খুলনা ব্যুরো

  ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১

খুলনায় অর্থ আত্মসাৎ চক্রের একজন গ্রেপ্তার

মহিলা অধিদপ্তরের অধীনে ‘কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মাদার সহায়তা তহবিল’-এর প্রায় ১২ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে একটি চক্রের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় করা মামলায় মো. বেলাল হোসেন (৪০) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বেলাল নগরীর ৪০/১ রায়পাড়া মেইন রোডের আজম খানের বাড়ির ভাড়াটিয়া এবং বাগেরহাট জেলার শরণখোলা উপজেলার রায়েন্দা বাজারের আবদুল কাদের খানের ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, মহিলা অধিদপ্তরের অধীনে ‘কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মাদার সহায়তা তহবিল’ হতে সাহায্য দেওয়ার কথা বলে আসামিরা নগরীর মুসলমানপাড়াসহ ২৪নং ওয়ার্ডের প্রায় ১৫০ থেকে ২০০ মহিলাকে দিয়ে অ্যাকাউন্ট খোলায়। ২০২০ সালের জুন মাসে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড ময়লাপোতা সন্ধ্যা বাজার শাখায় অ্যাকাউন্ট খুলতে প্রত্যেকের কাছ থেকে ৩০ টাকা এবং ফরম পূরণে আরো ১০০ টাকা করে নেওয়া হয়। প্রতি মাসে প্রতিজন ২ হাজার ৪০০ টাকা করে চার মাসের জন্য প্রত্যেকজনের অ্যাকাউন্টে ৯ হাজার ৬০০ টাকা আসে। ৩০, ৩১ আগস্ট ও ১ সেপ্টেম্বর মিনা বেগম ও বেলাল হোসেন মহিলাদের নিয়ে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করেন। কিন্তু প্রতিজনের নামে আসা ৯ হাজার ৬০০ টাকা থেকে মাত্র ১ হাজার ৮০০ টাকা দেওয়া হয়। কম দেওয়ার কারণ জিজ্ঞাসা করলে তারা জানায় আরো একটি অনুদানের জন্য খরচ লাগবে। সে সময় তাদের ৪০ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে। পরবর্তী সময়ে সবাই তাদের সব টাকা ফেরত চাইলে মিনা তাদের হুমকি দেন। এরই জের ধরে নাজমা বেগমকে কোনো টাকা দেওয়া হয়নি। এ ঘটনায় স্বপ্না, জোৎস্না ও হালিমাকে সাক্ষী করে মুসলমানপাড়া বাঁশতলা মোড়ের বজলুর রহমানের বাড়ির ভাড়াটিয়া মো. আবু সাঈদ খানের মেয়ে মরিয়ম বেগম বাদী হয়ে মিনা বেগম ও মো. বেলাল হোসেনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত দুই থেকে তিনজনের বিরুদ্ধে খুলনা থানায় মামলা করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মোল্লা জুয়েল রানা জানান, বেলাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে আদালতে হাজির করলে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাহীদুল ইসলাম জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। মামলার প্রধান আসামি মিনা বেগম পলাতক রয়েছেন। তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close