মাওলানা মাসউদুল কাদির

  ০৫ মে, ২০২১

নবীজি রোজায় ৪ আমল বেশি করতেন

আজ নাজাতের দ্বিতীয় দিন। জাহান্নাম থেকে মুক্তির এই দশক খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘রমজানের প্রথম ১০ দিন রহমতের, দ্বিতীয় ১০ দিন মাগফেরাত লাভের এবং তৃতীয় ১০ দিন জাহান্নাম থেকে নাজাত প্রাপ্তির।’ (মিশকাত)

সুতরাং জাহান্নাম থেকে নাজাত লাভের আশায় অবারিত পুণ্যের জন্য নাজাতের দশককে পরিপূর্ণ আমলের মধ্যে কাটানো উচিত। আমরা যদি রহমত, মাগফেরাতের পর নাজাতের দশকেও গুনাহ ক্ষমা করাতে না পারি, এর চেয়ে আর বদ আমলের কী আছে? মহাগ্রন্থে অনেক চমৎকারভাবে বিবৃত হয়েছে, আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আর তিনিই (আল্লাহ) তার বান্দাদের তওবা কবুল করেন এবং পাপসমূহ ক্ষমা করে দেন।’ (সুরা আশ-শুরা : আয়াত ১৫)

অন্যত্র আল্লাহ বলেন, ‘যাকে জাহান্নাম থেকে দূরে রাখা হবে এবং জান্নাতে প্রবেশ করানো হবে সে-ই সফল এবং পার্থিব জীবন ছলনাময় ভোগ ছাড়া কিছুই নয়।’ (আল-ইমরান : আয়াত ১৮৫)

আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘আল্লাহতায়ালার শপথ! মুসলমানদের জন্য রমজানের চেয়ে উত্তম কোনো মাস আসেনি এবং মুনাফিকদের জন্য রমজান মাসের চেয়ে অধিক ক্ষতির মাসও আর আসেনি। কেননা মোমিনরা এ মাসে ইবাদতের শক্তি ও পাথেয় সংগ্রহ করেন। আর মুনাফিকরা তাতে মানুষের উদাসীনতা ও দোষত্রুটি অন্বেষণ করে। এ মাস মোমিনের জন্য গনিমত আর মুনাফিকের জন্য ক্ষতির কারণ।’ (মুসনাদে আহমাদ)

নবীজি রোজায় চারটি আমল বেশি বেশি করতেন। নাজাতের দিনগুলোয় আরো বেশি করতেন। ১. কালেমার জিকির, ২. ইস্তেগফার, ৩. জান্নাত চাওয়া, ৪. জাহান্নাম থেকে মুক্তির প্রার্থনা করা।

বান্দা তার আমলের মাধ্যমেই আল্লাহকে খুশি করেন। আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যই বান্দা সর্বোত আমলের মধ্যে নিমজ্জিত থাকেন। বান্দার জিকির, ইস্তেগফার, জান্নাত লাভের প্রার্থনা, জাহান্নাম থেকে মুক্তির আশাবাদ তার চিরন্তন দাবি। মানুষের সাফল্যের চাবিকাঠি তো এসবই। যার আল্লাহ মিলে যায় তার আর কি-ইবা দরকার। সবকিছুর পর দুনিয়ার সবচেয়ে বড় সাফল্য হলো তার আল্লাহর ভালোবাসা লাভ হওয়া।

নাজাতের দশক মূলত এতেকাফের দশক। লাইলাতুল কদর লাভের দশক। এ দশকে বান্দা একেবারেই আল্লাহর জন্য ইবাদত করেন। আবু হুরাইরা (রা.) বলেন, ‘রাসুল (সা.) প্রতি রমজানে ১০ দিন এতেকাফ করতেন, তবে যে বছর তিনি পরলোকগত হন, সে বছর তিনি ২০ দিন এতেকাফে কাটান।’ (বোখারি)

একটি হাদিসে নবীজি শবেকদরের আশায় প্রথম দশক এবং দ্বিতীয় দশক এতেকাফ করেও না পেয়ে শেষ দশক এতেকাফ করেছিলেন। এতেকাফের মাধ্যমে শবেকদর লাভ করা খুবই সহজ। আল্লাহতায়ালা নাজাতের দশকে আমলে কাটানোর তাওফিক দিন। আমিন।

লেখক : সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক
[email protected]

পিডিএসও/হেলাল

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আমল,নবীজি,রোজা,রমজান,নাজাত
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close