কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

  ১১ অক্টোবর, ২০২১

প্রবেশপথে কাঁটাতার

কুয়াকাটা সৈকতে ভোগান্তি

কুয়াকাটা সৈকতে প্রবেশের একমাত্র পথের পাশে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ায় সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে সড়ক, এতে যান চলাচল ব্যাঘাত ঘটছে, সৃষ্টি হচ্ছে যানজট আর ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন পর্যটকরা। কুয়াকাটা প্রেস ক্লাব চত্বরে বাউন্ডারি ওয়ালের মহাসড়ক সংলগ্ন প্রায় ১০০ ফুট দেওয়া হয়েছে কাঁটাতারের বেড়াটি। মহাসড়ক থেকে পূর্বপাশে ১০ ফিট পরই বেড়াটি দিয়েছে কলাপাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ড। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কুয়াকাটা চৌরাস্তার জিরো পয়েন্ট থেকে আনুমানিক ১০০ মিটার উত্তরে রয়েছে একটি সংযোগ সড়ক। সংযোগ সড়কটি সৈকতে প্রবেশের মুখে। এতে মহাসড়কের চলাচলরত যানবাহন বাধাগ্রস্ত হয়ে থাকে। এর মধ্যে নতুন করে সড়কের পাশে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ায় তীব্র যানজট তৈরি হয়। অন্যদিকে সড়কের এপার-ওপারে মোটরসাইকেল ও অটোভ্যানের অস্থায়ী আস্তানা গড়ে ওঠায় সপ্তাহে তিন থেকে চার দিন যানজট আরো তীব্র আকার ধারণ করে। সৈকতে ঘুরতে আসা মেহেরুন্নেছা বলেন দিন দিন কুয়াকাটার শৃঙ্খলার অবনতি হচ্ছে। যানজটের ভোগান্তি ও স্থানীয় ব্যবসায়ীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়। সপরিবারে ঘুরতে আসা ডা. শামসুজ্জামান বলেন, গাড়ি থেকে নামতেই তারকাঁটায় আটকে ছিঁড়ে গেছে আমার মেয়ের কাপড়। এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার পাশে তারকাঁটার বেড়া কেন দিতে হবে? প্রশ্ন তোলেন তিনি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, যে জমিতে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়া হয়েছে তা সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) অধিগ্রহণকৃত জমিতে। ২০১৮ সালে সওজ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) থেকে অধিগ্রহণকৃত জমির প্রস্থে ৪০ ফিট আবার কোথাও কোথাও ??৩৫ ফিট (একোয়ার) করে অধিগ্রহণ করা হয়েছে। সেই পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়া থেকে কাটাতাঁরের বেড়াটি নির্মাণ করেছেন।

কলাপাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফ হোসেন প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, জমিটা যাতে কেউ দখল করতে না পারে সেজন্য এ ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সড়ক ও জনপদ বিভাগ পটুয়াখালীর নির্বাহী প্রকৌশলী মীর মোহাম্মদ কামরুল হাসান প্রতিদিনের সংবাদকে জানান একই স্থানে সওজ এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের জায়গা রয়েছে। না মেপে বলা যাচ্ছে না। তবে কুয়াকাটায় সরকারি জায়গা বেদখল হওয়ার নজির রয়েছে। সেই শঙ্কা থেকেই হয়তো তারকাঁটার বেড়া দেওয়া হয়েছে। কুয়াকাটার যানজট নিত্যদিনের।

যানজটের বিষয়ে পৌর মেয়র আনোয়ার হাওলাদার প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, কুয়াকাটায় কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের নির্মাণ কাজ চলমান। আশা করি এই সমস্যা আর বেশি দিন থাকবে না। কুয়াকাটা পর্যটন কেন্দ্রে পৌরসভার নিজেস্ব কোনো জায়গা নেই। যেসব সংস্থা আছে তাদের সহযোগিতা পেলে কুয়াকাটাকে পর্যটকবান্ধব করে গড়ে তুলতে সহজ হবে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close