ক্রীড়া প্রতিবেদক

  ১০ মে, ২০২১

সবার অবদান চান সুজন

‘দলের প্রয়োজনে কারো ব্যাটিং অর্ডার বদলাতে পারে। আমার কাছে মনে হয় না এগুলো বড় কোনো ব্যাপার। বড় বিষয় হচ্ছে খেলোয়াড়রা কতটা অবদান রাখছে’ - খালেদ মাহমুদ সুজন, বিসিবি পরিচালক

ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের পর থেকেই বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের ব্যাটিং অর্ডার নিয়ে বেশ আলোচনা হচ্ছে। যেখানে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে সাকিব আল হাসান ও সৌম্য সরকারের ব্যাটিং অর্ডার নিয়ে। যদিও ব্যাটিং অর্ডার নিয়ে কোনো সমস্যা দেখছেন না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) গেম ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ সুজন।

২০১৯ বিশ্বকাপের আগে সাধারণত লোয়ার অর্ডারে ব্যাটিং করতেন সাকিব। তবে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ওয়ানডে বিশ্বকাপে তিনে ব্যাট করতে দেখা যায় সময়ের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডারকে। পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে সফলও ছিলেন তিনি। যেখানে ৮ ইনিংসে ২ সেঞ্চুরি ও ৫ হাফ সেঞ্চুরিতে ৬০৬ রান করেছিলেন তিনি।

------
যদিও করোনাকালীন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চারে ব্যাট করতে দেখা গেছে এই টাইগার অলরাউন্ডারকে। এদিকে ক্যারিয়ারের শুরু থেকে ওপেনিংয়ে ব্যাট করা সৌম্য সরকার গেল কয়েক সিরিজ থেকে কখনো সাত আবার কখনো তিনে ব্যাট করছেন। ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একাদশে সুযোগ পেলে সৌম্য কোথায় ব্যাটিং করবেন, সেটা এখনো নিশ্চিত নয়।

এদিকে প্রায় আড়াই বছর পর প্রাথমিক দলে সুযোগ পেয়েছেন ইমরুল কায়েস। চূড়ান্ত স্কোয়াড ঘোষণা না করলেও ধারণা করা হচ্ছে ১৪ সদস্যের দলে থাকবেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। ক্যারিয়ারের বেশির ভাগ সময়ে ওপেন করা এই ব্যাটসম্যানকে এবারের সিরিজে দেখা যেতে পারে পাঁচ নম্বরে ব্যাট করতে।

যদিও তাতে কোনো সমস্যা দেখছেন না সুজন। বিসিবির গেম ডেভেলপমেন্ট কমিটির এই চেয়ারম্যান মনে করেন, ব্যাটিং অর্ডারে কোনো সমস্যা নয়, বরং দলে অবদান রাখাটাই গুরুত্বপূর্ণ। দলের প্রয়োজনে যে কারো ব্যাটিং অর্ডার পরিবর্তন হতে পারে বলে জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।

গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে সুজন বলেন, ‘এটা তো প্রযুক্তিগত বিষয়, কোচরা ভালো বলতে পারবে। তবে আমার যেটা মনে হয়, দলের প্রয়োজনে আমাকে যেকোনো পজিশনে ব্যাটিং করতে হতে পারে। সেটা পাঁচ নম্বরে হোক বা চারে খেলি। সাকিব সব সময় পাঁচে খেলছে, অনেক বেশি রান করছে। সুতরাং এটা কোনো বিষয় না।’

তিনি আরো বলেন, ‘দলের প্রয়োজনে কারো ব্যাটিং-অর্ডার বদলাতে পারে। আমরা এশিয়া কাপে ইমরুলকে ৫ নম্বরে ব্যাট করিয়েছি। আমার কাছে মনে হয় না এগুলো বড় কোনো ব্যাপার। বড় বিষয় হচ্ছে দলে আপনি কীভাবে অবদান রাখতে পারছেন।’

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে আগামী ১৬ মে ঢাকায় আসছে লঙ্কানরা। ঢাকায় পা রেখেই তিন দিন হোটেলবন্দি থাকতে হবে তাদের। এরপর একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে সফরকারীরা। সূচি অনুযায়ী ওয়ানডে তিনটি হবে ২৩, ২৫ ও ২৮ মে। সবকটি ম্যাচ হবে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। কোভিড পরিস্থিতি বিবেচনায় এবারও মাঠে দর্শক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকছে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close