মেয়ে দেখতে এসে নিয়ে গেল টাকা-গহনা

প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:৩১ | আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:৫৮

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি
প্রতিকী ছবি

যশোরের শার্শায় এক পল্লী চিকিৎসকের কলেজ পড়ুয়া মেয়েকে দেখতে এসে টাকা ও সোনার গহনা লুট করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে। রোববার দুপুরে উপজেলার সেতাই গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। 

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সেতাই গ্রামের মৃত আবদুল আজিজের ছেলে পল্লী চিকিৎসক শাহাবুল ইসলেমের বাড়িতে একজন লোক আসেন তার কলেজপড়ুয়া মেয়েকে দেখতে (বিয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে)। ওই ব্যক্তি নিজেকে ‘সেনাবাহিনীর অফিসারের বাবা’ পরিচয় দেন। তিনি শাহাবুলকে বলেন, ‘আপনার মেয়েকে পুত্রবধূ করতে চাই। মেয়েকে দেখেও খুব পছন্দ হয়েছে। পরে তিনি ফোনে কথিত ছেলের মায়ের সঙ্গে কথা বলে ছেলেকে নিয়ে আসতে বলেন।

এদিকে, শাহাবুল মেয়েকে দেখতে সম্ভাব্য নতুন আত্মীয় আসছেন জেনে তাদের জন্য নাস্তার ব্যবস্থা করতে বাগআঁচড়া বাজারে চলে যান। পরিবারের অন্যরা ঘরবাড়ি গোছাতে ব্যস্ত হয়ে ওঠেন। সেই সুযোগে আগন্তুক ঘরের আলমারি থেকে নগদ ৮৪ হাজার হাজার টাকা ও দুটি সোনার চেন, পাঁচ জোড়া সোনার দুল, দুই জোড়া সোনার রুলি, একটি সোনার চুড়ি, তিনটি সোনার আংটি এবং চারটি সোনার নাকফুল হাতিয়ে নেন। এরপর তিনি ‘ছেলের মা আর ছেলে (সম্ভাব্য বর) আসছে, তাদের এগিয়ে নিয়ে আসতে যাচ্ছি’ কথা বলে কৌশলে চম্পট দেন।

ভুক্তভোগী পল্লী চিকিৎসক শাহাবুল ইসলাম বলেন, ডাক্তারীর পাশাপাশি ‘আমি বিকাশ এর এজেন্ট। আমার বাড়িতে সবসময় নগদ টাকা থাকে- এটা গ্রামের সবাই জানে। অবশ্যই এই প্রতারককে এলাকার কেউ ঠিকানা দিয়ে পাঠিয়েছে এবং সে এই চক্রের সাথে যুক্ত আছে। আমি বাগআঁচড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দে একটি অডিযোগ করেছি। পুলিশ তদন্ত করলে সব বেরিয়ে আসবে।’

এ বাপারে বাগআঁচড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দের ইনচার্জ উওম কুমার ঘটনার সতাতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।