reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১

জয়তু যুগ-যুগান্তের নেত্রী শেখ হাসিনা

দূরদৃষ্টিসম্পন্ন মানবতাবাদী এক নেত্রী। সত্য উচ্চারণে অকুতোভয়। ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে মানুষের প্রতি তার মমত্ববোধ ঈর্ষণীয়। পরিচ্ছন্ন জীবনযাপনের অধিকারী। সৎ জীবনযাপনে অভ্যস্ত। অতুলনীয় তার মানবিক গুণাবলি। আমাদের সৌভাগ্য, এ জাতির সৌভাগ্য- আমরা এমন একজন নেতা পেয়েছি। মৃত্যুঝুঁকি নিয়েও তিনি দেশ গঠনে দিনরাত কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। মাদার অব হিউম্যানিটি, দেশরত্ন, জননেত্রী, তথা কোনো বিশেষণেই তার কর্মপরিধিকে চিহ্নিত করা যাবে না। কারণ তার কর্মের পরিধি বহুধা বিস্তৃত। তার নিষ্ঠা, মনোবল ও পরিশ্রমে বিশ্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। দেশকে উন্নয়নের সব ধারায় এগিয়ে নিয়ে মধ্যম আয়ের দেশে পৌঁছে দিয়েছেন। তিনি চতুর্থবারের মতো বাংলাদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ছাত্রীজীবন থেকে নিজেকে রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়ে গণমানুষের প্রাণস্পন্দন অনুভব করেছেন। অনায়াসে বুকে জড়িয়ে ধরেছেন দুস্থ নারীদের। ভালোবাসায় ভরিয়ে দেন নিপীড়িত জীবনের বঞ্চনাকে। সুখে-দুঃখে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের সঙ্গী হয়ে যান। পরিবারের নৃশংস হত্যার পর বিদেশ থেকে ফিরে যুক্ত হয়েছেন রাজনীতিতে। একজন সমাজমনস্ক, সংস্কৃতিমনস্ক প্রধানমন্ত্রী হয়ে আপন আলোয় উদ্ভাসিত করেছেন স্বদেশের দিগন্তরেখা। রাষ্ট্র পরিচালনায় মেধা-মননের সংযুক্তি ও মানবিকবোধে আন্তর্জাতিক বিশ্বে বাংলাদেশকে তুলে ধরেছেন। তিনি এই গৌরবের স্বীকৃতি পেয়েছেন। ২১ বছর খুনিরা, পাকিস্তানি ভাবধারায় দেশ পরিচালনা করে স্তব্ধ করে দেয় দেশের উন্নয়ন। ভুলিয়ে দেয় মানুষকে ইতিবাচক স্বপ্ন দেখতে। সমাজে, রাষ্ট্রে মিথ্যাচার প্রতিষ্ঠিত হয়। সন্ত্রাস ও জঙ্গি তৎপরতায় ইন্ধন দিয়ে রাষ্ট্রকে অস্থির করে তোলে। ন্যায়বিচার ও আইনের শাসন ভূলুণ্ঠিত হয়। সংক্ষেপে এই ছিল ’৭৫-এর ১৫ আগস্টের পর ২১ বছরের বাংলাদেশের চিত্র। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী শাসকগোষ্ঠী জাতিকে ইতিবাচক স্বপ্ন দেখতে ভুলিয়ে দিয়েছিল। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনা ২১ বছর পর রাষ্ট্র ক্ষমতায় এসে জাতিকে নতুন করে স্বপ্ন দেখাতে শিখিয়েছেন। স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথ দেখিয়েছেন। জাতিকে আবার সাহসী করে তুলেছেন। বাংলাদেশের কেউ কেউ বলেছেন- করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার ব্যর্থ হয়েছে। অথচ বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করে বলেছে, সরকার সময়মতো বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়ায় পরিস্থিতি ভালো আছে। এসব সাফল্যের মূল নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাতির পিতার মতোই শেখ হাসিনা চিরকালের বাঙালির মঙ্গলালোকের প্রসন্ন মানুষ, মানবতাবাদী। রাজনৈতিক জীবনে তিনি বাংলার মানুষের ভোট ও ভাতের নিশ্চয়তা দানকারী। বাংলাদেশের উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে তিনি বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত। কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী ও জাতির পিতাসহ পরিবারের সদস্যদের খুনিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও বিচার নিশ্চিত করে বাঙালি জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেছেন। আজ ২৮ সেপ্টেম্বর এই মহান নেত্রীর ৭৫তম জন্মবার্ষিকী। ১৯৪৭ সালে পৈতৃক নিবাস টুঙ্গিপাড়ার শ্যামল প্রকৃতির মাঝে তার জন্ম। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রথম সন্তান তিনি। টুঙ্গিপাড়ার আলো-বাতাস নিঃশ্বাসে টেনে সজীব চেতনায় প্রদীপ্ত হয়েছেন। রাজনীতি তার কাছে জীবন সত্যের বিশাল যাত্রা। জন্মদিনের শুভেচ্ছায় অভিনন্দিত করি প্রিয় প্রধানমন্ত্রী আপনাকে। জয়তু যুগ-যুগান্তের নেত্রী শেখ হাসিনা।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close