ক্রীড়া প্রতিবেদক

  ১৫ অক্টোবর, ২০২১

এখনো পুড়ছে জামালরা

বাংলাদেশ টিম হোটেল অনেকটা নিস্তব্ধ। বাংলাদেশ ও মালদ্বীপ একই হোটেলে ছিল। সাফ থেকে মালদ্বীপ ও বাংলাদেশ টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নেওয়ায় এই হোটেল এখন প্রাণহীন। গতকাল দুপুরে মালদ্বীপ দল হোটেল ছেড়েছে। বাংলাদেশ দল দেশে ফিরবে ১৭ অক্টোবর।

হারের পর থেকেই বাংলাদেশের ফুটবলপ্রেমীরা বিশ্লেষণ করছেন পেনাল্টি নিয়ে। খেলোয়াড়, কোচিং ও স্টাফরা নানাভাবে দেখছেন খেলার ফুটেজ। ম্যানেজার সত্যজিত দাস রুপু রেফারিকে ভিন্নভাবে কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন, ‘প্রথমত এটা বিতর্কিত সিদ্ধান্ত। ফুটবলের আইনে ফাউলের মধ্যে পড়ে না সেটি। আমরা দেখেছি বল হেড করার জন্য লাফিয়েছিলেন সাদ। রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়ে কার্ড দিয়েছেন বিশ্বনাথকে।’

বিশ্বনাথকে কার্ড দেওয়ার বিষয়টি রেফারির সিদ্ধান্তকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে বলে মনে করেন রুপু, ‘রেফারি কিছুটা দূরে ছিলেন। তিনি বিষয়টি ভালোভাবে দেখেননি এর প্রমাণ বিশ্বনাথকে কার্ড দেওয়া।’

বাংলাদেশ ফাইনাল খেলবে এজন্য ফিরতি টিকেট ১৭ অক্টোবর। আজ ও আগামীকাল খেলোয়াড়দের দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছিল বাফুফে, ‘আমরা মালদ্বীবিয়ান এয়ারলাইনসে এসেছি। সেই এয়ারলাইনসে ১৭ তারিখের আগের ফ্লাইট ১৫। ওই দিন সিট খালি নেই। অন্য এয়ারলাইন্সে ১৮ তারিখের আগে সিট নেই। ফলে ১৭ তারিখ সকালেই আমরা দেশে ফিরব।’

গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো দ্রুত দেশে ফিরে যেতে চান, ‘এখানে আর এখন ভালো লাগছে না। টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়ে সবার মন খারাপ।’ দ্রুত মালদ্বীপ ছাড়তে চান বাংলাদেশের স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রুজনও। তিনি হোটেলে টিকিট নিয়ে এয়ারলাইনস কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ করছিলেন বিশেষভাবে।

নেপালের সঙ্গে ড্রয়ে সাফ মিশনের ইতি হলো বাংলাদেশের। তবে ফলটা ফেয়ার ছিল না বলে অভিমত ফরোয়ার্ড রাকিবের। বলেন, ‘ফলটা যদি ফেয়ার হতো তাহলে সমস্যা হতো না। ফলটা ফেয়ার ছিল না। সে জন্য বেশি কষ্ট পাচ্ছি।’

এক গোলে এগিয়ে থেকে ম্যাচের শেষে ১০ মিনিটে দুটি বড় আঘাতে নেপালের সঙ্গে ড্র করে স্বপ্নভঙ্গ হয় বাংলাদেশের। ভালো খেলেও লাল কার্ড ট্র্যাজেডি আর পেনাল্টি বিতর্ককে সঙ্গী করে সাফ থেকে বিদায় নিতে হয়েছে বাংলাদেশকে।

বিষয়টি মানতে কষ্ট হচ্ছে জাতীয় দলের ফরোয়ার্ড রাকিব হোসেনের।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমের কাছে নেপাল ম্যাচ নিয়ে নিজের অসন্তুষ্টির কথা শোনালেন রাকিব। তিনি বলেন, ‘আমরা পরিশ্রম করেছি অনেক। পরিশ্রমের ফল পাইনি দেখে সবাই কষ্ট পেয়েছে।’

ড্রেসিং রুম শোকে স্তব্ধ হয়ে আছে বলে জানান রাকিব। এই ফরোয়ার্ড বলেন, ‘সবাই কান্নাকাটি করতেছে। খুব খারাপ লাগতেছে।’

ম্যাচটা ১-১ স্কোর নিয়ে শেষ হলে সাফ মিশনের ইতি হয় বাংলাদেশের। ফলটা ফেয়ার ছিল না বলে অভিমত রাকিবের।

তিনি বলেন, ‘ফলটা যদি ফেয়ার হতো তাহলে সমস্যা হতো না। ফলটা ফেয়ার ছিল না। সে জন্য বেশি কষ্ট পাচ্ছি।’

এদিকে রেফারির সিদ্ধান্তকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন জাতীয় দলের প্রধান কোচ অস্কার ব্রুজন। আর জামাল ভূঁইয়া তো সরাসরিই উল্লেখ করেছেন, ‘রেফারি বড় ডাকাতি করেছে।’

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close