রাজিবুল ইসলাম

  ১১ জানুয়ারি, ২০২১

নতুন শুরুর আশায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ

এক বছরের জন্য মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সঙ্গে চুক্তি করেছে ‘হিসাব’

সদ্য সমাপ্ত ফেডারেশন কাপে আশানুরূপ কিছু করে দেখাতে পারেনি মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়াচক্র। আবাহনী ও মোহামেডানের কাছে হেরে বাদ পড়তে হয়েছিল গ্রুপ পর্ব থেকেই। দলটির সাম্প্রতিক অতীতও খুব একটা ভালো নয়। সবমিলিয়ে দেশের ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটির ওপর থেকে যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠানগুলো। স্পন্সর না থাকায় শঙ্কা জেগেছিল আসন্ন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) ফুটবলে অংশগ্রহণ নিয়েও। 

এ অবস্থায় মুক্তিযোদ্ধার খেলোয়াড়রা যখন হতাশাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছিলেন, তখন সবাইকে আশ্বস্ত করেছিলেন অধিনায়ক ইউসুকে কাতো। এই জাপানি মিডফিল্ডারের প্রচেষ্টায় শেষ পর্যন্ত স্পন্সর পেয়ে গেল মুক্তিযোদ্ধা। তাতে গেল সব শঙ্কার মেঘ। 

আগামী এক বছরের জন্য মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সঙ্গে চুক্তি করেছে ‘হিসাব’। এখন থেকে দলটির টাইটেল স্পন্সর হিসেবে দেখা যাবে প্রযুক্তি খাতের অন্যতম শীর্ষ এই প্রতিষ্ঠানকে।

সোমবার রাজধানীর ফারস হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টে দুই পক্ষের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী ও ক্লাবের প্রধান উপদেষ্টা আ ক ম মোজাম্মেল হক। তার উপস্থিতিতে চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন ক্লাব সভাপতি জহিরুল ইসলাম রোহেল এবং ‘হিসাব’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী যুবায়ের আহমেদ। 

‘ফুটবলে এগিয়ে যাও, বাংলাদেশ এগিয়ে নাও’ এই স্লোগান সামনে রেখে এবারের বিপিএল মাতাবে নতুন রূপে জাগ্রত মুক্তিযোদ্ধা সংসদ। দলের সাফল্যের ব্যাপারে আশাবাদী মন্ত্রী বললেন, এত দিন পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে মুক্তিযোদ্ধার বিপিএলে খেলা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছিল। তবে ‘হিসাব’ পাশে এসে দাঁড়ানোয় খেলোয়াড়রা এখন নির্ভার হয়ে খেলতে পারবে। আশা করছি এই চুক্তির মধ্য দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

দলনেতা ইউসুকে কাতোও ভালো করার ব্যাপারে আশাবাদী। প্রতিদিনের সংবাদকে জানালেন সে কথাই একসময় আর্জেন্টিনার লিগে খেলা এই জাপানি মিডফিল্ডার, ‘বাংলাদেশ-জাপানের মেলবন্ধন সবারই জানা। আমি বাংলাদেশকে ভালোবাসি, এ দেশের মানুষকে ভালোবাসি। সে কারণেই এখানে খেলতে আসা। স্পন্সর পাওয়ার পর আমাদের বিপিএল খেলা নিয়ে শঙ্কা কেটে গেল। এখন আমরা আসন্ন আসরে ভালো করতে লড়ব।’ 

সোমবার থেকে অনুশীলনে মনেনিবেশ করতে চললেও এখনই শিরোপা জয়ের স্বপ্ন দেখছেন না কাতো। বরং মাঠে নামতে চান উপভোগের মন্ত্র নিয়ে। এগোতে চান ম্যাচ বাই ম্যাচ ধরে, ‘অবশ্যই আমরা আগের চেয়ে ভালো করতে চাই। তবে বাস্তবতা হলো শিরোপা জিততে হলে বহু পথ পাড়ি দিতে হবে। তাই একেকটা ম্যাচ নিয়ে ভাবতে চাই। বড় সাফল্য পেতে কয়েক মৌসুম লাগতেই পারে।’ 

‘হিসাব’ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হতে পেরে গর্বিত। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী যুবায়ের আহমেদ প্রতিদিনের সংবাদকে বললেন, মুক্তিযোদ্ধার মতো ঐতিহ্যবাহী ক্লাবের সঙ্গে নতুন সম্পর্ক সৃষ্টি করতে পেরে আমরা গর্বিত ও আনন্দিত। আমাদের পৃষ্ঠপোষকতায় দলটি শিরোপা নিয়ে ফিরবে, এটাই প্রত্যাশা।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাধারণ সম্পাদক শফি আবদুল্লাহেল মারুফ, বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক রকিবুল হাসান, ‘হিসাব’-এর প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা ফায়াদান ফারাবি, কোম্পানিটির অঙ্গসংগঠন ‘ভয়েজ ব্রিজ’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম আরা খানম প্রমুখ।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ,ফুটবল,বাংলাদেশ,খেলা
আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়