষ নিয়ে কথা বলা। কৈশোরে বিদ্যালয়ের প্রয়োজনীয় জিনিস যেমন চেয়ে বসেছিলেন, যৌবনে এসে চেয়ে বসেছিলেন মুক্তি। তারপর একে একে এলো মুক্তি, পরিশেষে এক স্বাধীন ভূখণ্ড। স্বাধীনতার পর ক্ষমতায় আসা সত্ত্বেও কৃষক, শ্রমিক নিয়ে কথা বলেছেন। তাদের টাকায় চলে সব আমলা আর সরকারি কর্মচারীরা তাই কৃষক, শ্রমিকের সঙ্গে ভালো ব্যবহার নিশ্চিতের পরামর্শ দিয়েছিলেন। এভাবে জীবন জুড়ে নেতৃত্ব দেওয়া নেতা কি আর যুগে যুগে জন্মায়?

মো. জাহেদুল ইসলাম শাওন

আইন বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গোপালগঞ্জ (বশেমুরবিপ্রবি)

বঙ্গবন্ধু একটি চেতনার নাম

স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি একটি চেতনা ও অধ্যায়ের নাম। হ্যামিলনের বংশীবাদকের মতো বঙ্গবন্ধু সমগ্র জাতিকে একসূত্রে গ্রথিত করেছিলেন। পাকিস্তানি ঔপনিবেশিক শক্তির শৃঙ্খল থেকে তিনি বাঙালি জনগোষ্ঠীকে মুক্তির স্বপ্ন দেখেছিলেন এবং জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সেই স্বপ্ন তিনি বাস্তবায়ন করেছেন। বাঙালি হিসেবে বঙ্গবন্ধুর দর্শন আমাদের মধ্যে গ্রথিত করা খুব দরকার। পৃথিবীর বুকে বঙ্গবন্ধুরা একবারই আসে আর রেখে যায় তাদের অমর কীর্তি। যত দিন রবে পদ্মা, মেঘনা, গৌরী, যমুনা বহমান/তত দিন রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান।

মো. আবদুর রাকিব আসিফ

হিসাববিজ্ঞান ও তথ্যব্যবস্থা, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

বঙ্গকন্ধু এক অনুকরণীয় এক আদর্শ

বাঙালি, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ শব্দ তিনটি যেন একই সূত্রে গাথা, ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিপ্রাপ্ত মানুষটি ছিলেন বলেই আজ বাঙালিরা স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে পৃথিবীর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পেরেছে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কিউবার বিপ্লবী নেতা ফিদেল ক্যাস্ট্রো বলেছিলেন, ‘আমি হিমালয় দেখিনি, কিন্তু শেখ মুজিবকে দেখেছি।’ সত্যিকার অর্থেই ব্যক্তিত্ব ও সাহসিকতায় অনন্য বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন তরুণ প্রজন্মের কাছে অনুকরণীয় এক আদর্শ। বঙ্গবন্ধু ছিলেন স্পষ্টভাষী। তার প্রমাণস্বরূপ : ১৯৪৪ সালে বঙ্গবন্ধু হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ভক্ত ছিলেন। এক মিটিংয়ে শহীদ সাহেবের ভক্ত হওয়া সত্ত্বেও উনার এক প্রস্তাব পছন্দ না হওয়ায় বঙ্গবন্ধু অমত করেছিলেন। সোহরাওয়ার্দী বঙ্গবন্ধুকে বলেছিলেন, ‘Who are you? You are nobody’. বঙ্গবন্ধু Why you উত্তর দিয়েছিলেন, ‘I am nobody then have invited me? You have no right to imoult me. I will prove that I somebody Thank yous, Sir. I will rever come back again (অসমাপ্ত আত্মজীবনী’। এরপর তিনি মিটিং ছেড়ে বের হয়ে এসেছিলেন। যেকোনো পরিস্থিতিতে যে কারো সামনে বঙ্গবন্ধু স্পষ্টভাষিতা আমাদের প্রজন্ম ধারণ করতে পারে। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণের যে স্বপ্ন বঙ্গবন্ধু দেখেছেন, আমাদের দায়িত্ব তা বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে সমৃদ্ধির পথ প্রশস্ত করা। তারুণ্যের কাছে বঙ্গবন্ধুর বীরত্ব আজও অমলিন। আমাদের দুর্ভাগ্য, আমরা একাত্তরের চেতনায় ও উজ্জীবিত তরুণ প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুকে হৃদয়ে ধারণ করেও তাকে স্বচক্ষে দেখার সৌভাগ্য হয়নি। তবে অন্নদাশঙ্কর রায়ের মতো আমার বিশ্বাস- ‘যত দিন রবে পদ্মা মেঘনা গৌরী যমুনা বহমান/তত দিন রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান!’

প্রগতি

বাংলা বিভাগ, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

বঙ্গবন্ধু জীবনের পরতে পরতে

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লিখতে গেলে শেষ হবে না। আমার জীবনের পরতে পরতে রয়েছেন তিনি। তাকে নিয়ে যত পড়াশোনা করি ততই অবাক হই। তিনি জীবনের স্বর্ণযুগ কাটিয়েছেন অগণিত অসহায়-নিপীড়ত মানুষের পাশে থেকে। জাতির জনককে নতুন করে চর্চার সময় এসেছে। সময় এসেছে ইতিহাসের উজ্জ্বল মহিমা থেকে নতুন প্রজন্মের শিক্ষা নেওয়ার।

রিফাতুল ইসলাম

মার্কেটিং বিভাগ, ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটি, চট্রগ্রাম

বঙ্গবন্ধু জাতির দিশারি

প্রতিটি জাতির পথের দিশারি হিসেবে জন্ম হয় একজন নেতার। বাংলাদেশ নামের রাষ্ট্রটির পথের দিশারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি এক মহানায়ক এবং মানবতাবাদী দেশপ্রেমিক। বাংলার তরুণদের আদর্শ তিনি। জীবনের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে বঙ্গবন্ধু রাঙিয়ে গেছেন আমাদের ইতিহাস। প্রদীপ্ত শিখা জ্বালিয়ে নতুন পথের সন্ধান দিতে আজীবন লড়াই গেছেন এই অবিসংবাদিত নেতা। যারা আগামীর স্বপ্নদ্রষ্টা, তারা বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক আদর্শ মনেপ্রাণে ধারণ করলে স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়া সম্ভব।

আবদুল্লাহ আল মুরাদ

ইয়ার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close