নিজস্ব প্রতিবেদক

  ২৪ জুন, ২০২১

উন্নয়ন ধরে রাখার অঙ্গীকার

সাম্প্রদায়িক শক্তি নির্মূল এবং শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের গতিধারা বজায় রাখার অঙ্গীকারের মধ্য দিয়ে মহান স্বাধীনতার নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী গতকাল উদ্যাপিত হয়েছে। করোনার কারণে জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠান না হলেও সীমিত পরিসরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ, আলোচনা সভা, গরিব-অসহায় মানুষের মধ্যে খাবার বিতরণের মধ্য দিয়ে পালন করা হয় দিনটি। সারা দেশে দলীয় ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।

গতকাল বুধবার সকাল ৭টার দিকে রাজধানীর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরের সামনে স্থাপিত জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতির পিতার প্রতিকৃতির বেদিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের পর স্বাধীনতার এই মহান স্থপতির স্মৃতির প্রতি সম্মান প্রদর্শনের অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্থান ত্যাগ করার পর সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। এরপর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় নেতারা ও মন্ত্রিসভার সদস্যরা শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময় দল ও মন্ত্রিসভার সদস্যদের মধ্যে বেগম মতিয়া চৌধুরী, ড. আবদুর রাজ্জাক, জাহাঙ্গীর কবির নানক, শাজাহান খান, মাহবুব-উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, ড. হাছান মাহমুদ, মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আহমদ হোসেন, বি এম মোজাম্মেল, এনামুল হক শামীম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, সুজিত রায় নন্দী, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, আবদুস সোবহান গোলাপ, ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুর, ফরিদুন্নাহার লাইলী, মেহের আফরোজ চুমকি, দেলোয়ার হোসেন, সায়েম খান, আমিরুল আলম মিলন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সকাল থেকেই ধানমন্ডি ৩২ নম্বর এলাকা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে। এ সময় নেতাকর্মীদের ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ ‘শুভ শুভ শুভ দিন, আওয়ামী লীগের জন্মদিন’সহ বিভিন্ন সেøাগান দিতে দেখা যায়। একই সঙ্গে দলে যাতে অনুপ্রবেশকারীরা জায়গা না পায়, সেদিকে নজর দেওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। বিকালে ২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন। দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সূচনা বক্তব্য দেন।

এর আগে ধানমন্ডিতে শেখ ফজলে শামস পরশ ও মাইনুল হোসেন খান নিখিলের নেতৃত্বে যুবলীগ, নাজমা আকতার ও অপু উকিলের নেতৃত্বে যুব মহিলা লীগ, সাফিয়া খাতুন ও মাহমুদা বেগমের নেতৃত্বে মহিলা আওয়ামী লীগ, সমির চন্দ ও উম্মে কুলসুম স্মৃতির নেতৃত্বে কৃষক লীগ, আল নাহিয়ান খান জয় ও লেখক ভট্টাচার্যের নেতৃত্বে ছাত্রলীগ, জাতীয় শ্রমিক লীগ, তাঁতী লীগ বিভিন্ন সহযোগী ও ভ্রাতপ্রতিম সংগঠন বঙ্গবন্ধু প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে। এ ছাড়া যুবলীগ মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ, ছাত্রলীগ মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ, ঢাকা কলেজ শাখা ছাত্রলীগ, তিতুমীর কলেজ শাখা ছাত্রলীগ, ইডেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগ, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নির্বাচন প্রস্তুতি কমিটির পক্ষে আবদুল হাই ও সফিকুল বাহার মজুমদারের নেতৃত্বে ৫ শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা ও স্যালুট প্রদান করেন। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এ ছাড়া বেলা ১১টায় গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদল। এ সময় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, মির্জা আজম এমপি, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী, ইকবাল হোসেন অপু এমপি ও সৈয়দ আবদুল আওয়াল শামীম। এ ছাড়া আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য কর্নেল ফারুক খান বলেন, অপগণতান্ত্রিক ও জঙ্গিবাদ রুখতে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে রাষ্ট্রক্ষমতায় রাখতে আওয়ামী লীগকে ভোট দিতে হবে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close