প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১

চ্যান্সেলর নির্ধারণে জার্মানিতে ভোট

জার্মানিতে গতকাল রবিবার ছুটির দিনে রাজধানী বার্লিনের রাস্তায় আয়োজন করা হয়েছিল বার্ষিক ম্যারাথন কিন্তু সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দেশজুড়ে চলে ভোটের ম্যারাথন, যার মধ্যে দিয়ে গঠিত হবে জার্মান পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ-বুন্ডেসটাগ। ফেডারেল জার্মানির ইতিহাসে এবারই প্রথম নির্বাচনের আগে তিন প্রধান দলের চ্যান্সেলর পদপ্রার্থীরা টেলিভিশন বিতর্কে অংশ নিয়েছেন। তবে ভোটের আগে নিশ্চিত জয়ের আভাস পাচ্ছেন না কেউ। সর্বশেষ জনমত জরিপ বলছে, সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি খুব সামান্য ব্যবধানে মারকেলের রক্ষণশীল ইউনিয়ন শিবিরের চেয়ে এগিয়ে আছে। তবে একটি বিষয় স্পষ্ট, ভোট শেষে যে দলই এগিয়ে থাক, সরকার গড়তে তাদের জোটের শরণাপন্ন হতে হবে।

১৬টি অঙ্গরাজ্যে একযোগে শুরু হয় ভোটগ্রহণ। এর মধ্যে দিয়ে দীর্ঘ ১৬ বছরের আঙ্গেলা মারকেলের শাসনামলের পর নতুন চ্যান্সেলর পেতে যাচ্ছে জার্মানরা। নির্বাচনকে কেন্দ্র দেশজুড়ে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ।

করোনা মহামারির মধ্যে নির্বাচন আয়োজনের ফলে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই নিজের পছন্দের চ্যান্সেলর পদপ্রার্থীকে ভোট দিচ্ছেন সাধারণ মানুষ। যেকোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে জার্মানিজুড়ে নেওয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এবারের জাতীয় নির্বাচনে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী চ্যান্সেলর পদে লড়ছেন না অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেল। তার দল ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ) থেকে লড়ছেন দলটির বর্তমান চেয়ারম্যান আরমিন লাশেট। সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এসপিডি) থেকে চ্যান্সেলর পদে লড়ছেন জার্মানির ভাইস চ্যান্সেলর ও অর্থমন্ত্রী ওলাফ শলৎস। পরিবেশবাদী দল গ্রিন পার্টি থেকে নির্বাচনে অংশ লড়ছেন আনালেনা বেয়ারবক।

এবারের জাতীয় নির্বাচনে চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী ল্যাশেটের প্রতি পূর্ণ সমর্থনের কথা জানান দিয়েছেন মারকেল। দুটি শেষ জনমত জরিপে দেখা গেছে, সিডিইউ এবং সিএসইউ থেকে ২৬ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছে স্যোশাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এসপিডি)। ভোট শেষে সোমবারের মধ্যে কিছু ফল পাওয়া যেতে পারে।

এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ৬ কোটি ৪০ লাখ। তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে সবাই বুথে এসে সরাসরি ভোট দেবেন না। মেইলের মাধ্যমে অনেকেই নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেওয়া সুযোগ থাকছে।

বুন্ডেসটাগে আসন থাকে অন্তত ৫৯৮টি। অন্তত বলা হচ্ছে কারণ এই সংখ্যা বাড়তে পারে। জার্মানির নির্বাচন পদ্ধতিই এমন। কোন দল এ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাচ্ছে তা ভোট শেষে রাতের মধ্যেই স্পষ্ট হয়ে যাবে। নতুন চ্যান্সেলর কে হবেন তা জানতেও অপেক্ষায় থাকতে হবে।

বিদায়ী চ্যান্সেলর মারকেল ভোটের আগে তার দেশের নাগরিকদের সতর্ক করে বলেছেন, জার্মানির প্রয়োজন স্থিতিশীলতা আর তরুণ জার্মানদের দরকার সুন্দর ভবিষ্যৎ। সুতরাং ক্ষমতায় কে থাকবে, সেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

জার্মানিতে ভোট হয় কীভাবে? ১৮ বছরের বেশি বয়স হলে জার্মানিতে জাতীয় নির্বাচনে ভোট দেওয়া যায়। দেশটিতে ভোট দেওয়ার যোগ্য নাগরিকের সংখ্যা ৬ কোটি ৪০ লাখ। ডয়চে ভেলে জানিয়েছে, পুরো জার্মানিতে ৮৮ হাজার ভোটকেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হচ্ছে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close