কর্মকর্তা নিয়মিত অফিসে না আসায় পেনশন তুলতে ভোগান্তি

প্রকাশ : ০৭ আগস্ট ২০২০, ০০:০০

টুঙ্গিপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান নিয়মিত অফিস করেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। নিয়মিত অফিস না করায় ভোগান্তি পোহাচ্ছেন অবসরপ্রাপ্ত চাকরিজীবীরা। পেনশনের টাকা তুলতে তার অফিসের সামনে ধরনা দিয়ে বসে থাকলেও তার দেখা মেলে না। তিনি মাসে দুদিনও অফিস করের না বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। কিন্তু হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা আসাদুজ্জামানের দাবি, নিয়মিত অফিস না করলে উপজেলা চলে কীভাবে?

উপজেলার জি টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সেকেন্দার আলী বলেন, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবীদের পেনশনের টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে তোলার জন্য অনলাইনে ডেটা এন্ট্রি করার নির্দেশ আসে। তখন অবসরপ্রাপ্তদের ডেটা এন্ট্রি করার জন্য হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান দুই মাস সময় নিয়েছিলেন। কিন্তু তিন-চার মাস পার হলেও তিনি ডেটা এন্ট্রির কাজ সম্পন্ন করতে পারেননি। কারণ তিনি মাসে দুদিনও অফিস করেন না। বেশিরভ াগ সময় ঢাকায় বসবাসরত পরিবারের সঙ্গে থাকেন। কর্মকর্তা না থাকায় অবসরপ্রাপ্তদের পেনশনের টাকা তুলতে পড়তে হয় ব্যাপক ভোগান্তিতে। তিনি (আসাদুজ্জামান) উৎকোচের আশায় রয়েছেন। কিন্তু আমরা উৎকোচ দিইনি, তাই ডেটা এন্ট্রির কাজ হচ্ছে না।

অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য ফরিদ আহম্মেদ বলেন, আমরা যখনই পেনশনের টাকা তুলতে আসি সেদিন ওই কর্মকর্তা থাকেন না। এতে এই বৃদ্ধ বয়সে ভোগান্তির শেষ থাকে না।

কাস্টমস থেকে অবসরপ্রাপ্ত এমদাদুল হক জানান, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা ঠিকমতো অফিস করেন না। আর কখনো এলেও নানা অজুহাত দেখান। তিনি ইচ্ছামতো অফিস পরিচালনা করেন। অফিসে এলেও তার দেখা পাওয়া যায় না। উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান নিয়মিত অফিস করেন জানিয়ে বলেন, নিয়মিত অফিস না করলে উপজেলা চলে কীভাবে। তবে পরিবার ঢাকা থাকার কারণে সপ্তাহের বৃহস্পতিবার চলে যাই। তা রোববার আসতে একটু দেরি হয়। আর সার্ভারের সমস্যার কারণে অবসরপ্রাপ্তদের ডেটা এন্ট্রির কাজ করা হয়নি। আর তিনি কোনো উৎকোচ নেন না বলেও জানান।

ইউএনও নাকিব হাসান তরফদার মুঠোফোনে প্রতিদিনের সংবাদকে জানিয়েছেন, মৌখিকভাবে আগেও তাকে (হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা) এ বিষয়ে সতর্ক করে নিয়মিত অফিস করার জন্য বলা হয়েছে। অবসরপ্রাপ্ত চাকরিজীবীদের সঙ্গে কথা হয়েছে। দ্রুত এর সুরাহা করা হবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি।

 

"