ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি

  ০৮ মে, ২০২২

ধামরাইয়ে বিএনপির কমিটিকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, আহত ২০

ছবি : প্রতিদিনের সংবাদ

ঢাকার ধামরাইয়ে পৌর বিএনপির কমিটিকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে প্রায় ২০ জন আহত হয়েছেন।

রবিবার (৮ মে) দুপুর ২টার দিকে ধামরাই পৌরসভার আইঙ্গগনের সীমা সিনেমা হলের সামনে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এই সময় ধামরাই উপজেলার ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. সোহেল গুরুতর আহত হন। পরে আহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয় নেতা-কর্মী সূত্রে জানা যায়, সকালে বিএনপির পৌর কমিটির সম্মেলনে নেতা-কর্মীরা উপস্থিত হলে ঢাকা জেলা বিএনপির যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াসিন ফেরদৌস মুরাদের কর্মীদের ভিতরে ঢুকতে না দিলে শুরু হয় দুই দলের মধ্যে সংঘর্ষ।

নেতা-কর্মীরা আরও বলেন, পৌর বিএনপির আহ্বায়ক দেওয়ান নাজিম উদ্দিন (মঞ্জু) এর সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটি (ঢাকা বিভাগের) সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও বিএনপি ঢাকা বিভাগের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. বেনজির আহম্মেদ টিটু, প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবু আশফাক, উদ্ধোধক হিসাবে ছিলেন ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ডা. দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন বাবু, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও ধামরাই উপজেলা বিএনপির সভাপতি তমিজ উদ্দিন, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও কেরানীগঞ্জ দক্ষিণ থানা বিএনপির সভাপতি এ্যাডভোকেট নিপুন রায় চৌধুরী। এই সময় দেওয়ান নাজিম উদ্দিন মঞ্জুর সাথে তমিজ উদ্দিনের সাথে কথা কাটা কাটি হয়। পরে নাজিম উদ্দিন মঞ্জু সম্মেলন থেকে বের হয়ে যান। এই নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। পরে সাবেক সংসদ সদস্য সুলতানা আহম্মেদ গিয়ে দেওয়ান নাজিম উদ্দিন মঞ্জুকে নিয়ে আসেন।

ধামরাই উপজেলা পরিষদের সাবেক তিনবারের চেয়ারম্যান ও ধামরাই উপজেলা বিএনপির সভাপতি তমিজ উদ্দিন বলেন, আমি কেন্দ্রের নির্দেশে আমার এখানে পৌর সম্মেলন দিয়েছি। কেন্দ্রের নেতা-কর্মীরা সবাই এসেছে। ভিতরে নেতা-কর্মীদের নিয়ে সম্মেলনে আলোচনা পর্যালোচনা করে কেন্দ্রের নেতা-কর্মীরা ঠিক করবে কাকে পৌর এিনপির সভাপতি করা যায়। এখানে আমার তো কিছু নাই।

ধামরাই থানা উপ-পরিদর্শক (এসআই) তন্ময় সাহা বলেন, আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই গ্রুপকে ছত্রভঙ করে দেই। এরপর আর কোন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে নাই। তবে এই বিষয়ে কোন পক্ষের কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
সংঘর্ষ,বিএনপির কমিটি,ধামরাই
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close