এম খান

  ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১

রাজকুমারীর গৃহে কলা চুরির ঘটনায় তদন্ত

এক দিন রাজবাড়িতে ঢুকে গেল দুষ্টক্ষুধা স্বভাবের দুর্ধর্ষ বানর। ঢুকেই সে সোজা চলে গেল রাজকুমারীর কামড়ায়। রাজকুমারী ঘুমিয়ে আছে সেই সুযোগে, পেয়ালায় থাকা দুধ খেয়ে কলা নিয়ে চম্পট দিল বানর। এ ঘটনায় রাজ দরবারে বৈঠক। হুকুমনামায় সিদ্ধান্ত হলো তদন্ত কমিটি গঠন। তদন্ত দলনেতাকে বনে দেখে বনের বাঁদর, শিয়াল সজোরে দৌড় দিল। পথের মাঝামাঝি যেতে না যেতেই গাধার সঙ্গে দেখা-

গাধা : কি শিয়াল পণ্ডিত- এত্ত হাঁপিয়ে-হুঁপিয়ে দৌড় দিচ্ছ কেন? কোন দুর্বার্তা-

শিয়াল : বনের দ্বারপাল ঢাক পিটিয়ে বলেছে, বনে দুদকের তদন্ত দল নেমেছে, কেউ নড়াচড়া করো না।

গাধা : কীসের তদন্ত-ফদন্ত, তাতে তোমার কী?

শিয়াল : রাজবাড়িতে ঢুকে রাজকুমারীর পেয়ালায় থাকা দুধ খেয়ে কলা চুরির ঘটনার তদন্ত।

গাধা : দুধ খেয়ে কলা চুরি করেছে বানর, রাজভা-ার লুট কিংবা রাজবাড়িতে চুরি তুমি তো এসব করো না-

শিয়াল : ধ্যাত যা- আরে ওস্তাদ, সেটা তো আমিও জানি, যা সর্বজন কহে...

গাধা : জানই যেহেতু, তাতে তোমার কীসের এত্ত ভয়?

শিয়াল : আরে ওস্তাদ- তুমি তো দুর্বোধ্য গাধা, কী করে বুঝবে? বানর থাকে আগ-ডালে, মগ-ডালে, তাই বানর খুঁজে না পেলে আমারে ধরে বানর বলে চালিয়ে দেওয়ার শঙ্কা রয়েছে, তখন কেমন হবে?

গাধা : কেন? দেশে কি থানা-পুলিশ, আইন-আদালত নেই?

শিয়াল : বাঃ কি অদ্ভুত! দেশ ও দেশের মানুষকে ভালোবেসে বুড়াটে হয়েও গাধাই থাইক্কা গেলা। আমি যে বানর না শিয়াল- এটা এ প্রমাণ করতে তিন বছর চলে যাবে।

গাধা : কও কি মামা, শিয়াল পণ্ডিত- আবার অদ্যতন বানর হয় নাকি?

শিয়াল : হ্যাঁরে তুমি তো গাধা, তুমি কি বুঝ? অদ্যতন কেন, আরো শত বছর আগেও এমন কত কি হয়েছে- তার কি কোনো খোঁজখবর রাখো? পেপার পত্রিকা পড়লে তো বুঝতে...

গাধা : তাহলে শিয়াল মামা এখন আমি কী করব?

শিয়াল : চোরাগুপ্তা দুর্ধর্ষ বানরের পাল বন ছেড়েই ক্ষান্ত হয়নি, বরং দেশের সীমানার ওপারে চলে গেছে, আর কিছু মাটির গর্তে ডুবে আছে- আমার সাথে এসো, কত্থা কম দৌড়ে পালাই...।

‘ধরে আন চোর, না হলে নগরপাল, রক্ষা নাহি তোর’- রাজা দেশে নগরপালরক্ষীদের পাঠালেন চোর ধরতে। চোর ধরা কি ছেলের হাতের মোয়া...? সুতরাং সহজ কাজটি করল রক্ষীরা। ব্রজসেন নামে এক অশ্ব ব্যবসায়ী দস্যুহস্তে সর্বস্ব হারিয়ে মনের দুঃখে শুয়ে ছিল ভাঙা মন্দিরে। রক্ষীরা তাকেই চোর সাব্যস্ত করে রাজার কাছে নিয়ে যাচ্ছিল। তাতে রাজাও খুশি- রক্ষীদের চাকরিও হলো মজবুত ও টেকসই।

দ্র : রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পরিতোষ কবিতার কাহিনিতে রাজকোষ চুরি হয়েছিল। কবিতার উল্লিখিত চরণ অবলম্বনে সংকলিত।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close