১৪৪ ধারা জারি

ফেসবুক পোস্টকে ঘিরে রণক্ষেত্র বেঙ্গালুরু, নিহত ৩

আহত ৬০ পুলিশকর্মী, গ্রেফতার ১১০

প্রকাশ : ১২ আগস্ট ২০২০, ১১:২৮ | আপডেট : ১২ আগস্ট ২০২০, ১১:৫৪

কলকাতা প্রতিনিধি
থানায় আগুন ধরিয়ে দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা

সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট ঘিরে রণক্ষেত্র বেঙ্গালুরু। সংঘর্ষে এখনও পর্যন্ত ৩ ব্যক্তির মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে। আহত হয়েছেন প্রায় ৬০ পুলিশকর্মী। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত গ্রেফতার হয়েছে ১১০ জন।

সংঘর্ষের সূত্রপাত কংগ্রেস বিধায়ক শ্রীনিবাস মূর্তির ভাগ্নের একটি সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট ঘিরে। ফেসবুকে বিতর্কিত পোস্ট করেন নেতার ভাগ্নে। তারপরই পরিস্থিতি উত্তেজিত হয়ে পড়ে। রাতে মূর্তির বাসভবনের সামনে বিক্ষোভ শুরু হয়। বাড়ি লক্ষ্য করে চলে পাথরবৃষ্টি। ২-৩টি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। এরপর, ডিজে হাল্লি থানায় গিয়ে ভাঙচুর চালায় হামলাকারীরা। যে সময় এই ঘটনাটা ঘটে সে সময় বিধায়ক বাড়িতে ছিলেন না। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে ডিজে হাল্লি ও কেজি হাল্লি থানার পুলিশ।

অভিযোগ, পুলিশকে দেখামাত্রই বিক্ষোভকারীরা তাদের দিকে তেড়ে যান। পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাথর ছুড়তে থাকেন বিক্ষোভকারীরা। অভিযোগ, থানায় গিয়েও হামলা চালান বিক্ষোভকারীরা। পুলিশ কর্মীদের মারধর, এমনকি গাড়িতেও আগুন ধরিয়ে দেন তারা।

এরপর বিশাল পুলিশবাহিনী ওই এলাকায় পৌঁছয়। দফায় দফায় পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়। তাদের ছত্রভঙ্গ করতে প্রথমে লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাস ছোড়া হয়। তাতেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় গুলি চালায় পুলিশ। তাতেই মৃত্যু হয় ৩ জনের। সংঘর্ষ থামাতে গেলে অতিরিক্ত কমিশনারসহ ৬০ জন পুলিশকর্মী আহত হয়েছেন। কর্নাটকের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বাসবরাজ বোমাই বলেছেন, ঘটনার তদন্ত করা হবে। হিংসা ও ভাঙচুর বরদাস্ত করা হবে না।

বেঙ্গালুরুর পুলিশ কমিশনার কমল পন্ত জানিয়েছেন, পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে। এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। পুলিশ জনিয়েছে, বিধায়কের ভাইপোকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। বিধায়ক শ্রীনিবাস মূর্তি এলাকায় শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছেন।

পিডিএসও/হেলাল