reporterঅনলাইন ডেস্ক
  ১৪ অক্টোবর, ২০২১

মিতু হত্যা : নারাজি আবেদনে বলা হয়, ‘বাবুল ষড়যন্ত্রের শিকার’

সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় পিবিআইয়ের দেওয়া চূড়ান্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন করা হয়েছে। 

এ হত্যা মামলার আসামি এহতেশামুল হক ওরফে ভোলার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ।

বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মেহনাজ রহমানের আদালতে নারাজি আবেদনটি করেন বাবুলের আইনজীবী শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী। নারাজি আবেদনে বলা হয়, ‘বাবুল ষড়যন্ত্রের শিকার। তিনি এ মামলার বাদী ছিলেন। তাকে আসামি করতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয়।’

একই সঙ্গে বর্তমানে কুমিল্লা কারাগারে থাকা বাবুল আক্তারের উপস্থিতিতে নারাজি আবেদনের শুনানির জন্য আরেকটি আবেদন করা হয় একই আদালতে। আদালত ২১ অক্টোবর বাবুল আক্তারের উপস্থিতিতে শুনানির দিন ধার্য করেন।

২০১৬ সালের ৫ জুন ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে গিয়ে নগরের জিইসি মোড় এলাকায় খুন হন মাহমুদা খানম। এ ঘটনায় তার স্বামী বাবুল আক্তার বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে পিবিআই এ বছরের ১২ মে এ মামলায় চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়। ওই দিন মাহমুদার বাবা মোশাররফ হোসেন বাদী হয়ে বাবুলসহ আটজনকে আসামি করে পাঁচলাইশ থানায় মামলা করেন। বর্তমানে পিবিআই মামলাটি তদন্ত করছে।

মিতু হত্যা মামলার আসামি এহতেশামুল হক ওরফে ভোলা উচ্চ আদালতের নির্দেশে আত্মসমর্পণ করার জন্য সময়ের আবেদন করেন। বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালতে আবেদনটি করা হয়। আদালত সময়ের আবেদন নামঞ্জুর করে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর আসামি এহতেশামুল মিতুর বাবার করা মামলায় উচ্চ আদালত থেকে চার সপ্তাহের অন্তর্বর্তী জামিন পান। মেয়াদ শেষ হওয়ায় মহানগর দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করে গত সোমবার জামিনের আবেদন করেন তিনি। আদালত নিম্ন আদালত থেকে নথি তলব করে বৃহস্পতিবার শুনানির দিন ধার্য করেন।

চট্টগ্রাম মহানগর সরকারি কৌঁসুলি মোহাম্মদ ফখরুদ্দিন চৌধুরী বলেন, আসামি এহতেশামুল আদালতে আত্মসমর্পণ না করে সময়ের জন্য আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে বিরোধিতা করা হলে আদালত সময়ের আবেদন নামঞ্জুর করে আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

২০১৯ সালের ১৯ ডিসেম্বর জামিনে মুক্তি পান এহতেশামুল। এর আগে ২০১৬ সালের ২৭ জুন অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার হন তিনি।
মামলাটির তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ১২ জুলাই আদালত এহতেশামুলসহ তিন আসামির দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দেন। অন্য দুজন হলেন কামরুল শিকদার ওরফে মুছা ও মো. কালু।
 

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
মিতু হত্যা,বাবুল আক্তার,নারাজি
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close