বরিশাল প্রতিনিধি

  ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১

চরবাড়িয়ার দুঃখ ৬ কিমি সড়ক

সড়ক যোগাযোগের জন্য যেমন সুবিধা বয়ে আনে, বিপরীতে সেখানে যদি খানাখন্দক ও গর্তে বেহাল অবস্থায় থাকে; সেক্ষেত্রে সুবিধার পরিবর্তে মানুষের কষ্টের সীমা থাকে না। বৃষ্টির দিনে সেটা যেন মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়। এমনই একটি সড়ক বরিশাল সদর উপজেলার চরবাড়িয়া ইউনিয়নের লামচরী গ্রামের ভেতর থেকে শহরমুখী ৬ কিলোমিটারের একটি রাস্তা। রাস্তাটি যেন এলাকাবাসীর দুঃখ। সড়কটির বেহাল দশায় জনদুর্ভোগ পৌঁছে গেছে চরমে। বর্ষায় গর্তে জমে থাকা কাদাপানিতে সড়ক দিয়ে হাঁটাচলাও মুশকিল। পাশাপাশি ঘটে চলে ছোটখাটো দুর্ঘটনাও। বর্তমানে মাটির রাস্তায় পরিণত হওয়ায় সামান্য বৃষ্টি এলেই সড়কটি একেবারে কর্দমাক্ত হয়ে পড়ে। খানাখন্দক গর্তে কাদা আর পানিতে চলাচল করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। তখন কোনো যানবাহন তো দূরের কথা হেঁটে যাওয়াও দুষ্কর হয়ে পড়ে। এভাবেই চলছে বছরের পর বছর। দুর্ভোগকাল যেন শেষ হয় না চড়বাড়িয়া লামচরীবাসীর।

উল্লেখ্য, লামচরী প্রায় ৬ কিলোমিটার সড়ক কয়েক বছর আগে কীর্তনখোলা নদীর ভাঙনে বিলীন হয়ে যায়। পরে ওই এলাকায় দুটি ইটভাটার মালিকদের নিজ অর্থায়নে ও এলাকাবাসীর সহায়তায় সাবেক রাস্তার পাশ দিয়ে আরেকটি সংযোগ তৈরি করা হয় চলাচলের জন্য। কিন্তু বর্তমানে সেটাও জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। পানি নেমে গেলেও স্রোতে রাস্তার ইট-বালু ভেঙে নদীতে পড়ে যাওয়ায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে রাস্তাটি।

সড়ক সংস্কারের বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. মাহতাব হোসেন সুরুজ বলেন, এই রাস্তাটি বেহাল অবস্থা সম্পর্কে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। শিগগিরই সড়কটির কাজ হবে বলে আশা করেন তিনি। এ বিষয়ে বরিশাল সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবুর রহমান জানান, তালতলী থেকে লামচরী সড়কের কাজ শিগগিরই শুরু হবে। তিনি আরো বলেন, এই এলাকার মানুষ বর্তমানে অনেক দুর্ভোগের মধ্যে রয়েছে বলে জানতে পারেন তিনি। তবে তিনি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে কিছুদিনের মধ্যে সমাধান করার চেষ্টা করবেন।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close