নরসিংদী প্রতিনিধি

  ০৪ ডিসেম্বর, ২০২১

গেমিং ল্যাপটপের জন্য শিশু অপহরণ ও হত্যা

নরসিংদীর রায়পুরায় পরিত্যাক্ত ধানের বীজতলা থেকে ইয়ামিন মিয়া (৮) নামে এক শিশুর গলিত মরদেহ উদ্ধার করার একদিন পর ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) ভোরে রায়পুরার উত্তর বাখরনগর ও পার্শবর্তী এলাকা হতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় হত্যাকাণ্ডে ব্যাবহৃত স্কচটেপ, বালিশ, মুঠোফোন এবং সিম আলামত হিসেবে উদ্ধার করা হয়েছে।

আজ দুপুরে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় নরসিংদী জেলা পুলিশ।

এর আগে, গত ২৮ নভেম্বর থেকে ওই শিশু নিখোঁজ ছিল এবং গত শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) সকালে উপজেলার উত্তর বাখরনগর ইউনিয়নের উত্তর বাখরনগর গ্রামের এক ডোবা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ইয়ামিন মিয়া (৮) উত্তর বাখরনগর গ্রামের জামাল মিয়ার ছেলে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- সিয়াম উদ্দিন (১৮), রাসেল মিয়া (১৭), আসাদ মিয়ার ছেলে সুজন মিয়া (২৪), মৃত রাজা মিয়ার ছেলে কাঞ্চন মিয়া (৫৪)।

প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে পুলিশ জানায়, ভারতীয় সিরিয়াল ক্রাইম পেট্রোল ও সিআইডি দেখে উদ্ভুদ্ধ হয়ে গেমিং ল্যাপটপ কিনে ইউটিউবে গেম লোড করে টাকা উপার্জনের জন্য শিশু ইয়ামিনকে অপহরণের পরিকল্পনা করে দুই বন্ধু সিয়াম এবং রাসেল।

গত ২৮ নভেম্বর দুপুরে পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক ইয়ামিনকে অপহরণ করে তারা। অপহরণ করে রাসেল ও সিয়াম মিলে তাকে সিয়ামের বাড়ির এক নির্জন রুমে হাত পা বেঁধে আটকে রাখে। সেদিনই মুঠোফোনে স্ক্রিপ্টেডবায়া এবং ভিপিএন এপস ব্যাবহার করে ফোন করে ইয়ামিনের মায়ের কাছে ১০লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে তারা। মুক্তিপণ না পেয়ে অপহরণের দিন রাতেই হাত পা বেঁধে বালিশ চাপা দিয়ে রাসেল এবং সিয়াম দুই বন্ধু মিলে শিশু ইয়ামিনকে হত্যা করে।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
নরসিংদী,রায়পুরা
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close