শাহজাহান সাজুু, নিউইয়র্ক

  ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১

জাতিসংঘ অধিবেশন : প্রধানমন্ত্রী গুরুত্ব দেবেন টিকা ও রোহিঙ্গা ইস্যুতে 

ফাইল ছবি

বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) মধ্যে এবারও বসছে জাতিসংঘ অধিবেশেন। এবার জাতিসংঘের অগ্রাধিকার ইস্যুগুলো বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এ ইস্যুর ওপর যেসব ইভেন্ট আছে বাংলাদেশ তার সব কটিতেই সক্রিয়ভাবে অংশ নেবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

আগামী ২১ থেকে ২৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে এই বিতর্ক। সাধারণ পরিষদের ৭৬তম এই অধিবেশনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বব্যাপী টিকা বৈষম্য দূর করা ও রোহিঙ্গা সংকটসহ ছয় বিষয় বিশেষ গুরুত্ব দেবেন।    

জানা যায়, এবার অধিবেশনের একটি বড় অংশজুড়ে থাকবে কোভিড-১৯ মোকাবিলা এবং পরবর্তী টেকসই অর্থনীতি পুনরুদ্ধার।  

প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সাধারণ বিতর্ক পর্বে বাংলাদেশের পক্ষে বক্তব্য দেবেন। এবারও তিনি বাংলায় বক্তব্য দেবেন। তিনি বাংলাদেশের অভাবনীয় উন্নয়ন অগ্রযাত্রা, আর্থসামাজিক ক্ষেত্রে অর্জন এবং স্বাস্থ্য খাতের সাফল্য সম্পর্কে আলোকপাত করবেন। পাশাপাশি, বিশ্ব শান্তি, নিরাপদ অভিবাসন, করোনাভাইরাসের টিকার ন্যায্যতাভিত্তিক বণ্টন, বৃহৎ পরিসরে করোনাপ্রতিরোধী টিকা উৎপাদনের লক্ষ্যে পেটেন্টসহ মেধাস্বত্ব উন্মুক্তকরণ, জলবায়ু ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা সম্পর্কিত বিষয়গুলো তার বক্তব্যে তুলে ধরবেন।  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘রোহিঙ্গা সংকট : একটি টেকসই সমাধানের বাধ্যবাধকতা’ শীর্ষক একটি উচ্চ পর্যায়ের সাইড ইভেন্টেও অংশ নেবেন। এরই মধ্যে এই অনুষ্ঠান আয়োজনে ওআইসি, এশিয়ান এবং ইউরোপিয়ান দেশগুলোর পক্ষ থেকে সাড়া পাওয়া গেছে। গাম্বিয়া, ইন্দোনেশিয়া, সৌদি আরব, তুরস্ক, যুক্তরাজ্য, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এবং ওআইসি অনুষ্ঠানটির সহআয়োজক। এ সাইড ইভেন্টের মাধ্যমে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বিশ্বকে বাংলাদেশের পক্ষে দাঁড়ানোর আহ্বান জানাবেন প্রধানমন্ত্রী। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেশ কয়েকটি দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে অংশ নেবেন বলে আশা করা যাচ্ছে। মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ, ভিয়েতনামের রাষ্ট্রপতি নগুয়েন জুয়ান ফুক, বার্বাডোজের প্রধানমন্ত্রী মিরা আমর মটলি, ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের সভাপতি চার্লস মাইকেলসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র/সরকারপ্রধানদের সঙ্গে এসব বৈঠক হতে পারে। পাশাপাশি জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গেও দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। এবারও প্রধানমন্ত্রী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের আয়োজনে একটি গোলটেবিল বেঠকে অংশ নেবেন।   

একটি শান্তিপূর্ণ ও মানবিক বিশ্ব প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের প্রচেষ্টা, অভিবাসন, জলবায়ু পরিবর্তন, খাদ্য নিরাপত্তা, মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতকরণ, শান্তিরক্ষা কার্যক্রমসহ বিভিন্ন বিষয়ে নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালন এবং উদীয়মান অর্থনীতির দেশ হিসেবে বাংলাদেশের সাফল্যের ধারাবাহিকতায় জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের এ অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর অংশগ্রহণ বহুপক্ষীয় ফোরামে বাংলাদেশের দৃপ্ত পদচারণাকে আরো সমুন্নত করবে বলেই প্রত্যাশা।

পিডিএসও/এসএমএস

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জাতিসংঘ অধিবেশন,রোহিঙ্গা ইস্যু
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close