গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি

  ১০ অক্টোবর, ২০২১

মাদ্‌রাসার মাঠ দখলে করে বালুর ব্যবসা

নাটোরের গুরুদাসপুরের নাজিরপুর আলিম মাদরাসার খেলার মাঠজুড়ে বালির স্তূপ। সেই বালির সঙ্গে উঠে আসা পানিতে শ্রেণিকক্ষের সামনে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। কাদা পানিতে একাকার শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে ব্যাপক দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। এতে মাদরাসায় পাঠদান যেমন ব্যাহত হচ্ছে পাশাপাশি খেলাধুলা করতে পারছে না শিক্ষার্থীরা।

জানা গেছে, নাজিরপুর আলিম মাদরাসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি শওকত রানা লাবু প্রভাব খাটিয়ে মাদরাসা মাঠটি দখল করে বালির ব্যবসা করছেন। শওকত রানা লাবু নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বিক্রির জন্য ট্রলারে করে আনা বালি ওই মাঠে স্তূপ করে রাখা হচ্ছে। স্তূপের এসব বালি ট্রলিতে করে বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করা হয়। মাঠজুড়ে এভাবে বালি রাখায় মাদরাসার তিনটি ভবনের পাঁচটি শ্রেণিকক্ষে পানি ঢুকে গেছে। কাদা পানিতে একাকার শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে ব্যাপক দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। শুধু শ্রেণিকক্ষ আর বারান্দাতেই নয় মাদরাসার দুটি প্রবেশ মুখও বালিতে বন্ধ হয়ে গেছে।

মাদরাসার শিক্ষার্থী আঞ্জুম, তাসনিম, আকরাম আলী, রঞ্জুসহ অন্তত ১০ জন জানায়, করোনার জন্য দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর মাদরাসা খুললেও গত বুধবার থেকে মাঠে বালি ফেলা শুরু করেন প্রতিষ্ঠানের সভাপতি। মাঠজুড়ে বালির বড় স্তূপের কারণে শ্রেণিকক্ষের সামনে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে শ্রেণিকক্ষে যেতে কাদা-পানিতে পোশাক নষ্ট হয়ে যায়।

মাদাসার অধ্যক্ষ আবদুল হক জানান, মাঠজুড়ে বালি ফেলার কারণে উত্তর পাশের প্রবেশ মুখ বন্ধ হয়েছে। আবার দক্ষিণ পাশের প্রবেশ মুখেও বালির স্তূপ থাকায় শিক্ষার্থীরা মাদরাসায় প্রবেশ করতে পারছে না। তাছাড়া মাদরাসার উত্তর পাশের পাঁচটি শ্রেণিকক্ষের বারান্দায় পানি উঠায় পাঠদান এবং চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান শওকত রানা লাবু বালি ফেলার কথা স্বীকার করে বলেন, ‘শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সাময়িক দুর্ভোগ হলেও মাদরাসা মাঠেও কিছু বালি দেওয়া হবে।’

গুরুদাসপুর মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. এয়াহেদুজ্জামান জানান, দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হয়েছে। এই দীর্ঘ বিরতির পর যদি শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ হয় তা দুঃখজনক। সভাপতি হয়ে মাদরাসা মাঠে বালি রেখে তিনি ঠিক করেননি। খোঁজ নিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close