প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১

গুজবে গাধার মুণ্ডুপাত!

ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে গাধা। কারণ রাজ্যের সর্বত্রই নির্বিচারে গাধার মাংস বিক্রি চলছে। বর্তমানে পরিস্থিতি এমন যে, অন্ধ্রপ্রদেশে আর গাধা নেই, অন্য রাজ্য থেকে আনা হচ্ছে। গাধার মাংস ইন্ডিয়ান ফুড সেফটি স্ট্যান্ডার্ডের নিয়মানুযায়ী খাদ্যযোগ্য নয়। কিন্তু তা সত্ত্বেও এই রাজ্যে চলছে গাধার মাংস খাওয়া। গাদার মাংস খেলে মানুষের শক্তি বাড়ে। রক্ত পান করলে বাড়ে পুরুষের মর্দামি শক্তি। এই গুজব ছড়াচ্ছে বেগতিক, তাতেই মাংস খাওয়ার জন্য মুণ্ডু কাটা হচ্ছে শত শত গাদা। বিনাশ হচ্ছে নিরীহ এবং ভারবাহী উপকারী এই প্রাণীটির।

ভারতীয় বাংলা পত্রিকা আজকাল জানিয়েছে, স্থানীয়দের মধ্যে বিশ্বাস জন্মেছে যে, গাধার মাংস খেলে শরীরের শক্তি বাড়ে। ফুসফুসেরও রোগেও নাকি উপকার পাওয়া যায় গাধার মাংস খেলে। আর এই কুসংস্কারের কারণেই এলোপাতাড়ি গাধা নিধন চলছে। জানা গেছে, অন্ধ্রপ্রদেশে গাধার মাংস ৬০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর এক একটি গাধার জন্য মাংস বিক্রেতারা ১৫ হাজার টাকা দিচ্ছেন মালিককে।

------
রাজ্যের এনিম্যাল রেস্কিউ অর্গানাইজেশনের সচিব গোপাল সুরবাথুলা বলেন, ‘অন্য রাজ্য থেকে অন্ধ্রপ্রদেশে গাধা এনে বলি দিয়ে মাংস বিক্রি করা হচ্ছে। কেউ তা আটকানোর চেষ্টা করছে না, অথচ রাস্তায় বহু চেকপোস্ট রয়েছে। রাজ্যের ডিজিপির কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অবৈধ পাচার এবং গাধা নিধন থামানোর দাবি জানানো হয়েছে।’ তিনি এও জানিয়েছেন মানুষ বেহুদা হুজুগে বেসামাল হয়ে গাদাগুলোকে গলা কেটে বলি দিয়ে মাংস খাচ্ছে।

অন্ধ্রপ্রদেশে গাধার মাংস খাওয়ার রেওয়াজ প্রথম শুরু হয় প্রকাশম জেলার স্টুয়ার্টপুরম এলাকায়। এখানকার মানুষের ধারণা, গাধার রক্ত খেলে দীর্ঘসময় ধরে ঘোরাঘুরি করার ক্ষমতা বাড়ে, আর সেখান থেকেই শুরু হয় মাংস খাওয়া।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close