রায়হান সিকদার, লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

  ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১

উদ্বোধনের অপেক্ষায় লোহাগাড়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশন

৯টি ইউনিয়ন ও একটি শহর নিয়ে গঠিত লোহাগাড়া চট্টগ্রামের লোহাগাড় উপজেলা। এলাকায় অগ্নিকাণ্ডসহ বিভিন্ন দুর্ঘটনা ঘটলে খবর জানাতে হতো সাতকানিয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশনকে।

যদিও এতদূর থেকে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে হিমশিম অবস্থায় পড়তে হতো ফায়ার সার্ভিস কর্মীদেরকে। 

অবশেষে লোহাগাড়া উপজেলায় নির্মাণ করা হয়েছে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন। চুনতি ইউনিয়ন ডেপুটি বাজারের দক্ষিণ পার্শ্বে স্টেশনটি নির্মাণ করা হয়েছে। 

উপজেলার বাসিন্দাদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল এলাকায় একটি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণের। এরই পরিপ্রেক্ষিতে শেষ হয়েছে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণের কাজ। এখন শুধু কার্যক্রম চালু করার অপেক্ষা। 

লোহাগাড়া বটতলী শহর উন্নয়ন কমিটির সদস্য সচিব মিজানুর রহমান মিজান বলেন, 'লোহাগাড়ায় অতীত সময়ে বহু অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু লোহাগাড়ায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশন না থাকায় সাতকানিয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশনকে অগ্নিকাণ্ড ঘটলে খবর দেওয়া হতো। কিন্তু সেখান থেকে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আসতে আসতে বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়ে যেতো। এখন আমাদের সন্নিকটে ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন নির্মিত হওয়ায় বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। আমরা উদ্বোধনের অপেক্ষার প্রহর গুণছি।'

চুনতি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জয়নাল আবেদীন জনু কোম্পানি বলেন, ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে অনেক আগে। উদ্ধোধনের বিষয়ে এমপি মহোদয়ের সাথে কথা হয়েছে। আশা করি খুব শিগগিরই এর উদ্বোধন হবে। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহাম্মদ আহসান হাবীব জিতু বলেন, সাধারণত লোহাগাড়া উপজেলায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা তুলনামূলক বেশি। এখানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলে আমাদের সাতকানিয়া উপজেলার সাহায্য নিতে হয়। উদ্ধারকারী দল ঘটনাস্থলে আসার আগেই অনেক ক্ষতি হয়ে যায়। এখানকার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল যেন এখানে একটা ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপিত হয়। অত্যন্ত আনন্দের বিষয় খুব শিগগিরই আমরা আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত ফায়ার সার্ভিস স্টেশন পেতে যাচ্ছি।

এ বিষয়ে  চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক (চট্টগ্রাম দক্ষিণ) মো. ফারুক হোসেন সিকদার বলেন, 'লোকবল এখনো নিয়োগ দেওয়া হয়নি। এখনো আংশিক কাজ বাকি আছে।ইতোমধ্যে গণপূর্ত বিভাগ চট্টগ্রামের প্রকৌশলীর সাথে কথা হয়েছে কাজটি দ্রুত সমাপ্ত করার জন্য।

তিনি আরও জানান, স্টেশনে মাটি ভরাট, কিছু ঢালাই কাজ, আর ড্রেনের কাজ বাকি রয়েছে। সেগুলো ঠিকাদার এখনো শেষ করতে পারেনি। আমরা কন্ট্রাক্টরকে দ্রুত কাজ শেষ করার তাগিদ দিয়েছি। সবকিছু ঠিকঠাক  থাকলে আগামী মাসে উদ্বোধন করা যেতে পারে বলেও তিনি জানান। 

পিডিএসও/এসএমএস

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
লোহাগাড়া,চট্টগ্রাম
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close