মৃণাল সরকার মিলু, তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ)

  ১৪ জানুয়ারি ২০২১, ১৬:১৯
আপডেট : ১৪ জানুয়ারি ২০২১, ১৬:৩৬

চলনবিলে বোরো ধান লাগানো শুরু

করোনাকালীন সময়ে অধিক খাদ্য শস্য উৎপাদনের লক্ষ্যে খাদ্য শস্য ভাণ্ডার খ্যাত চলনবিলে শীতকে উপেক্ষা করে বোরো আবাদ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে যে সব জমিতে রবি শস্য আবাদ হয়নি সে সব জমিতে পুরোদ্যমে আগাম জাতের বোরো ধান লাগাতে কৃষক ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন ।

কৃষি অধিদপ্তর সুত্রে জানা গেছে, চলনবিলের সিরাজগঞ্জের তাড়াশ, উল্লাপাড়া, রায়গঞ্জ, শাহজাদপুর, পাবনার চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর, নাটোরের গুরুদাসপুর, সিংড়া এবং নওগার আত্রাই উপজেলায় চলতি বছর প্রায় দুই লাখ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের বোরো ধানের আবাদ করার লক্ষমাত্রা নির্ধারণ হয়েছে।

ইতোমধ্যে বিল পাড়ের বিস্তির্ণ বোরো মাঠে জমি তৈরি, বীজতলা থেকে বীজ উত্তোলন এবং ধান লাগানো শুরু করেছেন চলনবিলের কৃষকেরা।

রফিকুল ইসলাম, রহমান , হানিফ খন্দকার সহ একাধিক স্থানীয় কৃষক জানান, বর্তমানে পৌষ মাসের শুরুতেই শীতের তীব্রতা থাকলেও আগাম জাতের বোরো ধান আবাদে এরই মধ্যে চলনবিলের কৃষক ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। মূলত ধানের দাম ভালো পাওয়ায় বোরো আবাদে চলনবিলের কৃষকের আগ্রহ বেড়েছে।

আর এ কারণে  চলতি বছরের মত আবারও চলনবিলের  কৃষক ধানের ভালো দাম পাওয়ার আশা নিয়ে  আগাম জাতের বোরো ধান যেমন ব্রি আর -২৯, কাটারি ভোগ, মিনিকেট, ব্রি আর -২৮, আব্দুল গুটি, ব্রি আর ৩৪-৩৫, ব্রি আর ৫১, ব্রি আর ৪৯ বপন করছেন।

চলনবিল ঘুরে দেখা গেছে রবি শস্য আবাদ হয়নি তেমন জমিতে কৃষকেরা ধান লাগাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন । তবে স্থানীয় কৃষকেরা আরও জানিয়েছেন, বোরো ধান চলনবিলের কৃষকের প্রধান আবাদ হওয়ায় তার একখণ্ড জমিও পতিত রাখতে চান না ।

এ প্রসঙ্গে তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ লুৎফুন্ন নাহার লুনা বলেন, এখন অধিক খাদ্য শস্য উৎপাদনে চলনবিলের কৃষকেরা ফসলি মাঠে ধান লাগাচ্ছেন।

পিডিএসও/ জিজাক

তাড়াশ,ধান,বোরো
আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়