মুফতি আহমদ আবদুল্লাহ

  ২৬ নভেম্বর, ২০২১

ফিরে দেখা

বিপ্লবী জননেতা শহীদ তিতুমীর

বঙ্গদেশে ইসলামি শিক্ষা সম্প্রসারণে যারা উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন, তাদের মধ্যে সৈয়দ নিসার আলী তিতুমীর অন্যতম। তিনি ছিলেন উপমহাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের প্রথম পর্যায়ের একজন অগ্রণী সৈনিক। এ দেশে ইসলামের পতাকাবাহী আর এক মর্দে মোমিন হাজি শরীয়তুল্লাহর সমসাময়িক ছিলেন তিতুমীর। পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশ পরগণা জেলায় ১৭৮২ খ্রিস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। সৈয়দ মীর নিসার আলী তিতুমীরের বাবা সৈয়দ হাসান আলী ও মাতা রোকেয়া আবেদা খাতুন। তাদের পূর্বপুরুষ ছিলেন ইসলামের চতুর্থ খলিফা হজরত আলি (রা.)-এর বংশধর। ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে তারা ভারত উপমহাদেশে আগমন করেন এবং ভারতেই স্থায়ীভাবে বসবাস করেন।

তিতুমীর তার শিক্ষক হাজি নিয়ামত উল্লাহর কাছে কোরআন-হাদিস, আরবি, ফার্সি ভাষা সাহিত্য বিষয়ে শিক্ষা লাভ করেন। তিনি হলেন কোরআনের হাফেজ। বিদ্যা অর্জনের পাশাপাশি তার ওস্তাদের কাছ থেকে কুস্তি লড়াই, লাঠি খেলা, তলোয়ার ও ঢাল-সড়কি চালাবার কায়দা শিখে নেন। তিনি অসাধারণ দৈহিক শক্তির অধিকারী ছিলেন। ওই সময় তিনি কলকাতার প্রখ্যাত পালোয়ান আবিদ আলীকে পরাজিত করে সুখ্যাতি অর্জন করেন। অতঃপর তিতুমীর হজব্রত পালনের ইচ্ছায় স্বদেশ ত্যাগ করে মক্কায় গমন করেন এবং মক্কায় অবস্থানকালে মুক্তি সংগ্রামের পথপ্রদর্শক ও উপমহাদেশের মহান সাধক সংস্কারক সৈয়দ আহমদ শহীদ বেহলভীর সঙ্গে তার সাক্ষাৎ ঘটে। তার শিষ্যত্ব গ্রহণ করে তার থেকে দীক্ষা নেন মীর নিসার আলী তিতুমীর। ১৮২৭ খ্রিস্টাব্দে দেশে ফিরে তিতুমীর নারিকেল বাড়িয়ার সন্নিকটে হয়দপুরে আস্তানা স্থাপন করে সমাজ সংস্কারের কাজে আত্মনিয়োগ করেন। দিনে দিনে তার ভক্তকুল বাড়তে থাকে।

সৈয়দ মীর নিসার আলীর আহ্বানে চব্বিশ পরগণা ও নদীয়া জেলাসহ আশপাশের এলাকার নতুন করে জাগরণ সৃষ্টি হয়। তার ডাকে বিভিন্ন জায়গায় অবহেলা ও অনাদরে পড়ে থাকা মসজিদগুলো সংস্কার করা হয়। আবার মসজিদে যথারীতি নামাজের ব্যবস্থা করা হয়। নামাজিতে মসজিদ ভরে যায়। ইসলামি আলোচনা, ওয়াজ-মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। তিতুমীর তার অনুসারীদের ইসলামের বিধান মতো দাড়ি রাখতে আদেশ করেন। তার অনুসারীরা ইসলামি সংস্কৃতি অনুকরণে পোশাক পরিধান করতেন। পোশাকের বিশেষত্ব ও দাড়ির মাধ্যমে সহজেই তার অনুসারীদের চিহ্নিত করা যেত। অজ্ঞাত প্রসূত যেসব অনৈতিক আচরণ মুসলমানদের মাঝে অনুপ্রবেশ করেছিল, তা থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য তিনি অনুসারীদের আহ্বান জানান।

তিতুমীরের এসব কল্যাণময় কাজে বাধা হয়ে দাঁড়াল তার সমকালীন জমিদার কৃষ্ণদেব রায়। কৃষ্ণদেবের অত্যাচারে পরিস্থিতি ভয়াবহ অবনতি ঘটে। জমিদার ঘোষণা দেয়, ‘যারা তিতুমীরের অনুসারী এবং দাড়ি রেখেছে, তাদের আড়াই টাকা হারে বাৎসরিক দাড়ি কর দিতে হবে। কাচা মসজিদ নির্মাণের জন্য ৫০০ টাকা এবং পাকা মসজিদের জন্য এক হাজার টাকা দিতে হবে। প্যাঁচা, পাচু, হরি, কড়ি ইত্যাদি নাম বদল মুসলমান নাম রখলে ৫০ টাকা কর দিতে হবে। জমিদার কৃষ্ণদেব ঘোষণা দিয়ে দমে থাকেনি। জোর-জবরদস্তি করে এসব কর আদায় করতে থাকেন।

তিতুমীরের এ আন্দোলন ছিল মূলত প্রথম দিকে ধর্মীয় ও সামাজিক বিষয়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। এ আন্দোলন কোনো রাজনৈতিক আন্দোলন ছিল না। নদীয়া ও চব্বিশ পরগণার কৃষক দলে দলে তিতুমীরের সংস্কার কর্মসূচির প্রতি সমর্থন জানিয়ে যোগ দেয়। তার নেতৃত্বে এক বড় ধরনের আন্দোলন গড়ে ওঠে। মুসলমান প্রজাদের একতাবদ্ধ এবং তিতুমীরের জনপ্রিয়তায় জমিদাররা আতঙ্কিত হয়ে ওঠে। জমিদাররা তার শক্তি বৃদ্ধির পথ রুদ্ধ করার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে।

বাংলাদেশ জমিদার মহাজনের অধিকাংশই ছিল হিন্দু এবং কৃষক সম্প্রদায়ের অধিকাংশ ছিল মুসলমান। কাজেই কৃষক জনসাধারণের মুক্তি কামনায় এ সংগ্রাম শেষ পর্যন্ত কৃষকদের অর্থনৈতিক সংগ্রামে পরিণত হয়। একদিকে স্বৈরচারী ইংরেজ শাসকদের শোষণ-পীড়ন, অপরদিকে জমিদার-মহাজন ও নীলকরদের অকথ্য অত্যাচার। কাজেই তিতুমীরের এ মুক্তি সংগ্রাম একই সঙ্গে ইংরেজ শাসক, জমিদার মহাজন ও নীলকরদের বিরুদ্ধে আপোষহীন সংগ্রামে পরিণত হয়েছিল। মুসলমানদের সঙ্গে জমিদার মহাজন কর্তৃক অত্যাচারিত নিম্নশ্রেণি হিন্দুরাও যোগ দেন। প্রথম থেকে জমিদাররা তাদের দুষ্ট বুদ্ধি প্রয়োগে এ মহান আন্দোলনকে সাম্প্রদায়িক আখ্যা দিয়ে দুর্বল করার চেষ্টা করে। প্রকৃতপক্ষে এ আন্দোলনের প্রারম্ভে ধর্মীয় সংস্কারমূলক প্রশ্ন জড়িত থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা গণবিদ্রোহে পরিণত হয়।

জমিদার কৃষ্ণদেব খাজনা দেওয়ার জন্য প্রজাদের ১০ দিন সময় দিয়েছিল। কিন্তু ১০ দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও খাজনা না দেওয়ায় জমিদার চারজন বরকন্দাজ পাঠালে তিতুমীরের লোকদের তাড়া খেয়ে তিনজন পালিয়ে যায় এবং একজন ধরা পড়ে। এ অবস্থায় জমিদার ক্ষিপ্ত হয়ে তার লোকজন নিয়ে প্রজাদের বাড়ি লুট করে। একটি মসজিদে আগুন লাগিয়ে দেয়। এর প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ হয়ে তিতুমীর ও প্রজারা থানায় অভিযোগ করলে এর কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। বরং মুসলমান প্রজাদের কাছ থেকে মুচলেকা আদায় করা হয়। এই পক্ষপাতিত্ব ঘটনায় তিতুমীর ও প্রজারা আরো বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে।

এদিকে জমিদাররা তিতুমীর ও তার অনুচরদের দমন করার জন্য একের পর এক মিথ্যা মামলা দায়ের করতে থাকে। তিতুমীর ভাবলেন শান্তিপূর্ণভাবে যেহেতু প্রজাদের স্বার্থ সংরক্ষণ হচ্ছে না, তখন অস্ত্রের সাহায্য নেওয়া ছাড়া উপায় নেই। এ পরিপ্রেক্ষিতে তিনি ১৮৩১ খ্রিস্টাব্দের অক্টোবর মাসে তার শিস্য মুঈজ উদ্দিনের নারিকেল বাড়িয়ার গ্রামের বাড়িতে কর্মক্ষেত্র স্থাপন করেন। তিতুমীর ও তার সহযোগীরা নারিকেল বাড়িয়ায় আত্মরক্ষার জন্য বাঁশের কেল্লা নির্মাণ করেন এবং অস্ত্রশস্ত্র জমা করেন।

আন্দোলন চলাকালে বিশিষ্ট দরবেশ-ফকির মিসকিনসহ তিতুমীরের সঙ্গে একাত্ম হয়ে তার নির্ভরযোগ্য সংগীতে পরিণত হন। তিতুমীরের একনিষ্ঠ অনুসারীদের মধ্যে নারিকেল বাড়িয়ার ময়েজউদ্দিন, যশোর থেকে আগত প্রখ্যাত দরবেশ মুসিরত শাহ, শেখ উমীর, করীম সর্দার, রমজান, ওয়াকিল আহমদ, আবদুল্লাহ, লাল মুহাম্মদ আলাউদ্দিন ম-ল, মুহাম্মদ মাসুফ, কারিম শাহ ও তার পুত্র মসিউল্লাহ ও আবদুর রহিম এবং তিতুমীরের ভাগ্নে গোলাম মাসুম অকুতোভয় সংগ্রামী ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।

অনেক ছোট-বড় সংঘর্ষের একপর্যায়ে তিতুমীর ঘোষণা করেন যে, কোম্পানির রাজত্বের অবসান হয়েছে। তিনি নিজেকে দেশের শাসক হিসেবে ঘোষণা করেন এবং জমিদারদের কাছ থেকে কর দাবি করেন। এরূপ ঘোষণায় কেবল জমিদাররাই নয়, নীলকুঠির সাহেবরাও সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে। কারণ নীলকুঠির সাহেবরাও কুঠির নামে প্রায় সবার ছোট-বড় জামিনদারির মালিক হয়ে বসেছিল। তিতুমীরের সহচর গোলাম মাসুম প্রধান সেনাপতি নিযুক্ত হন। এই সময় তিতুমীরের সঙ্গে হিন্দু জমিদার এবং ইংরেজদের যে সংঘর্ষ বাঁধে তাতে তিতুমীরের বাহিনী জয়ী হয়। ইংরেজরা পরাজয় বরণ করায় তৎকালীন গভর্নর জেনারেল লর্ড বেন্টিক চিন্তায় পড়েন এবং শেষ পর্যন্ত নদীয়ার কালেক্টরকে কালবিলম্ব না করে তিতুমীর ও তার বাহিনীকে পর্যুদস্ত করার নির্দেশ দেন। এবারও ইংরেজ বাহিনী পরাজিত হলে লর্ড বেন্টিক কর্নেল স্টুয়ার্ডের নেতৃত্বে ১৮৩১ সালের ১৯ নভেম্বর তিতুমীরের কেল্লা আক্রমণ করে। বিদ্রোহীদের ইট, বেল ও তীর বর্ষণে বহু সেনা হতাহত হয়। এবার কর্নেল কামান দাগাবার হুকুম দেয়। অনবরত গোলার আঘাতে বাঁশের কেল্লা ধসে পড়ে। একটি গোলার আঘাতে বাঁশের কেল্লার অধিনায়ক এবং কৃষক বিদ্রোহের দুঃসাহসিক বীর তিতুমীর শহীদ হন।

তিতুমীরের প্রজা আন্দোলন ছিল একটি গণবিপ্লব। কৃষক ও তাঁতিরা এই আন্দোলনে যোগ দিয়ে জমিদার ও নীলকরদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছিল। শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে তার সংগ্রাম ব্যর্থ হলেও পরবর্তী সময়ে তা স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রেরণা জুগিয়েছিল। এ কথা সত্য যে, তিতুমীরের শাহাদত বরণের রক্ত পিচ্ছিল পথ বেয়েই পরবর্তী সময়ে এ দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের পথ সুপ্রশস্ত হয়েছে।

লেখক : প্রাবন্ধিক ও কলামিস্ট

[email protected]

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close