নিজস্ব প্রতিবেদক

  ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১

বেতন ৪০০০, সম্পদ ৪৬০ কোটি

পেশা শুরু করেন একজন চুক্তিভিত্তিক কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে। দৈনিক বেতন পেতেন ১৩০ টাকা। র‌্যাব জানিয়েছে, বর্তমানে সেই কম্পিউটার অপারেটরের অবৈধ অর্জিত সম্পদের পরিমাণ আনুমানিক ৪৬০ কোটি টাকা।

অবৈধ সম্পদের পাহাড় তৈরি করা টেকনাফ বন্দরের সাবেক চুক্তিভিত্তিক কম্পিউটার অপারেটর নুরুল ইসলামকে (৪১) রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে গতকাল মঙ্গলবার ভোরে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তার কাছ থেকে ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৫০০ জালনোট, ৩ লাখ ৮০ হাজার মিয়ানমারের মুদ্রা, ২ লাখ ১ হাজার ১৬০ টাকা এবং ৪ হাজার ৪০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক খন্দকার আল মঈন।

সংবাদ সম্মেলনে খন্দকার আল মঈন জানান, নুরুল ইসলাম এরই মধ্যে ঢাকা শহরে ৬টি বাড়ি ও ১৩টি প্লট কিনেছে। এ ছাড়া সাভার, টেকনাফ, সেন্টমার্টিন, ভোলাসহ বিভিন্ন জায়গায় নামে-বেনামে তার ৩৭টি জমি, প্লট, বাগানবাড়ি ও বাড়ি আছে। তার অবৈধ অর্জিত সম্পদের আনুমানিক পরিমাণ ৪৬০ কোটি টাকা। এ ছাড়া নুরুল ইসলামের নামে-বেনামে বিভিন্ন ব্যাংকে ১৯টি অ্যাকাউন্ট আছে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নুরুল বন্দরে কর্মরত থাকাকালীন তার অবস্থানকে কাজে লাগিয়ে চোরাকারবারি, শুল্ক ফাঁকি, অবৈধ পণ্য খালাস, দালালি- এসবের কৌশল রপ্ত করেন বলে জানিয়েছে র‌্যাব। তার অবস্থানকে কাজে লাগিয়ে তিনি বন্দরে বিভিন্ন ধরনের সিন্ডিকেটে যুক্ত হন। ২০০৯ সালে তিনি চাকরি ছেড়ে দেন। তারই আস্থাভাজন একজনকে সেই পদে নিয়োগের ব্যবস্থা করেন। নুরুল টেকনাফ বন্দরকেন্দ্রিক দালাল সিন্ডিকেটের অন্যতম হোতা। তার সিন্ডিকেটে ১০-১৫ জন সক্রিয় সদস্য আছে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close