লোকচক্ষুর অন্তরালে

দৃষ্টিনন্দন ডরমেটরি লেক

প্রকাশ : ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০

সালাহ্উদ্দিন শুভ, কমলগঞ্জ (মৌলভিবাজার)

ঘন ঝোপঝাড়ে ঢেকে থাকা চারদিকে উঁচু-নিচু পাহাড়-টিলার বেষ্টনী। বেষ্টনীর মধ্যভাগে রয়েছে ছোট জলাধার, সেই শান্ত জলের ওপর ভাসছে মনোহরা লাল শাপলা ফুল। শান্ত নীরব পরিবেশ। কিন্তু যাতায়াতের সুবিধা নেই। দুর্গমতা দিয়ে প্রকৃতি আড়াল করেছে তার অনাবিল সৌন্দর্য।

কমলগঞ্জে দৃষ্টিনন্দন এই ছোট লেকের নাম ‘ডরমেটরি লেক’। এর কথা অনেকেরই অজানা।

প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্ট, স্বল্প গভীরতা, একপাশে বাঁধ না থাকায় শুকনো মৌসুমে পানিশূন্য হয়ে যেত। বন্যপ্রাণীর খাবারের পানির সংকট নিরসন হয় দৃষ্টিনন্দন লেকটির দ্বারা। শুকনো মৌসুমে বন্যপ্রাণীর খাবারের পানি সংকট দূর করার জন্য ২০১৬ সালে বনবিভাগের (বন্যপ্রাণী) আর্থিক সহযোগিতায় লেকটিকে গভীরভাবে খনন করা হয় এবং লেক থেকে যাতে পানি বের না হয়, সেজন্য একপাশে মাটি দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করা হয়।

দীর্ঘদিন ধরে লেকটি রয়েছে লোকচক্ষুর অন্তরালে। লেকটির আয়তন প্রায় ছয় একর। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ৩নং গেট বাগমারা ক্যাম্পসংলগ্ন লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান স্টুডেন্ট ডরমেটরির পেছনেই লেকটির অবস্থান।

বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে লেকটি পরিপূর্ণ হয়। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) জলে পরিপূর্ণ লেকটির ওপর দিয়ে এক টিলা থেকে অপর টিলায় যাওয়ার জন্য তৈরি করেছে দৃষ্টিনন্দন বাঁশের সাঁকো।

লেকের পানিতে চলার জন্য স্টুডেন্ট ডরমেটরির দায়িত্বে থাকা অফিস সহকারী মোহাম্মদ ওয়াহিদ মিয়ার একটি বাঁশের ভেলা তৈরি করেছেন। স্থানীয়দের দাবি, লেকটির প্রাকৃতির মনোরম দৃশ্য দেখার জন্য যদি এখানে একটি নৌকা রাখা হয়, তাহলে ভ্রমণে আসা পর্যটকরা নৌকা ভ্রমণের সুযোগ পাবেন। সরকারিভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করে যদি লেকটি পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হয়, তবে সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে এবং পর্যটকের আগমনে মুখরিত হয়ে উঠবে দৃষ্টিনন্দন এই লেক।

কমলগঞ্জ জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সভাপতি মঞ্জুর আজাদ ও সম্পাদক আহাদ মিয়া বলেন, ‘ইতোমধ্যেই লেকটি পর্যটকদের আকৃষ্ট করেছে। ইকো ট্যুরিজম (পরিবেশবান্ধব পর্যটন) এর আদলে লেকটির উন্নয়ন করা হলে প্রকৃতিপ্রেমীরা সেখানে আসতে পারেন। লেকের পাশে হিজলগাছ রোপণ করা হলে শীত মৌসুমে অনেক অতিথি পাখির আগমন ঘটবে; যা পর্যটকদের কাছে পাখির অভয়ারণ্য হিসেবে পরিচিত লাভ করবে প্রকৃতির বুকে সৃষ্টি দৃষ্টিনন্দন এই লেক।’

মৌলভীবাজার বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের লাউয়াছড়া বন রেঞ্জার মোনায়েম হোসেন বলেন, ‘লাউয়াছড়া স্টুডেন্ট ডরমেটরি লেকের উন্নয়নের জন্য আমরা (বনবিভাগ) একটি প্রকল্প নিয়েছি। লেকটির চারপাশ দিয়ে হাঁটার জন্য একটি ট্রেইল পথ (পায়ে হাঁটার পথ), লেকের ওপর তিনটি ঝুলন্ত সেতু ও দুটি ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণ করে আধুনিক লেক হিসেবে গড়ে তোলার চিন্তাধারা রয়েছে।’ তিনি আশা প্রকাশ করে জানান, শিগগিরই কাজ শুরু হতে পারে।

 

"