শ্রীমঙ্গলে খাঁচায় বেড়ে উঠছে অজগর

প্রকাশ : ০৭ আগস্ট ২০২০, ০০:০০

শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে খাঁচার ভেতর বড় হয়ে উঠছে অজগরের বাচ্চারা। শ্রীমঙ্গলের বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে নিরবচ্ছিন্ন সেবায় বেড়ে উঠছে বাচ্চাগুলো। নিরাপদে খাঁচার ভেতর রাখা হয়েছে অজগরের বাচ্চাগুলোকে।

মাংস ছোট ছোট টুকরো করে দেওয়া হচ্ছে ওদের খাবার হিসেবে। পরিষ্কার থালায় রাখা হয়েছে পানি। সেখান থেকে বাচ্চারা খাদ্য ও পানীয় গ্রহণ করছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় এমন চিত্র। অজগরের বাচ্চাগুলো প্লাস্টিক ও কাঠের তৈরি বক্সের মধ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। কালো, হলুদ আর সাদা রঙের ডোরাকাটা বাচ্চাগুলো কিলবিল করছিল বক্সের ভেতর। একটি প্লাস্টিকের বড় থালায় ছোট করে কাটা মাংসের টুকরো রাখা ছিল খাবার হিসেবে। পাশেই অন্য একটি অ্যালুমিনিয়ামের থালায় দেওয়া হয়েছে পানি। এদিকে মা অজগরটিকে পাশেই আলাদা করে একটি লোহার শেডে রাখা হয়েছে।

বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক স্বপন দেব সজল বলেন, ডিম থেকে বাচ্চা ফোটানোর পর মা অজগরটিকে আলাদা করে রাখা হয়েছে। বাচ্চাগুলোর জন্য মা অজগরের এখন আর প্রয়োজন নেই।

বাচ্চাগুলো প্রাকৃতিকভাবে নিজে থেকে খাদ্য গ্রহণ করা শিখছে। ধীরে ধীরে এগুলো বড় হয়ে উঠবে। সজল দেব আরো বলেন, বন ও পরিবেশমন্ত্রীর সঙ্গে ফোনে কথা হয়েছে। তার উপস্থিতিতে দেশের বিভিন্ন সংরক্ষিত বনে বাচ্চাগুলোকে অবমুক্ত করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৮ মে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে খাঁচার ভেতর মা অজগরটি ৩১টি ডিম দিয়েছিল। ডিম দেওয়ার পর নিজের শরীর দিয়ে পেঁচিয়ে ডিমগুলোকে তা দেয় মা অজগর। গত ২২ ও ২৩ জুলাই দুই দিনে ডিম থেকে একে একে ৩০টি বাচ্চা বেরিয়ে আসে। এখন পর্যন্ত সবগুলো বাচ্চা সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন।

 

"