বদরুল আলম মজুমদার

  ২১ নভেম্বর, ২০২১

খালেদা ইস্যুতে উত্তপ্ত রাজনীতি

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি

রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানো ইস্যুতে গরম হচ্ছে রাজনৈতিক অঙ্গনে। বিএনপি নেতারা মনে করছেন, তাদের সামনে দুটি পথ খোলা রয়েছে। এক. সরকারের সঙ্গে সর্বোচ্চ নমনীয় থেকে আলোচনা করা, দুই. শক্ত কর্মসূচি দেওয়া। এরই মধ্যে চিকিৎসার দাবিতে দলটি সারা দেশে অনশন করেছে। এছাড়া আগামীকাল সারা দেশে সমাবেশের ডাক দিয়েছে। আবার খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেওয়ার অনুমতির দাবিতে জাতীয় সংসদসহ বিভিন্ন স্থানে বক্তব্য দিচ্ছেন নেতারা। এমনকি জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগের হুমকিও দিয়েছেন দলীয় সংসদ সদস্যরা।

বিএনপি এমপিদের হুমকির জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘বিএনপি যে দাবি করছে, তা আইনের বইয়ে নেই, তবে তারা চাইলে বিদেশ থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়ে আসতে পারেন। সেক্ষেত্রে সরকারের বাধা থাকবে না।’ জবাবে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেছেন, আইনমন্ত্রীর ব্যাখ্যা মিথ্যা। সরকার চাইলে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে পাঠাতে পারে।

খালেদা জিয়াকে মানবিক দিক বিবেচনায় দু-এক দিনের মধ্যে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবি জানিয়েছেন বগুড়া-৬ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) সিরাজ। তিনি বলেছেন, ‘বিএনপির ছয়জন (সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ছাড়া) এই সংসদে আছেন। খালেদা জিয়াকে যদি বিদেশে নেওয়ার অনুমতি না দেওয়া হয় তাহলে আমরা পদত্যাগ করতে প্রস্তুত আছি।’

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ বলেন, ‘পদত্যাগের বিষয়ে সংসদে দেওয়া জি এম সিরাজের বক্তব্যের সঙ্গে আমরা একমত। খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসা নিয়ে তার পরিবার ও দল থেকে বারবার দাবি জানানো হচ্ছে। বিএনপি চেয়ারপারসনের কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে এর দায়-দায়িত্ব সরকারের ওপর পড়বে। তখন পার্লামেন্ট থেকে আমরা বেরিয়ে যেতে পারি।’

পরে জি এম সিরাজের বক্তব্যের জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সংসদে বলেছেন, ‘বিএনপি যে দাবি করছে তা আইনের বইয়ে নেই। তারা (বিএনপি) আমাকে যত খুশি গালি দিতে পারেন, তাতে আমার কিছু আসে যায় না। আমি আইন মোতাবেক চলব।’

বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, আমরা যেন ভাবি আজকে শুরু করলাম। যতক্ষণ পর্যন্ত সফল না হব ততক্ষণ আমাদের চলার গতি থামবে না। এটা তীব্র থেকে তীব্র হবে। মাঠ বলে দেবে কখন কী করতে হবে। আপনারা তাই করবেন। সব সময় নেতারা নির্দেশ দেওয়ার সময় নাও পেতে পারে, কোন জায়গায় কোন পরিস্থিতি মোকাবিলা করবেন সেটা নিজের বুদ্ধি বিবেচনা দিয়ে করতে হবে। আর যারা যেখানকার দায়িত্বে আছেন দয়া করে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করার জন্য নিজ নিজ এলাকায় অবস্থান করুন। আমাদের সংগ্রাম শুরু।

এদিকে, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে সমাবেশে সংহতি জানিয়েছেন বিএনপি জোটের শরিফ বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী, জাতীয় পার্টি (একাংশ), ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি এলডিপি, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি, বাংলাদেশ লেবার পার্টি, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ ভাসানী, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ-রব, ইসলামী ঐক্য জোটসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

জতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম রব বলেছেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করতে দিচ্ছে না সরকার। আওয়ামী লীগ সারা জীবন ক্ষমতায় থাকতে পারবে না। এটা তাদের মনে রাখা উচিত। অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। আর যদি তা না করেন তাহলে তাদের চরম মাশুল দিতে হবে।

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বলেন, খালেদা জিয়া তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, যিনি মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডারের স্ত্রীকে বন্দি রাখা হয়েছে, তাকে বিদেশে চিকিৎসার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। তাকে বিদেশে চিকিৎসা করতে দিলে বাংলাদেশের রাজনীতি এক দিকে যাবে, আর না দিলে আরেক দিকে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় সাজা পেয়ে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি কারাগারে যান। পরে সরকারের নির্বাহী আদেশে কারাগার থেকে বেরিয়ে তিনি কয়েক দফা হাসাপাতালে ভর্তি হন। গত ১৩ নভেম্বর তাকে পুনরায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৭৬ বছর বয়সি খালেদা বর্তমানে ঢাকার এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

তার চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি আদায় করতে গতকাল শনিবার সারা দেশে গণঅনশনে বসেন বিএনপির নেতাকর্মীরা।

বিএনপি বলছে, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা খুবই গুরুতর। তিনি অনেক রোগে আক্রান্ত। লিভার ও কিডনি সমস্যা তাকে বেশি ভোগাচ্ছে। হার্টের সমস্যাও আছে। সম্প্রতি তার রক্তে হিমোগ্লোবিন কমে যাওয়ায় চিকিৎসকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। তারা বলছেন, খালেদা জিয়ার রক্তে শর্করা অনেক বেশি। রক্তচাপ ওঠা-নামা করছে। এ বয়সে এত রোগ এসব বিবেচনায় দেশে তার উন্নত চিকিৎসা সম্ভব নয়। বাইরে নিলে তাকে সুস্থ করে তোলা সম্ভব।

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
রাজনীতি,বিএনপি,খালেদা জিয়া
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close