হবিগঞ্জ প্রতিনিধি

  ১০ অক্টোবর, ২০২১

মনের মানুষকে না পেয়ে কলেজছাত্রের আত্মহত্যা!

হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে ভালোবাসার মানুষটিকে কাছে পেতে মসজিদের ইমামের কাছে গিয়েছিলেন কলেজছাত্র ইজাজুল তালুকদার। কিন্তু বিধিবাম, ইমাম সাহেব লোকমানি হেকিম কিতাবের তন্ত্র-মন্ত্র ও তাবিজের সাহায্যে কেরামতি করে এই ছাত্রের মনোবাঞ্ছা পূরণ করতে পারেননি। অবশেষে মনের মানুষকে না পেয়ে হতাশায় আক্রান্ত হয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন ওই কলেজছাত্র।

ইজাজুল তালুকদার (২৪) আজমিরীগঞ্জ উপজেলার পশ্চিমভাগ গ্রামের ইব্রাহিম তালুকদারের ছেলে। তিনি হবিগঞ্জ সরকারি বৃন্দাবন কলেজের ছাত্র ছিলেন। গতকাল শনিবার বিকাল ৩টার দিকে ইজাজুলের লাশের ময়নাতদন্ত শেষে তার পরিবারের জিম্মায় হস্তান্তর করা হয়। এ ঘটনায় ওই এলাকায় জনমনে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

শিবপাশা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর গোলাম কিবরিয়া হাসান জানান ইজাজুল তালুকদার নামে ওই কলেজছাত্রের সঙ্গে দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল তার এক খালাতো বোনের। কিন্তু তার খালুর পরিবার এ সম্পর্ক মেনে নিচ্ছিল না। এ নিয়ে ইজাজুল দারস্থ হন একই এলাকার কদমতারা মাস্টারবাড়ি জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা হুমায়ুন কবিরের কাছে। পরে ওই ইমাম ইজাজুল ও তার খালাতো বোন যাতে করে একমন-একদিল হয়, সে লক্ষ্যে অনেক তন্ত্রমন্ত্র আসমানি এলেম দিয়ে তদবির করেন। কিন্তু তাতে কোনো কাজ হয়নি। এক পর্যায়ে কলেজছাত্র ইজাজুল ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে বিষপান করেন। পরে তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে ওই দিন মধ্যরাতে তার মৃত্যু হয়।

ইন্সপেক্টর গোলাম কিবরীয়া হাসান আরো জানান, এর আগেও ইজাজুল হতাশ হয়ে বেশ কয়েকবার আত্মহ্যার চেষ্টা করেছিল। এনিয়ে আদালতে ইজাজুলের বাবা ইব্রাহিম তালুকদার মামলাও করেছিলেন। পরে সে মামলায় জামিনে রয়েছেন ওই মসজিদের ইমাম। তবে বিষয়টি অস্বীকার করে ইমাম মাওলানা হুমায়ুন কবির জানান, ইজাজুল ও তার বাবা আমার কাছে ওই মেয়েকে পাওয়ার জন্য তাবিজ করতে এসেছিল। আমি তাদের ‘তাবিজ করে না দেয়ায়’ তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আমার উপর এ অভিযোগ আনছে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close