বিউটি বোর্ডিংয়ের ‘প্রাণে’ ফেরা নিয়ে সংশয়

প্রকাশ : ০৫ আগস্ট ২০২০, ১০:২০ | আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২০, ১০:৩১

নিজস্ব প্রতিবেদক

পুরান ঢাকার শ্রীশচন্দ্র লেনের হলুদ রঙা দোতলা বাড়িটি শুধু আবাসিক হোটেলই নয়। এদেশের শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি ও রাজনীতির ইতিহাসের সাক্ষী এই বিউটি বোর্ডিং। একটা সময়ে কবি, সাহিত্যিক, শিল্পী, অভিনেতা, রাজনীতিবিদ, চলচ্চিত্রকারদের অবাধ বিচরণ ও আড্ডার প্রাণকেন্দ্র ছিল বিউটি বোর্ডিং। এখন আর তেমন কারো পা পড়ে না এখানে। কালের স্রোতে ঢাকার বিস্তৃতি বেড়েছে, বেড়েছে জৌলুস, চাকচিক্য। বিপরীতে নিষ্প্রাণ হয়েছে বিউটি বোর্ডিং।

সম্প্রতি ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘাঁ’ এর মতো যোগ হয়েছে করোনাভাইরাস মহামারি। ভাইরাস সংক্রমণের শঙ্কায় বোর্ডার নেওয়া বন্ধ সেই মার্চ থেকে। অবশ্য খাবারের হোটেলটি কিছুদিন আগে চালু হয়েছে কিন্তু খদ্দেরের দেখা পাওয়াই ভার। এখনো প্রতি বছর ঈদের সময় অনেকেই ভিড় করতেন, আড্ডা জমাতেন বিউটি বোর্ডিংয়ে। কিন্তু এবার মহামারির কারণেই তাও হওয়ার সম্ভাবনা কম। সবমিলিয়ে ইতিহাসের গন্ধমাখা দোতলা বাড়িটির অবস্থা এখন নিভু নিভু প্রদীপের মতো।

যেভাবে জন্ম : গত শতকের চল্লিশের দশকে বাংলাবাজারকে ঘিরে গড়ে উঠে প্রকাশনা শিল্প। সেখানকার নিঃসন্তান জমিদার সুধীর চন্দ্র দাসের বাড়িটিতে ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের আগে সাপ্তাহিক ‘সোনার বাংলা’ পত্রিকার অফিস। কবি শামসুর রাহমানের প্রথম কবিতা ছাপা হয়েছিল এ পত্রিকায়ই। ভারত ভাগের সময় পত্রিকা অফিসটি কলকাতায় স্থানান্তরিত হয়। এরপর ১৯৪৯ সালে দুই ভাই প্রহ্লাদ চন্দ্র সাহা ও নলিনী মোহন সাহা এই বাড়িতে গড়ে তোলেন আবাসিক ও খাবার হোটেল।

প্রহ্লাদ চন্দ্রের ছেলে সমর সাহা বলেন, ১১ কাঠা জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত বিউটি বোর্ডিংয়ের নামকরণ করা হয় নলিনী সাহার বড় মেয়ে বিউটির নামে। একাত্তরে এই বিউটি বোর্ডিং হয়ে উঠে মুক্তিযোদ্ধাদের মিলনস্থল। বঙ্গবন্ধু এখানে আসতেন। আমি তখন ছোট ছিলাম বয়স হয়ত ৯/১০ হবে। রাজাকাররা বিষয়টি জানতে পারে। ১৯৭১ সালের ২৮ মার্চ এখানে হামলা চালায় পাকিস্তান সেনাবাহিনী। শহীদ হন আমার বাবাসহ ১৭ জন।

পরে প্রহ্লাদ চন্দ্রের পরিবার ভারত চলে যায়। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে প্রহ্লাদ চন্দ্রের স্ত্রী প্রতিভা সাহা দুই ছেলে সমর সাহা ও তারক সাহাকে নিয়ে বিউটি বোর্ডিং পুনরায় চালু করেন।

বিউটি বোর্ডিংয়ের আড্ডা আগের মতো না থাকলেও খাবার ঘরে এখনো ভোজনরসিকদের ভিড় লেগেই থাকে। ঐতিহ্য ধরে রাখতে ভোজনরসিকদের আজও এখানে স্টিলের থালা-গ্লাসে খাবার ও পানি পরিবেশন করা হয়। সকালে নাশতা, দুপুরে ভাত, বিকালে সুস্বাদু লুচি ও রাতেও রয়েছে খাবারের ব্যবস্থা।

বিউটি বোর্ডিংয়ে ছোট-বড় মিলিয়ে কক্ষ রয়েছে ২২টি। একমাত্র বড় রুমের ভাড়া ১ হাজার ২০০ টাকা আর সিঙ্গেল রুমের ভাড়া ২০০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে। স্বল্প খরচে থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা থাকলেও এখানকার বেশির ভাগ কক্ষই খালি থাকে।

জন্মলগ্ন থেকেই এখানে আড্ডা দিতেন প্রথিতযশা কবি, সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবী, শিল্পী, সাংবাদিক, চিত্রপরিচালক, নৃত্যশিল্পী, গায়ক, অভিনেতাসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। একসময় প্রমত্তা বুড়িগঙ্গার ভরা যৌবনের মতোই প্রণোচ্ছল ছিল বিউটি বোর্ডিংয়ের সেই দিনগুলো। নতুন প্রজন্মের কাছে খুব চেনাজানা না হলেও বোদ্ধামহল ও সুধীজনদের কাছে এর কদর একটুও কমেনি।

মূলত চল্লিশের দশকেই পুরান ঢাকায় খ্যাতি লাভ করে বিউটি বোর্ডিং। স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, কবি শামসুর রাহমান, আল মাহমুদসহ অনেক বিখ্যাত মানুষ এখানে আসতেন। এসেছিলেন পল্লীকবি জসীম উদ্দীন আর নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুও। প্রখ্যাত চলচ্চিত্রকার আবদুল জব্বার খান এখানে বসেই লিখেছিলেন বাংলার প্রথম সবাক ছবি ‘মুখ ও মুখোশ’-এর পাণ্ডুলিপি। এরপর ‘কাঁচের দেয়াল’ চলচ্চিত্রের পাণ্ডুলিপিও এখান থেকে তৈরি হয়। ১৯৫৭ সালে কবি ফজল শাহাবুদ্দিন এখান থেকেই প্রকাশ করেন সাহিত্য পত্রিকা ‘কবিকণ্ঠ’, ১৯৫৯ সালে আহমদ ছফার সাহিত্য পত্রিকা ‘স্বদেশ’-এর উত্থানও এই বিউটি বোর্ডিং থেকেই। জাদুকর জুয়েল আইচের সূচনাও এখানেই। আর সুরকার সমর দাস বহু গানের সুর তৈরি করেছেন এখানে বসে। এই বিউটি বোর্ডিং নিয়েই শামসুর রাহমান লিখেছেন ‘মনে পড়ে একদা যেতাম প্রত্যহ দুবেলা বাংলাবাজারের শীর্ণ গলির ভেতরে সেই বিউটি বোর্ডিংয়ে পরস্পর মুখ দেখার আশায় আমরা কজন।’ ১৯৫৭ সাল থেকে ৬২ সাল পর্যন্ত এখানে বসেই লেখালেখি করতেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক।

একসময় নিয়মিত বিউটি বোর্ডিংয়ে আড্ডা দিতেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন। তিনি বলেন, ষাটের দশক থেকে আমরা কয়েকজন বিউটি বোর্ডিংয়ে নিয়মিত আড্ডা দিতাম। এখনো প্রতি বছর ওখানে মিলিত হই। এবারও যাওয়ার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু করোনাভাইরাস সংকটে যাওয়া কোনোভাবেই ঠিক হবে না। তাই এবার আড্ডা দেওয়া আর হচ্ছে না। এক সময়ে নিয়মিত পা পড়ত কবি নির্মলেন্দু গুণের। বিউটি বোর্ডিংয়ের ফেলে আসা দিনগুলোর কথা ভেবে ভারাক্রান্ত তিনি। এক সময় বাংলাবাজারে প্রকাশনার কাজে নিয়মিত যেতে হতো তখন আড্ডাটা দিতাম বিউটি বোর্ডিংয়ে। ওখানে বসে কবিতা লিখতাম, সাহিত্য চর্চা করতাম। এখন আর যাওয়া হয় না।

১৯৯৫ সালে সাবেক বিউটিয়ানদের নিয়ে গঠিত হয় ‘বিউটি বোর্ডিং সুধী ট্রাস্ট’। আর ২০০৩ সালে কবি ইমরুল চৌধুরীকে আহ্বায়ক ও সদ্য প্রয়াত তারক সাহাকে সদস্য সচিব করে ৬০ সদস্যবিশিষ্ট ট্রাস্টি বোর্ড গঠন করা হয়। আর এই ট্রাস্টি বোর্ডের মাধ্যমে ২০০৫ সাল থেকে দেওয়া হচ্ছে ‘বিউটি বোর্ডিং সম্মাননা’। স্ব স্ব ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রতি বছর এক বা একাধিক ব্যক্তিকে এই সম্মাননা দেওয়া হয়।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে বোর্ডার নেওয়া বন্ধ থাকলেও গত ৭ জুলাই থেকে খাবার ব্যবস্থাটা ফের চালু করেছে বোর্ডিং কর্তৃপক্ষ।

বিউটি বোর্ডিংয়ের পরিচালক সমর সাহা বলেন, খাবার চালু করলেও লোকজন আসছে একেবারেই কম। মহামারির কারণে আমরা কষ্টে আছি, অনেক ক্ষতি হয়েছে আমাদের। সবাই এখানে আসে আড্ডা দেয় কিন্তু আজ পর্যন্ত কেউ কোনো সহযোগিতা করেনি। সরকারের পক্ষ থেকেও কেউ খবর নেয় না।

​পিডিএসও/হেলাল