ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা সেভ!

প্রকাশ : ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০

ক্রীড়া ডেস্ক

কয়েক মুহূর্ত যেন তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন নিকোলাস পুরান। প্রায় অবিশ্বাস্যভাবে ছোঁ মেরে নিশ্চিত ছক্কা থেকে বল হাওয়ায় ভেসে মাঠের ভেতরে নিয়ে আসেন তিনি। ধারাভাষ্যকার হার্সা ভোগলে বলে ওঠেন তার জীবনের দেখা সর্বশ্রেষ্ঠ ফিল্ডিং। টুইটারে পরে একই মত দিয়েছেন শচীন টেন্ডুলকার। সর্বকালের সেরা ফিল্ডার হিসেবে পরিচিত জন্টি রোডসও জানিয়েছেন, এটিই ইতিহাসের সেরা সেভ!

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) পরশু রাতের ম্যাচে কিংস ইলিভেনের ২২৪ রান তাড়ায় তখন নেমে ছক্কার বৃষ্টি শুরু করেছেন সঞ্জু স্যামসন। অষ্টম ওভারে স্পিনার মুরুগান আশ্বিনের বলে তেমন একটি শট নিশ্চিতভাবেই পাঠিয়েছিলেন বাউন্ডারির ওপারে।

বাউন্ডারি লাইনে দাঁড়ানো ক্যারিবিয়ান পুরান দিলেন শূন্যে লাফ। হাওয়ায় ভেসে থাকা অবস্থায় বল জমল তার হাতে। কিন্তু শরীর ততক্ষণে বাউন্ডারি লাইনের বাইরে পড়তে যাচ্ছে। বলসহ পড়ে যাচ্ছেন বুঝতে পেরে মাটি স্পর্শ করার মাইক্রো সেকেন্ড আগে শূন্য অবস্থাতেই তা ছুড়ে দেন ভেতরে। ছয়ের বদলে ২ রান পায় রাজস্থান।

বাউন্ডারি লাইনে লাফ দিয়ে বল বাঁচানো এখন হরহামেশা ব্যাপার। কিন্তু পুরানের বিশেষত্ব হচ্ছে তিনি পেছনে লাফ দিয়ে অনেকখানি বাইরে ছিটকে ভারসাম্য হারিয়ে পড়েই যাচ্ছিলেন। ওই অবস্থাতেই যেভাবে বল ভেতরে পাঠিয়েছেন, তা একদমই অন্য উচ্চতার। পুরানের তাৎক্ষণিক চিন্তা, শরীরের অভিব্যক্তি, গতি সব বিবেচনায় নিলে পুরো দৃশ্য চোখ কপালে তোলার মতো।

এমন কা- দেখে ধারাভাষ্য দিতে থাকা হার্শা চমকে ওঠেন। অনেক অনেক ম্যাচ স্বচক্ষে দেখা এই ক্রিকেট বিশ্লেষকের মতে, এটিই ক্রিকেট ইতিহাসে তার দেখা সেরা ফিল্ডিং, ‘আমার মতেই এটিই সেরা। কারণ, বল সীমানার দুই গজ বাইরে চলে গিয়েছিল। সেখান থেকে ফেরত এনে ছক্কা বাঁচানো! ওয়াও!’

টুইটারে এই ছক্কা বাঁচানোর একটি ছবি পোস্ট করে টেন্ডুলকার লিখেছেন, ‘আমার জীবনে দেখা সেরা ফিল্ডিং সেভ এটি। অবিশ্বাস্য!’

পুরান যখন ছক্কাটি বাঁচান, ডাগআউটে তাদের ফিল্ডিং কোচ জন্টি রোডস দাঁড়িয়ে তাকে অভিবাদন জানিয়ছেন। তবে শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে নাটকীয়তায় ভরা ম্যাচে পাঞ্জাবের ২২৩ রান ৩ বল আগে টপকে ৪ উইকেটে জিতেছে রাজস্থান। আইপিএল ইতিহাসে এটিই সবচেয়ে বেশি রান তাড়া করে জয়।

 

 

"