সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি

  ২২ জানুয়ারি, ২০২৩

বাঁচতে চায় ফারুক 

নাটোরের সিংড়ায় থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে জীবননাশের মুখে কিশোর ফারুক হোসেন (১৮)। সে সিংড়া পৌরসভার বালুভরা মহল্লার মৃত জাহিদুল ইসলামের পুত্র। জোড়মল্লিকা-নিংগইন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জেএসসি পাশ করার পরে আর পড়াশোনা করতে পারেনি ফারুক। ২০১৯ সালে চিকিৎসকের পরামর্শে পরিক্ষা-নিরীক্ষা করে ধরা পড়ে জটিল রোগ থ্যালাসেমিয়া।

চিকিৎসকের পরামর্শ মতো প্রতিমাসে তার শরীরে ২ থেকে ৪ ব্যাগ করে “ও” পজেটিভ রক্ত দেওয়া হচ্ছে। দুর্ঘটনায় নিহত বাবা আর গৃহিণী মায়ের একমাত্র অবলম্বন ফারুক। প্রতিমাসে প্রায় ১০ হাজার টাকা চিকিৎসা খরচ জোগাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে পরিবারের। ছেলের এমন অবস্থায় মা ফিরোজা বেগম দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

হঠাৎ ২০১৯ সালে ধরা পরে মরণব্যাধি থ্যালাসেমিয়। চিকিৎসার খরচ জোগাতে বন্ধ হয় লেখাপড়া। এরই মধ্যে গত বছর এক দুর্ঘটনায় বাবা জাহিদুল ইসলামও মারা যান। মা করেন অন্যের বাসা-বাড়িতে কাজ। হঠাৎ বোনের সংসার ভেঙ্গে যায়, তার ঠাঁই এখন ফারুকের জোড়াতালির সংসারে। চিকিৎসা-পরিবারের খরচ জোগাতে এনজিও থেকে ৮০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে একটি অটোরিকশা কিনে ফারুক। প্রতারক চক্র ফাঁদে ফেলে সেটিও নিয়ে যায় গত মাসে। একদিকে মাসে প্রায় ১০ হাজার টাকা চিকিৎসা ব্যয়, সংসারের খরচ অপরদিকে এনজিও’র টাকা পরিশোধ করার চিন্তায় কুঁড়ে কুঁড়ে খাচ্ছে ফারুক ও তার মাকে।

ফারুকের মা ফিরোজা বেগম জানান, অনেক চিকিৎসা করেছি। এ পর্যন্ত ছেলের চিকিৎসার জন্য প্রায় ২ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। ছেলের কষ্ট আর সহ্য হয় না। সরকার ও বিত্তবানরা এগিয়ে আসলে ছেলেকে বাঁচাতে পারি। সাহায্য পাঠানোর জন্য ০১৩১৬২৬৭৮২৭ (নগদ), সোনালী ব্যাংক সিংড়া শাখার হিসাব নং ৪৯১২২০১০২৭৫৮৪।

পিডিএস/মীর

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
সিংড়া,থ্যালাসেমিয়া,ফারুক হোসেন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close