ধর্ষণ ও নির্যাতনে জড়িতদের শাস্তি দাবি কুয়েত প্রবাসীর

প্রকাশ : ০৭ অক্টোবর ২০২০, ০৮:০৬ | আপডেট : ০৭ অক্টোবর ২০২০, ০৯:০৩

আবু বক্কর সিদ্দিক পাভেল, কুয়েত থেকে

কুয়েত প্রবাসীরা বাংলাদেশে নারী ও শিশু ধর্ষণ-নির্যাতনের সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

প্রবাসীরা প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, মা, মেয়ে, বোন ও স্ত্রীসহ প্রিয়জনের মুখে হাসি ফোটাতে সুখের আসায় হাজার হাজার মাইল দূরে সকাল-সন্ধ্যা হাড়ভাঙা পরিশ্রম করি। ক্লান্ত শরীরের বিশ্রামের ফাঁকে অবসরে যখন টিভি, পত্রিকা ও সামাজিক মাধ্যমে নারী-শিশু নির্যাতন, ধর্ষণ ও খুন চোখে পড়ে, তখনই বুকটা কেপে উঠে—আমার পরিবার ও প্রিয়জন কেমন আছে। দেশের এমন পরিস্থিতিতে আমরা উদ্বিগ্ন ও উৎকণ্ঠার মধ্যে আছি। 

কুয়েত প্রবাসী হারুন মোল্লা বলেন, আমার দু:খ-বেদনার কথা যদি বলি, আজ প্রবাসীরা কি দেখছেন? নারীর প্রতি সহিংসতামূলক আচরণ। অসংখ্য ধর্ষণ। যতক্ষণ পর্যন্ত না সমস্যার মূলে প্রবেশ করা হবে, এই ধরনের অপরাধের প্রশ্রয়দাতাদের বিচারের আওতায় আনা হবে—ততক্ষণ পর্যন্ত ধর্ষণ, নির্যাতন ও খুন কমবে না।

তিনি আরও বলেন, এভাবে চলতে থাকলে অপরাধ বাড়তে বাড়তে চূড়ান্ত পর্যায়ে চলে যাবে। এরা হায়েনার চেয়ে ভয়ংকর হয়ে উঠবে। তখন আর কিছুই করার থাকবে না। রাজনৈতিক পরিচয়ে নয়, একজন ধর্ষক হিসেবে ফাঁসি দিলে সমস্যার সমাধান হবে। পাশাপাশি ধর্মীয় শিক্ষার দিকেও দৃষ্টি দিতে হবে।

ফারুক মিয়া বলেন, পৃথিবীজুড়ে প্রবাসী বাংলাদেশি। যে যেখানেই থাকুক না কেন, প্রতিটা মুহূর্ত বাংলাদেশের সুখ-শান্তি, সমৃদ্ধি, জানমালের নিরাপত্তা, স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলার স্বপ্ন দেখেন। কিন্তু আফসোস! বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে নুনের চেয়ে খুন সস্তা হয়ে গিয়েছে। একের পর এক ধর্ষণ চলছে। নারীদের ইজ্জত আবরু আজ ভুলুণ্ঠিত। বাঙালি জাতি হিসেবে আমরা খুবই লজ্জিত।

মোহাম্মদ সরুজ বলেন, সারা দেশে প্রতিটা দিন যেভাবে ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে, আমরা প্রবাসীরা আতংকিত। মা-বোন-স্ত্রী-সন্তানের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন। তাই আমরা প্রতিটা ধর্ষণ এবং অপরাধের সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানাই।

পিডিএসও/হেলাল