প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১

উত্তর প্রদেশে ডেঙ্গুতে শতাধিক মৃত্যু

ভারতের উত্তরপ্রদেশে একের পর এক জেলায় ছড়িয়ে পড়ছে ডেঙ্গু। পরিস্থিতি সামাল দিতে নাজেহাল দশা রাজ্যের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারের। ফিরোজাবাদ জেলার অবস্থা সবচেয়ে করুণ। সোমবার পর্যন্ত সরকারি হিসাবে, শুধু ফিরোজাবাদেই মৃত্যু হয়েছে ১১৪ জনের। তার মধ্যে ৮৮টি শিশু।

সরকারি হাসপাতালগুলোতে দেখা গেছে শয্যা সংকট। বিরোধীদের অভিযোগ, সরকারি হাসপাতালগুলোতে উপযুক্ত পরিকাঠামো নেই। কার্যত বিনা চিকিৎসায় প্রাণ হারাচ্ছে রোগীরা।

ফিরোজাবাদ জেলা হাসপাতালে মঙ্গলবার সকাল ৮টা নাগাদ নিয়ে যাওয়া হয় ডেঙ্গু আক্রান্ত পাঁচ বছরের সাওনা গুপ্তকে। তাকে ভর্তি করানোর জন্য হাসপাতালের কর্মী থেকে চিকিৎসক সবার কার্যত হাতে-পায়ে ধরেছেন শিশুটির স্বজনরা। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তখন ওই পাঁচ বছরের মেয়েটির প্রবল জ্বর। প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা দৌড়াদৌড়ি, আবেদন-নিবেদনের পর দুপুরে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় সাওনাকে। কিন্তু ততক্ষণে যা হওয়ার হয়ে গেছে।

হাসপাতালে ভর্তির কিছুক্ষণ পরই মারা যায় শিশুটি। তার ভাই বলেন, ‘সময়মতো যদি চিকিৎসা হতো, বোনকে বাঁচানো যেত। হাসপাতালের কর্মীদের ওর অবস্থার কথা বারবার বলেছিলাম। কিন্তু কেউ আমাদের কথা কানে তুলল না।’

কাপড়ে ঢাকা সন্তানের দেহের পাশে বসে অঝোরে কেঁদে যাচ্ছিলেন শিশুটির মা। তাকে সান্ত্বনা দিচ্ছিলেন এক নারী। তিনি বলেন, ‘ডাক্তাররা কিছুই করল না। ওরা শুধু টাকা চায়।’ শিশুটির স্বজনরা বলছেন, ফিরোজাবাদ হাসপাতালের এই ছবি রাজ্যের অন্য হাসপাতালগুলোতেও। শয্যার অভাবে ভর্তি হতে পারছে না অনেকেই। অল্প বয়সিদের কোলে নিয়ে হাসপাতালের দরজায় দরজায় ঘুরছেন তাদের স্বজনরা।

ফিরোজাবাদ জেলার প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ডেঙ্গু মোকাবিলায় তারা চেষ্টার ত্রুটি রাখছেন না। ৯৫টি স্বাস্থ্য শিবির করা হয়েছে।

সরকারি হাসপাতালে শয্যার অভাব, সেই সুযোগে বেসরকারি হাসপাতালগুলো মোটা অঙ্কের অর্থ চাইছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close