পাবনায় তাঁতশ্রমিককে গলা কেটে হত্যা

প্রকাশ : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০

বেড়া (পাবনা) প্রতিনিধি

আট থেকে ১০ দিন আগে দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত হয়েছিলেন পাবনার সাঁথিয়ার তাঁতশ্রমিক রবিউল ইসলাম। তখন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেন। সম্প্রতি হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরে আসেন তিনি। এর কয়েক দিনের মাথায় গত শুক্রবার রাতে নিজ ঘরে তার গলাকাটা লাশ দেখতে পান স্বজনরা। ধারণা করা হচ্ছে, সন্ধ্যার পর কোনো একসময় দুর্বৃত্তরা রবিউলকে হত্যা করে পালিয়ে গেছে। রবিউলের বাড়ি উপজেলার তেঁতুলিয়া কারিগরপাড়া গ্রামে। তার বাবার নাম আবদুল গফুর।

সাঁথিয়া থানা পুলিশ ও রবিউলের স্বজনরা জানান, আট থেকে ১০ দিন আগে দুর্বৃত্তরা রবিউলকে পিটিয়ে আহত করলে তিনি সাঁথিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেন। এ ঘটনার বেশ কিছুদিন আগে তার স্ত্রী রাগ করে বাবার বাড়ি চলে যান। তাঁতের কাজ না থাকায় আর্থিক কষ্টে দিন কাটছিল রবিউলের। গতকাল রাত সাড়ে ৮টার দিকে রবিউলের বাড়ির লোকজন ঘরে ঢুকে গলাকাটা ও শরীরে জখম থাকা অবস্থায় তার লাশ দেখতে পান। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, লাশের ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। রবিউলের বাড়িতে আরো লোকজন ছিল।

সন্ধ্যার পর কোনো একসময় সুযোগ পেয়ে কে বা কারা রবিউলকে হত্যা করে পালিয়ে যায় বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় গতকাল শনিবার বেলা ২টা পর্যন্ত মামলা হয়নি। তবে জড়িতদের খুঁজে বের করতে পুলিশ কাজ করছে।

 

 

"