সেতুর পাড় দখল করে যুবলীগ নেতার বালুর ব্যবসা

ঝুঁকির মুখে একাধিক পিলার

প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:২৬ | আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:৫৩

আল-আমিন মিয়া, পলাশ (নরসিংদী)

নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশাল পৌর এলাকার শীতলক্ষ্যা নদীর উপর নির্মিত দুটি রেল সেতুর পাড় দখল করে মনির হোসেন মোল্লা নামে এক স্থানীয় যুবলীগ নেতা অবৈধভাবে গড়ে তুলেছে বালুর আড়ত। নদীর পাড়ে অবস্থিত রেল সেতুর কয়েকটি পিলার জুড়ে বালু জমিয়ে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন এই যুবলীগ নেতা। এতে করে ঝুঁকিতে পড়েছে রেল সেতু দুটি।

জানা গেছে, ঘোড়াশাল পৌর যুবলীগের সভাপতি মনির হোসেন মোল্লা দলীয় প্রভাব খাটিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নদীর তীর ঘেসা রেলের জমিতে অবৈধভাবে বালুর জমজমাট ব্যবসা করে আসছে। এসব বালুর আড়ত থেকে কয়েক মিনিট পর পর ট্রলি ও ট্রাক দিয়ে বালু ভরে অন্যত্র বিক্রি করা হচ্ছে। বালু আনা নেওয়ার সময় এসব ভারি যানবাহনের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে রেল সেতুর একাধিক পিলার।

দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ ভাবে বালু ব্যবসা চালিয়ে গেলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি স্থানীয় প্রশাসন। এতে করে হুমকির মুখে পড়েছে শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর নির্মিত রেল সেতু দুটি। এছাড়া ঘোড়াশাল- পলাশ আঞ্চলিক সড়ক দিয়ে এসব বালু আনা-নেওয়ার কারণে সড়ক জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে ধূলাবালি। বালি উড়ে আশেপাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও হচ্ছে অনেকটা ক্ষতিগ্রস্ত।

সরেজমিন দেখা যায়, শীতলক্ষ্যা নদীর তীর ঘেসা রেল সেতুর প্রায় দুই একর জমি দখল করে যুবলীগ নেতা মনির হোসেন মোল্লা ১০ থেকে ২০ ফুট উচু করে বালু জমিয়ে রেখেছেন। সেতুর পিলারের চারপাশ আবদ্ধ হয়ে পানি ও বালু  জমে মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পিলার ও এর চারপাশ।

এদিকে বিষয়টি নজরে এনে বুধবার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে সরেজমিন পরিদর্শন করেন ঘোড়াশাল পৌর নায়েব আহসান হাবিব। তিনি জানান, স্থানীয় যুবলীগ নেতা মনির হোসেন মোল্লা বালু জমিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে।

জানতে চাইলে অবৈধভাবে বালুর আড়ত দেওয়ার বিষয়টি একেবারেই অস্বীকার করেন যুবলীগ নেতা মনির হোসেন মোল্লা। তিনি বালুর আড়তটি অন্যের দাবি করে বলেন, সড়কে কাজ চলাকালীন ঠিকাদাররা রেল সেতুর পাশে বালু জমিয়ে রাস্তার কাজ করছিল। এসব বালুর ব্যবসার সাথে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোমানা ইয়াসমিন বলেন, নদীর তীর ঘেসা রেলসেতুর পাশে বালুর আড়ত দিয়ে ব্যবসার করার বিষয়ে মনির হোসেন মোল্লার নাম জানা গেছে। খুব শিগ্রই অবৈধ বালুর উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে। 

পিডিএসও/এসএম শামীম