রাজশাহী ব্যুরো

  ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১

আর্থিক ভিত্তি আরো শক্তিশালী রাসিকের

তিন বহুতল ভবনের শেয়ার হস্তান্তর

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপের (পিপিপি) আওতায় নির্মিত সিমলা মার্কেটের সম্পূর্ণ এবং বৈশাখী বাজার ও স্বপ্নচূড়া প্লাজার শেয়ার আংশিক হস্তান্তর করা হয়েছে। গতকাল নগরভবনে মেয়র দপ্তরকক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে রাসিক মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের উপস্থিতিতে শেয়ার হস্তান্তর চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে সিটি করপোরেশনের অংশ প্রকৌশল বিভাগকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। এর মাধ্যমে সিটি করপোরেশনের আর্থিক ভিত্তি শক্তিশালী করতে সিটি মেয়র লিটন বহুতল বাণিজ্যিক ভবনে নির্মাণের যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন, সেটির বাস্তবায়ন হলো। এতে করে শিগগিরই সিটি করপোরেশনের আয় বৃদ্ধি পাবে।

অনুষ্ঠানে রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, আজকের দিনটি আমাদের জন্য অত্যন্ত আনন্দের। প্রথম মেয়াদে (২০০৮ থেকে ২০১৩) মেয়র থাকাকালে সিটি করপোরেশনের আর্থিক ভিত্তি শক্তিশালী করতে বহুতল ভবন নির্মাণের যে উদ্যোগ নিয়েছিলাম, নানা প্রতিকূলতা পেরিয়ে সেটির বাস্তবায়ন হয়েছে। বহুতল ভবনগুলো থেকে সিটি করপোরেশনের আয় হবে, আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে।

এ সময় বহুতল ভবন নির্মাণ প্রকল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়ে মেয়র বলেন, যেকোনো প্রতিষ্ঠানের সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া নির্ভর করে প্রতিষ্ঠানের অর্থনৈতিক সচ্ছলতার ওপর। রাসিকের আয় সীমিত, আছে অর্থ সংকটও। তবে করোনা মহামারি এই সময়েও সিটি করপোরেশনের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন সঠিক সময়ে দিতে পেরেছি। সিটি করপোরেশনের আয় বৃদ্ধির নানামুখী তৎপরতা চলমান থাকবে। আশা করি, আগামীতে সিটি করপোরেশনের নিজস্ব আয় থেকে বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করা সম্ভবপর হবে।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু ও ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযিম। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এ বি এম শরীফ উদ্দিন, শামসুজ্জামান জেভির স্বত্বাধিকারী মো. শামসুজ্জামান আওয়াল, ঠিকাদার ফরিদ উদ্দিন, এসবি ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কনস্ট্রাকশনের মহাব্যবস্থাপক আশরাফুল ইসলাম, রাসিকের ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম তজু, ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল সোবহান, ২৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তরিকুল আলম পল্টু, সচিব মো. মশিউর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী সরিফুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যাডভাইজার আশরাফুল হক, প্রকল্প পরিচালক ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী নূর ইসলাম তুষার, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আবু সালেহ নূর-ঈ-সাইদ, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মো. মামুন, সহকারী প্রকৌশলী তানজীর রহমান, উপসহকারী প্রকৌশলী মীর শাহরিয়ার সুলতান, সম্পত্তি কর্মকর্তা আবু নূর মো. মতিউর রহমানসহ অন্যান্য কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য, নগর ভবনের পশ্চিমে ৮তলাবিশিষ্ট স্বপ্নচূড়া প্লাজা এবং সাহেববাজার মুড়িপট্টিতে ১০ তলাবিশিষ্ট বৈশাখী বাজার মার্কেট নির্মাণাধীন। মহানগরীর বিলসিমলা এলাকায় পাঁচতলাবিশিষ্ট সিমলা মার্কেট সম্পন্ন হয়েছে। স্বপ্নচূড়া প্লাজার গ্রাউন ফ্লোর থেকে ৮ম তলা পর্যন্ত ফ্লোর বণ্টন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তিতে সিটি করপোরেশনের পক্ষে মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন ও উদ্যোগী সংস্থা শামসুজ্জামান জেভির পক্ষে স্বত্বাধিকারী মো. শামসুজ্জামান আওয়াল স্বাক্ষর করেন। সিমলা মার্কেটের প্রথম থেকে পঞ্চমতলা পর্যন্ত সম্পন্ন এবং বৈশাখী মার্কেটের প্রথম থেকে সপ্ততমতলা পর্যন্ত এবং স্বপ্নচূড়া প্লাজার বেজমেন্ট ও গ্রাউন্ড ফ্লোর থেকে চতুর্থতলা পর্যন্ত আংশিক শেয়ার হস্তান্তরনামা চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ১৬ তলাবিশিষ্ট সিটি সেন্টারের শেয়ার হস্তান্তরের কথা রয়েছে।

 

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close