১৭ নভেম্বর শুরু তিন দিনের ঢাকা লিট ফেস্ট

প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর ২০১৬, ১৩:৩৬ | আপডেট : ১৫ নভেম্বর ২০১৬, ১৩:৪১

অনলাইন ডেস্ক

বছর ঘুরে আবার আয়োজিত হতে যাচ্ছে শিল্প-সাহিত্যপ্রেমীদের সর্ব বৃহৎ উৎসব ঢাকা লিট ফেস্ট-২০১৬। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের বিশেষ পৃষ্ঠপোষকতায়, বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে আয়োজিত তিনদিনের এই উৎসবে অংশ নিচ্ছেন ২ শতাধিক শিল্পী, সাহিত্যিক, লেখক, গবেষক, সাংবাদিকসহ  আরও অনেকে।
১৮টি দেশ থেকে ৬৬ জন বিদেশি এবং দেড় শতাধিক বাংলাদেশি লেখক, সাহিত্যিক,  গবেষক, সাংবাদিক অংশ নিচ্ছেন। দেশি-বিদেশি অতিথিদের সঙ্গে সরাসরি সাহিত্যসহ সমাজের বিভিন্ন প্রসঙ্গ নিয়ে আলোচনা-পর্যালোচনার সুযোগ থাকছে জনসাধারণের জন্য।
এবারকার লিট ফেস্টের অন্যতম চমক হিসেবে থাকছেন নোবেল বিজয়ী ভারতীয় বংশোদ্ভূত লেখক ভিএস নাইপল। থাকছেন পুলিৎজার জয়ী ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন লেখক বিজয় শেষাদ্রি। আসছেন ভারতীয় খ্যাতনাম সাংবাদিক বারখা দত্ত।
বাংলাদেশের সাহিত্যিকদের মধ্যে অংশ গ্রহণ করবেন কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা, হাবীবুল্লাহ সিরাজী, কামাল চৌধুরী, আসাদ চৌধুরী, ফখরুল আলম, মাশরুর আরেফিনসহ আরও অনেকে।


১৭ থেকে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে এই উৎসব। উৎসবের তিনদিনে ৪৫টিরও বেশি অধিবেশন থাকছে। যেখানে আলোচনা ছাড়াও থাকছে গান, আবৃত্তি, অভিনয়সহ শিল্পকলার নানা আয়োজন। প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন, বইয়ের  মোড়ক উন্মোচন বরাবরের মতোই থাকছে অন্যতম অনুসঙ্গ হিসেবে।
সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাগত বক্তব্যে ঢাকা লিটফেস্টের অন্যতম পরিচালক কাজী আনিস আহমেদ বলেন, ষষ্ঠবারের মতো করা এই আয়োজনের পরিধি অনেক বেড়েছে। এবার ১৮টি দেশের ৬৬ জন প্রতিনিধি অংশ নিচ্ছেন। ১৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় এই উৎসবের উদ্বোধন করবেন নোবেল বিজয়ী সাহিত্যিক ভিএস নাইপল, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।
তিনি আরো উল্লেখ করেন, বিশ্বসাহিত্যে শীর্ষ পুরস্কার নোবেল, পুলিৎজার ও ম্যান বুকারপ্রাপ্ত তিন-তিনজন সাহিত্যিক আসছেন এই উৎসবে। এটিকে লিট ফেস্টের অন্যতম বড় পাওয়া বলেও উল্লেখ করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, বরাবরের মতো অন্য দেশের সাহিত্যের চেয়ে অধিক গুরুত্ব পাবে বাংলা সাহিত্য। এই উৎসবের মূল বিষয় হচ্ছে বাংলাকে বিশ্বে এবং বিশ্বকে বাংলার কাছে তুলে ধরা।
প্রয়াত কথা সাহিত্যিক সৈয়দ শামসুল হককে স্মরণ করে বিশেষ শ্রদ্ধা জানানো হবে এবারকার আয়োজনে। লিট  ফেস্টে তাঁর লেখা উপন্যাস ‘নীল দংশন’ এর একটি অংশ ইংরেজিতে মঞ্চায়িত হবে। থাকছে তার জীবন নিয়ে বিশেষ আলোচনা। এ ছাড়া খ্যাতিমান লেখক ফকরুল আলম অনূদিত মীর মোশাররফ হোসেনের খ্যাতনামা উপন্যাস ‘বিষাদ সিন্ধু’-এর প্রকাশনা উৎসব হবে এই আয়োজনেই।
উৎসবের পরিচালক সাদাফ সায জানান, বাংলাদেশের সাহিত্য, ঐতিহ্য, জগতের কাছে তুলে ধরতেই এই আয়োজন। বিশেষ করে পালা, জারি গান, বেহুলা লক্ষিন্দরের জারিসহ,উৎসবের অন্যতম সহযোগী ব্র্যাকের সংস্কৃতি বিভাগ গ্রাম পর্যায়ে যেসব কাজ করছে সেগুলোও তুলে ধরা হবে।
সাদাফ আরো জানান, কবিতাকে ভীষণ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে লিট ফেস্টে। এ ছাড়া তিন দিনের এই আয়োজনে ৯০টির বেশি অধিবেশন রয়েছে। শুধু শিল্প সাহিত্য নয়, জেনেটিকস সায়েন্স, নিওরো সায়েন্স অ্যান্ড আর্কিটেকচারের মতো সায়েন্টিফিক বিষয় নিয়েও বেশ কয়েকটি অধিবেশন রয়েছে।
তিন দিনের এ উৎসবটি প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে বিভিন্ন আয়োজনে। আয়োজকেরা জানান, দর্শনার্থী ও সাহিত্যপ্রেমী থেকে শুরু করে সকল অঙ্গনের মানুষের জন্য উন্মুক্ত এ আয়োজনে অংশ নিতে করতে হবে নিবন্ধন। যেটি নিশ্চিত করবে অংশগ্রহণকারীর পরিচয়।
ঢাকা লিট ফেস্ট আয়োজিত হচ্ছে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের বিশেষ সহযোগিতায়। এটির টাইটেল স্পন্সর ইংরেজি  দৈনিক ‘ঢাকা ট্রিবিউন’ ও অনলাইন সংবাদপত্র ‘বাংলা ট্রিবিউন’, প্ল্যাটিনাম স্পন্সর ব্র্যাক।