প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

  ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১

অশ্রু-নীরবতায় স্মরণ

চোখে অশ্রু-হাতে ফুল, নিস্তব্ধ নিরবতায় দিনটি কাটালেন যুক্তরাষ্ট্রের স্বজনহারারা। ২০০১ সালের এগারোই সেপ্টেম্বরের হামলা, যা নাইন/ইলেভেন নামে পরিচিত, সেই ভয়ঙ্কর দিনটির ২০তম বার্ষিকী পালিত হলো যুক্তরাষ্ট্রে। নানান শোক-অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মার্কিনিরা স্মরণ করলেন ওই হামলায় হারানো তাদের প্রিয়জনদের। দিনটিতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনসহ তার পূর্বসূরিরা। শোকবার্তায় সংহতি জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। খবর বিবিসি ও সিএনএনের।

২০ বছর আগের ওইদিনে ছিনতাই করা চারটি যাত্রীবাহী বিমান দিয়ে আল-কায়দার চালানো এই আক্রমণে নিউ ইয়র্কের বিশ্ববাণিজ্য কেন্দ্রের টুইন টাওয়ার এবং ওয়াশিংটনের পেন্টাগন আক্রান্ত হয়। আরেকটি বিমান কোথাও আঘাত হানার আগেই বিধ্বস্ত হয়। ভয়াবহ এই হামলায় নিহত হন প্রায় তিন হাজার লোক ।

এই ঘটনা সারা বিশ্বকে বদলে দিয়েছে। এর সুদূরপ্রসারী প্রভাব পড়েছে বিশ্বের পরবর্তীকালের অনেক ঘটনাপ্রবাহে, নিরাপত্তা পরিস্থিতিতে এবং বিশ্বব্যাপী সাধারণ মানুষের জীবনেও। নাইন/ইলেভেনের পরপরই আল-কায়দা নেতা ওসামা বিন লাদেনের আশ্রয়দাতা তালেবান-শাসনাধীন আফগানিস্তানে আক্রমণ চালায় যুক্তরাষ্ট্র এবং তালেবান ক্ষমতাচ্যুত হয়। এর ২০ বছর পর এবছরেই যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তানে তাদের যুদ্ধের সমাপ্তি ঘোষণা করে এবং ক্ষমতায় ফিরে আসে তালেবান।

দিনটি উপলক্ষে শনিবার সকালে আয়োজিত এক স্মারক অনুষ্ঠানে নিউ ইয়র্ক শহরের স্মৃতিসৌধে নিহতদের স্বজনরা এক এক করে তাদের প্রিয়জনের নাম উচ্চারণ করেন। এসময় অনেককে নিরবে দাঁড়িয়ে কাঁদতে দেখা যায়।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এই অনুষ্ঠানে যোগ দেন। তার সঙ্গে ছিলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও বিল ক্লিনটন।

অনুষ্ঠানটি শুরু হয় স্থানীয় সময় সকালে। মোট ছয়টি মুহূর্তে পালন করা হয় নিরবতা - ২০ বছর আগে ঠিক যে সময়টায় ছিনতাই করা বিমান দিয়ে টাওয়ার দুটিতে আঘাত হানা হয়েছিল, যখন টাওয়ারগুলো ধসে পড়েছিল, আরও রয়েছে পেন্টাগনে আঘাত হানার মুহূর্ত, এবং চতুর্থ বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার মুহূর্তগুলো।

প্রথম নিরবতা পালন করা হয় ৮টা ৪৬ মিনিটে, ঠিক যে সময়ে উত্তর টাওয়ারে প্রথম হামলাটি চালানো হয়েছিল। অনুষ্ঠানে কয়েক হাজার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। দিনটি উপলক্ষে দেয়া এক বার্তায় প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন নিহতদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। তিনি নিউইয়র্ক, পেনসিলভেনিয়া এবং ওয়াশিংটন- এই তিনটি স্থানে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেন। তিনি বলেন, ‘কতো সময় পার হয়েছে সেটা কোনো বিষয় নয়, এই স্মরণ অনুষ্ঠান সবকিছু ফিরিয়ে আনে যেন মনে হয় এই খবরটা আমি মাত্র কয়েক সেকেন্ড আগে পেয়েছি।’

সাবেক প্রেসিডেন্টরাও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেন। যার আমলে এই হামলা চালানো হয়েছিল সেই প্রেসিডেন্ট জর্জ ডাব্লিউ বুশ পেনসিলভেনিয়ায় এক অনুষ্ঠানে বলেন, সেসময় তারা যে অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে গেছেন সেটা বর্ণনা করা কঠিন। যুক্তরাষ্ট্রের বাইরেও আজ নাইন/ইলেভেনের ২০তম বার্ষিকী পালিত হয়েছে। জাতিসংঘের মহাসচিব এন্টোনিও গুতেরেস, ব্রিটেনের রানি এলিজাবেথ এবং ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রধান উরসুল ফন ডার লাইন এ উপলক্ষে বাণী দিয়েছেন। ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ টুইট করে বলেছেন, ‘আমরা কখনও ভুলবো না। আমরা সবসময় স্বাধীনতার জন্য লড়াই করবো।’

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেছেন, ‘১১ সেপ্টেম্বর আমাদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছে যে স্বাধীনতা সবসময়ই নাজুক।’ আমেরিকার জন্য এক কঠিন সময়ে এ অনুষ্ঠান হলো। নাইন/ইলেভেনের হামলার সূত্র ধরেই আফগানিস্তানে আশ্রয় পাওয়া আল-কায়দার ওপর আক্রমণ চালায় যুক্তরাষ্ট্র - যাতে ক্ষমতাচ্যুত হয় তৎকালীন তালেবান শাসকগোষ্ঠী। কিন্তু তার ২০ বছর পর মার্কিন বাহিনী এ বছরই আফগানিস্তান ত্যাগ করেছে, আর তালেবান আবার ক্ষমতা দখল করেছে। এসব ঘটনা প্রবাহের কারণে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নীতি ও আফগানিস্তান মার্কিন সেনা প্রত্যাহার - কড়া সমালোচনার শিকার হয়েছে।

সেদিন যা ঘটেছিল : দিনটি ছিল ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার। ২০ বছর আগের ওই তারিখে যুক্তরাষ্ট্রে চারটি যাত্রীবাহী জেট বিমান ছিনতাই করে সন্ত্রাসীরা সেগুলো দিয়ে আঘাত হানে নিউইয়র্কের দুটি আকাশচুম্বী ভবনে। ছিনতাইকারীরা ছোট ছোট দলে পূর্ব আমেরিকার আকাশপথ দিয়ে উড়া চারটি বিমান একই সঙ্গে ছিনতাই করে। তারপর বিমানগুলো তারা ব্যবহার করে নিউইয়র্ক আর ওয়াশিংটনের গুরুত্বপূর্ণ ভবনে আঘাত হানার জন্য বিশাল ও নিয়ন্ত্রিত ক্ষেপণাস্ত্র হিসেবে। প্রথম বিমানটি আঘাত হানে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের সদর দপ্তর টুইন টাওয়ারের নর্থ টাওয়ারে আমেরিকার পূর্বাঞ্চলীয় সময় সকাল ৮টা ৪৬ মিনিটে। দ্বিতীয় বিমানটি সাউথ টাওয়ারে বিধ্বস্ত করা হয় অল্পক্ষণ পর, সকাল ৯টা ৩ মিনিটে। দুটি ভবনেই আগুন ধরে যায়। ভবন দুটির উপরতলায় মানুষজন আটকা পড়ে। শহরের আকাশে ছড়িয়ে পড়ে ধোঁয়ার কু-লি। দুটি টাওয়ার ভবনই ছিল ১১০ তলা। মাত্র দুই ঘণ্টার মধ্যে দুটি ভবনই বিশাল ধুলার ঝড় তুলে মাটিতে ভেঙে গুঁড়িয়ে পড়ে। তৃতীয় বিমানটি পেন্টাগনের সদর দপ্তরের পশ্চিম অংশে আঘাত হানে স্থানীয় সময় সকাল ৯টা ৩৭ মিনিটে। রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসির উপকণ্ঠে ছিল আমেরিকান প্রতিরক্ষা বিভাগের বিশাল এই সদর দপ্তর পেন্টাগন ভবন। এরপর সকাল ১০টা ৩ মিনিটে চতুর্থ বিমানটি আছড়ে পড়ে পেনসিলভানিয়ার এক মাঠে। ছিনতাই হওয়া চতুর্থ বিমানের যাত্রীরা ছিনতাইকারীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর পর সেটি পেনসিলভানিয়ায় বিধ্বস্ত হয়।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close