reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ০৯ আগস্ট, ২০২২

শ্রীমঙ্গলে ‘ভিশন-২০৪১ : স্মার্ট আইসিটি ডিভিশন’ বিষয়ক ডিজাইন অনুষ্ঠান

প্রধানমন্ত্রীর আইসিটিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদের দূরদর্শী নেতৃত্ব ও পরামর্শে এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের নির্দেশনায় স্মার্ট আইসিটি ডিভিশনের ভিশন-২০৪১ মহাপরিকল্পনা ও রোডম্যাপ প্রণয়নের লক্ষ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের নেতৃত্বে, ডিজিটাল সার্ভিস এক্সিলারেট্র, এটুআইয়ের তত্ত্বাবধানে এবং স্টার্টআপ বাংলাদেশের সহযোগিতায় আইসিটি বিভাগের অধীন ৮টি দপ্তর/সংস্থার প্রধানের নেতৃত্বে ও অংশগ্রহণে লেমন গার্ডেন রিসোর্ট, শ্রীমঙ্গলে ছয় দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘ভিশন-২০৪১ : স্মার্ট আইসিটি ডিভিশন’ মহাপরিকল্পনাবিষয়ক ডিজাইন ও পরিকল্পনা ল্যাব।

২০০৮ সালের ১২ ডিসেম্বরে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনী ইশতেহারে ঘোষণা করেন ২০২১ সালে স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশ ‘ডিজিটাল বাংলাদেশে’ পরিণত হবে। তারই ধারাবাহিকতায় ডিজিটাল বাংলাদেশ সফল বাস্তবায়নের দিকে এগিয়ে চলছে। মধ্যম আয়ের ডিজিটাল বাংলাদেশকে হাতিয়ার হিসেবে ধরে উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ২০৪১ সালের মধ্যে জ্ঞানভিত্তিক উন্নত স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার বদ্ধ পরিকর এবং আইসিটি ডিভিশন সেই ভিশনকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অগ্রসর হচ্ছে।

সেই ভিশনকে সামনে রেখে স্মার্ট বাংলাদেশ-২০৪১ বিনির্মাণের লক্ষ্যে আইসিটি ডিভিশন-২০৪১-এর ভিশন স্মার্ট আইসিটি ডিভিশন নির্মালে ৪টি (স্মার্ট সিটিজেন, স্মার্ট ইকোনমি, স্মার্ট সোসাইটি এবং স্মার্ট গভর্নমেন্ট) স্তম্ভের আলোকে আইসিটি ডিভিশনের যে ভিশন তা প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে তার অধীনস্থ প্রত্যেকটি দপ্তর/সংস্থা তাদের নিজ নিজ মিশন নির্ধারণ-পূর্বক শেয়ারড ভিশন এনালাইসিস ও ডিজাইন করেন।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীনস্থ ৯টি দপ্তর/সংস্থার প্রধানদের নেতৃত্বে এই ভিশনের আওতায় ১৯৭টি উদ্যোগ চিহ্নিত করে মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন রোডম্যাপ তৈরি করা হয়, সেই সঙ্গে ৪টি উদ্যোগের প্রাতিষ্ঠানিকীকরণের বিষয়টি পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। আগামী ২০৪১ সালকে সামনে রেখে দ্রুত-২০২৩, স্বল্প-২০২৫, মধ্যমণ্ড২০৩১ এবং দীর্ঘ-২০৪১ মেয়াদি রোডম্যাপ ও মাস্টারপ্ল্যান পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগকে সম্পূর্ণরূপে অটোমেটেড করার জন্য আগামী দিনের ‘স্মার্ট আইসিটি ডিভিশন’ নির্মাণের লক্ষ্যে ১৭৬টি সফটওয়্যার চিহ্নিত করে বাস্তবায়ন পরিকল্পনা সম্পন্ন করা হয়েছে। উল্লেখ্য, অটোমেশনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট পেপারলেস অফিস বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার অনুযায়ী সফটওয়্যারসমূহের দ্রুত বাস্তবায়নের বিষয়টি পরিকল্পনায় গুরুত্ব পায়।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম পিএএর সভাপতিত্বে ও নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত ডিজাইন ও পরিকল্পনা ল্যাবে বিভাগের অধীন দপ্তর/সংস্থাসমূহের প্রধান ও সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিশেষজ্ঞরাসহ ৭৩ কর্মকর্তা অংশ নেন। ‘ভিশন-৪১ : স্মার্ট আইসিটি ডিভিশন’ মাস্টারপ্ল্যান রোডম্যাপ পরিকল্পনা প্রণয়নের জন্য ডিজিটাল সার্ভিস এক্সিলারেটর, এটুআই, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে একটি নতুন মডেল উদ্ভাবন করা হয়।

গত ২২ জুলাই অনুষ্ঠিত এই ডিজাইন ও পরিকল্পনা ল্যাবের সমাপনী পর্বে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যৎ স্মার্ট বাংলাদেশ হবে সাশ্রয়ী, টেকসই, জ্ঞানভিত্তিক, বুদ্ধিদীপ্ত এবং উদ্ভাবনী।’

‘ভিশন-৪১ : স্মার্ট আইসিটি ডিভিশন’ মাস্টারপ্ল্যান রোডম্যাপ পরিকল্পনা প্রণয়নের জন্য কর্মশালায় যে নতুন মডেল উদ্ভাবন করা হয়েছে তা অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের ভিশন ৪১ মাস্টারপ্ল্যান রোডম্যাপ প্রণয়নের ক্ষেত্রেও ব্যবহার করা এবং বার্ষিক পারফম্যান্সের সঙ্গেও কার্যকর সংশ্লিষ্টতা নিরূপণ করা যেতে পারে। ছয় দিনব্যাপী ডিজাইন ও পরিকল্পনা ল্যাব পরিচালনা করেন ফরহাদ জাহিদ শেখ, চিফ ই-গভর্ন্যান্স স্ট্র্যাটিজিস্ট, এটুআই, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। সমাপনী পর্বে সবগুলো দপ্তর/সংস্থার প্রস্তুত মাস্টারপ্ল্যান ও রোডম্যাপে বিশ্লেষণের সারসংক্ষেপ পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে উপস্থাপন করেন। কর্মশালায় উপস্থাপিত মাস্টারপ্ল্যান ও রোডম্যাপসমূহ থেকে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় স্থান অর্জনকারী যথাক্রমে ইলেকট্রনিক স্বাক্ষর সার্টিফিকেট প্রদানকারী কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় (সিসিএ), এসপায়ার টু ইনোভেট (এটুআই), বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক অথরিটি এ তিনটি দপ্তরকে প্রতিমন্ত্রী পুরস্কৃত করেন।

ওই অনুষ্ঠানটিতে স্মার্ট বাংলাদেশ ভিশন-২০৪১ বিনির্মাণে মাস্টারপ্ল্যান ও রোডম্যাপ পরিকল্পনা প্রণয়নে নেতৃত্ব দেন রণজিৎ কুমার, নির্বাহী পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল, বিকর্ণ কুমার ঘোষ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক অথরিটি, মো. খায়রুল আমিন মহাপরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সি, মো. মোস্তফা কামাল মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তর, আবু সাঈদ চৌধুরী নিয়ন্ত্রক (যুগ্মসচিব) ইলেকট্রনিক স্বাক্ষর সার্টিফিকেট প্রদানকারী কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়, এ কে এম লতিফুল কবির কোম্পানি সেক্রেটারি, অতিরিক্ত দায়িত্ব বাংলাদেশ ডেটা সেন্টার কোম্পানি লিমিটেড, আনীর চৌধুরী পলিসি অ্যাডভাইজর, এসপায়ার টু ইনোভেট (এটুআই) এবং সামি আহমেদ ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্টার্টআপ বাংলাদেশ লিমিটেড। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close