খুলনা ব্যুরো

  ১০ অক্টোবর, ২০২১

গাজীরহাটের নৌকাহাট ধরে রেখেছে ঐতিহ্য

নড়াইল সীমান্তে খুলনার দিঘলিয়া উপজেলার নবগঙ্গা নদীর পাড়ে গাজীরহাট ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাট শত বছর ধরে ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গাজীরহাটের ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাট এ অঞ্চলের শত বছরের ঐতিহ্য। সেখানে একসময় ছোট- বড় বিভিন্ন আকারের লঞ্চের বডি তৈরি হতো। গাজীরহাট ছিল লঞ্চ, স্টিমার ঘাটের জন্য প্রসিদ্ধ। বড় বড় একতলা ও দোতলা লঞ্চ ও স্টিমার ওই সময় খুলনা-দৌলতপুর-গাজীরহাট-বড়দিয়া রুটে চলাচল করত, যা বরিশাল-চাঁদপুর-ঢাকার মধ্যে নৌপথে যোগাযোগের সেতুবন্ধ রচনা করত। কালের বিবর্তনে এসব নৌরুট হারিয়ে গেছে।

এত কিছুর পরও নৌকা তৈরি ও কেনাবেচার হাটটিকে ধরে রাখতে কয়েকজনের ভূমিকা রয়েছে বলে জানা গেছে। শত শত নৌকা এ হাটে বেচাকেনা হয়। প্রতি বুধবারে হাট বসে। শুধু খুলনা ও নড়াইল নয়। বাগেরহাট, ঝিনাইদহ, গোপালগঞ্জ, এমনকি পদ্মা পারের মানুষও এ হাটে আসেন নৌকা কিনতে। প্রতিটি ডিঙ্গি নৌকা ৫ থেকে ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়।

নৌকা বিক্রেতারা জানান, কৃষিপণ্য পরিবহন, মাছ ধরা, শাপলা তোলা ও যাতায়াতের কাজে এ নৌকা বেশি ব্যবহৃত হয়। এসব নৌকা তৈরিতে পুয়াকাঠ ব্যবহৃত হয়। নোনা পোকা ও পোকামাকড়ের ক্ষতি থেকে নৌকাকে রক্ষা করতে আলকাতরার মোটা প্রলেপ দিতে হয়।

নৌকাহাটের একজন সফল ব্যবসায়ী গোলাম কিবরিয়ার সঙ্গে এ প্রতিবেদকের কথা হয়। তিনি জানান, তিনি ২৫-৩০ বছর ধরে কৃষিকাজের পাশাপাশি নৌকার ব্যবসা করেন। এ হাটে তার মতো ১৫ ব্যবসায়ী রয়েছেন। তারা এসব নৌকা এলাকার রামভিটা থেকে কিনে আনেন। সেখানকার লোকজন নৌকা তৈরি করেন। এসব নৌকা এলাকার বামনডাঙ্গা, গাজীরহাট, বুড়িখালী, বিষ্ণুপুর, সিলুমপুর, বারাসাত, মাইচপাড়া প্রভৃতি এলাকার ব্যবসায়ীরা কিনে নিয়ে যায়। আষাঢ় থেকে অগ্রহায়ণ মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত নৌকা ব্যবসার মৌসুম। এসব নৌকায় সর্বোচ্চ আটজন লোক চড়তে পারেন।

অন্য নৌকা বিক্রেতা মনজ কুমার জানান, নৌকা কারিগর তিনি নিজেই। তিনি দুটি নৌকা নিয়ে হাটে এসেছেন। একটি নৌকা ৫ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন।

তিনি বলেন, যারা নৌকা কিনে নিয়ে যান, তারা বাড়ি গিয়ে বাঁশের চটা অথবা কাঠের তক্তা দিয়ে চালি তৈরি করে নৌকার মধ্যে বসিয়ে নেন। একটি নৌকা হাটে ৫ থেকে ৯ হাজার টাকা বিক্রি হয়ে থাকে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এ পেশার প্রসার ঘটানো সম্ভব হবে বলে ব্যবসায়ীরা জানান।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close