রোমাঞ্চ নিয়ে মাঠে মাহমুদউল্লাহ

প্রকাশ : ০৬ আগস্ট ২০২০, ০০:০০

ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রথমবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ঢুকলে কেউ কী করতে পারেন? হয়তো চারপাশে তাকিয়ে দেখবেন মাঠের বিশালত্ব, তাকিয়ে থাকবেন সুউচ্চ গ্যালারিতে, ছুঁয়ে দেখবেন নরম সবুজ ঘাস। প্রিয় আঙিনার সঙ্গে সাড়ে চার মাসের বিচ্ছেদের পর ঠিক যেন নতুনের মতোই অভিজ্ঞতা হলো মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের। চিরচেনা মাঠে ফিরে নতুনভাবে সবকিছুর স্বাদ নিলেন এই অভিজ্ঞ ক্রিকেটার।

গত ১৬ মার্চ ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) ম্যাচে গাজী ক্রিকেটার্সের হয়ে শেষবার খেলেছিলেন মাহমুদউল্লাহ। এক রাউন্ড খেলা হয়েই করোনাভাইরাসের প্রকোপে স্থগিত হয়ে আছে লিগ। মাহমুদউল্লাহ আর স্টেডিয়ামমুখো হননি একবারও। লম্বা বিরতির পর অবশেষে কাল আবার হোম অব ক্রিকেটে গেলেন তিনি।

ঈদুল আজহার পর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) তত্ত্বাবধানে ক্রিকেটাদের একক অনুশীলন আবার শুরু হওয়ার কথা শনিবার থেকে। তবে মাহমুদউল্লাহ শুরু করলেন আগেই, ব্যক্তিগত পর্যায়ে। সঙ্গে ছিল না কোনো ট্রেনার। অনুশীলন শেষে পঞ্চপা-বের শেষ সদস্য শোনালেন দীর্ঘদিন পর ফেরার অভিজ্ঞতা, মাঠে যাব ঠিক করার পর থেকেই বাচ্চাদের মতো রোমাঞ্চ অনুভব করছিলাম। হাস্যকর শোনাতে পারে, উত্তেজনায় কালকে (পরশু) রাতে ঘুমও হয়েছে দেরিতে। এত লম্বা সময় মাঠে যাইনি, আগে হয়েছে বলে মনে পড়ে না। আজকে (গতকাল) মাঠে ঢোকার পর সবকিছু কেমন যেন নতুন লাগল। চারপাশে তাকালাম। গ্যালারি, মাঠ সবকিছু দেখে আরো ভালোভাবে বুঝলাম যে কতটা মিস করেছি। ঘাস ছুঁয়ে দেখলাম, বসে থাকলাম। এখানকার সবকিছুই তো আমাদের চেনা। তারপরও মনে হচ্ছিল যেন নতুন দেখছি সব।

ঈদের আগে বোর্ডের তত্ত্বাবধানে একক অনুশীলনে ছিলেন না তিনি। তবে জানালেন, যোগ দেবেন শনিবার থেকে। তার আগে নিজের অবস্থা একটু পরখ করে নিলেন, ‘আজকে (গতকাল) রানিং করলাম একটু। ১০টি চক্কর দিলাম মাঠে। আরো কিছু কাজ করলাম। এরপর হালকা নকও করেছি। ভালোই লাগল অনেক দিন পর এসব করে। মাঠের আবহই অন্যরকম, ঘরে তো এই স্বাদ পাওয়া যায় না। অফিশিয়ালি নয়, স্রেফ নিজের উদ্যোগেই করলাম। শনিবার থেকে অফিশিয়ালি জয়েন করব।’

 

"