নিজস্ব প্রতিবেদক

  ২১ জুন, ২০২১

গাড়িচালকদের নিয়োগপত্র দেবেন মালিকরা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রাস্তায় গাড়ি দাঁড় করিয়ে টোল আদায় নয়

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, আগামীতে যারা গাড়ি চালবেন প্রত্যেক চালককে নিয়োগপত্র দেবেন পরিবহন মালিকরা। এ ছাড়া পরিবহনের নির্ধারিত টোল বা রাজস্ব নির্ধারিত টার্মিনাল থেকেই আদায় করতে হবে। যত্রতত্র যানবাহন দাঁড় করিয়ে কোনো চাঁদা আদায় করা যাবে না।

গতকাল রবিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সড়ক পরিবহন টাস্কফোর্সের সভা শেষে সাংবাদিকদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এই মন্ত্রীর সভাপতিত্বে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি শাজাহান খান, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব এবং পরিবহন সংগঠনের নেতা ও মালিকরা এ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় এসব ইস্যু ছাড়াও আমরা কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এরই মধ্যে কিছু সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়েছে। বাকিগুলো কীভাবে বাস্তবায়ন করব সেজন্য আমরা একটা কর্মপন্থা নির্ধারণ করেছি। সেগুলো নিয়ে পরবর্তী বৈঠকে আলোচনা করব।

আজকের (গতকাল) সিদ্ধান্তগুলোর মধ্যে সারা দেশে আমরা লক্ষ্য করেছি রিকশা ও ভ্যানে ব্যাটারি চালিত মটর লাগিয়েরাস্তায় চলছে। এগুলোতে ব্রেকের সিস্টেমও দুর্বল এবং নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা অপ্রতুল। এগুলো যখন হঠাৎ ব্রেক করে তখন প্যাসেঞ্জারসহ এটা উল্টে যায়। এই দৃশ্য আমরা দেখেছি। হাইওয়েগুলোতেও রিকশা-ভ্যান চলে আসছে। প্যাডেল চালিত রিকশা ও ভ্যান সম্পর্কে আমরা বলছি না। তবে এগুলো যারা ইঞ্জিন দিয়ে বা ব্যাটারি দিয়ে রূপান্তর করেছিলেন সেগুলো সারা দেশে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে আদেশ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে সারা দেশে পাঠানো হবে। নসিমন-করিমন ও ইজিবাইকগুলো যাতে বড় রাস্তায় আসতে না পারে সেগুলো বন্ধ করে দেওয়ার চিন্তা-ভাবনা রয়েছে।

অন্য এক প্রসঙ্গ টেনে মন্ত্রী বলেন, একজন করে ফোকাল পয়েন্ট থাকবে স্থানীয় সরকার, সড়ক পরিবহনসহ চারটি মন্ত্রণালয়। সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়নের জন্য তারা একটা কর্মপদ্ধতি বের করে আমাদের পরবর্তী বৈঠকে অবহিত করবে।

স্থানীয় সরকার পরিচালিত যেসব সিটি করপোরেশন আছে কিংবা অনুমোদিত টার্মিনাল ছাড়া কোথাও থেকে কেউ চাঁদা আদায় করতে পারবে না। রাস্তায় দাঁড় করিয়ে কেউ চাঁদা নিতে পারবে না। নির্ধারিত স্থান থেকেই তাকে চাঁদা কিংবা টোল নিতে হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, যারা পরিবহন শ্রমিক আছেন তাদের মালিক পক্ষ থেকে নিয়োগপত্র দিতে হবে। আজকের বৈঠকে তারা উভয়পক্ষই ছিলেন। খুব দ্রুত এ বিষয়টি তারা বাস্তবায়ন করবেন বলে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আমরা দেখছি মোটরসাইকেলে তিন-চারজন করে উঠছেন। এজন্য প্রায়ই তারা নিজেরা দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন বা কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছেন। মোটরসাইকেলে কোনোভাবেই চালকসহ দুজনের বেশি উঠতে না পারেন সেজন্য পুলিশকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সারা দেশে সংঘটিত দুর্ঘটনাগুলোর কারণগুলো নিয়েও বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। আজকের বৈঠকে বুয়েটের বিশেষজ্ঞরাও ছিলেন। তারা সার্ভে করে আমাদের একটা বিস্তারিত প্রতিবেদন দেবেন। অনিবন্ধিত যেসব মোটরসাইকেল চলে। সেগুলোও নজরদারিতে আনা হবে। নিবন্ধন ছাড়া যাতে কোনো যানবাহন রাস্তায় চলতে না পারে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দুর্ঘটনা বাড়েনি। তবে দুর্ঘটনা হচ্ছে। এসব দুর্ঘটনার অনেক কারণ আমরা চিহ্নিত করেছি। সেগুলো কমানোর জন্যই আমরা কাজ করছি।

চাঁদা বাণিজ্যের কথা আমি বলব না। তবে পৌরসভা সিটি করপোররেশনের যে টোল বা রাজস্ব দিতে হবে। সেটা কত টাকা নেবে কীভাবে নেবে সেটা নির্ধারণ করা হবে। মালিক-শ্রমিকরা সমিতির মাধ্যমে যে চাঁদা নিয়ে থাকেন সেটাও নির্ধারিত রয়েছে। সেই টাকাও টার্মিনাল ছাড়া অন্য কোথাও থেকে নেওয়া যাবে না।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close