জহুরুল ইসলাম খোকন, সৈয়দপুর

  ২৬ নভেম্বর, ২০২১

রেললাইন ঘেঁষে অবাধে দোকান, দুর্ঘটনার শঙ্কা

শীত মৌসুমের শুরু থেকেই সৈয়দপুরের রেললাইন ঘেঁষে ফের বসতে শুরু করেছে পুরোনো গরম কাপড়ের দোকানপাট। প্রায় প্রতিদিনই সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত সব শ্রেণির ক্রেতারা ভিড় করছেন এসব দোকানে। যেকোনো সময় ট্রেন চলাচলে ঘটে যেতে পারে প্রাণহাণির ঘটনা। স্টেশন মাস্টার লোকমারফত ও পৌর পরিষদ দৈনিক হারে ওইসব দোকান থেকে অর্থ আদায় করায় প্রাণহানির ঝুঁকির ব্যাপারে দোকানিসহ কেউই আমলে নিচ্ছেন না।

শহরের নতুন বাবুপাড়ার আমিরুল ইসলাম আরমান জানান, শীত মৌসুমে রেললাইন সংলগ্ন অনেক মানুষ পুরোনো গরম কাপড় বিক্রয় করতে শুরু করেন। এতে নিম্নআয়ের মানুষের সমাগমও ঘটে প্রচুর। শীতের তিব্রতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রেললাইনের পাশে ব্যবসায়ীর সংখ্যাও বাড়তে থাকে। তবে যেকোনো সময় যে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে তা কেউই ভেবে দেখছেন না। ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক ও দুর্ঘটনা এড়াতে রেললাইন সংলগ্ন সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা জরুরি বলে মনে করছেন তিনি।

রেললাইন ঘেঁষে বসা এক দোকানি জানান, লাইনের পাশে দোকান বসানো আসলেই ঝুঁকিপূর্ণ। কিন্তু সংসারের কথা ভেবে ঝুঁকির মাঝেও দোকান বসানো হয়েছে। তা ছাড়া বাজারে এক একটি দোকানের ভাড়া ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। উপরি অ্যাডভান্সের মোটা অঙ্কের অর্থ না দিলে দোকান মিলে না। সেখানে রেললাইনের পাশে দোকান বসালে স্টেশন মাস্টারকে প্রতিদিন ২০ টাকা আর পৌর পরিষদকে দৈনিক ১০ টাকা দিলেই হয়।

ট্রেনচালক সবুজ জানান সৈয়দপুর শহরের ১নং রেল গুমটি থেকে রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে ট্রেন চলাচল করতে হয়। রেললাইনের দুই পাশ ঘেঁষে গড়ে উঠেছে প্রায় হাজার খানিক পুরোনো গরম কাপড়ের দোকানসহ হোটেল রেস্তোরাঁ ও প্লাস্টিক সামগ্রীর দোকান। পার্বতীপুর থেকে সৈয়দপুর দ্রুতগতিতে ট্রেন চলাচল করার কথা থাকলেও পুরোনো গরম কাপড়ের দোকান সংলগ্ন এলাকায় সতর্কতা অবলম্বন করে একেবারেই ধীর গতিতে চলাচল করতে হচ্ছে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার শওকত আলী জানান, যারা স্টেশন মাস্টারের কথা বলে অবৈধভাবে বসা দোকানিদের কাছ থেকে টাকা আদায় করছে তাদের চিহ্নিত করে অবৈধভাবে বসা সব দোকানপাট উচ্ছেদ করা দরকার। তিনি বলেন, ট্রেন চলাচলে সুবিধা নিশ্চিত এবং দুর্ঘটনা এড়াতে ওইসব দোকানপাট উচ্ছেদের জন্য ওপর মহলকে অবগত করা হয়েছে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুর রহমান বিশ্বাস জানান, রাজনৈতিক কিছু নেতার দাপট দেখিয়ে দোকানিরা রেললাইন ঘেঁষে দোকানপাট গড়ে তুলেছেন। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনায় প্রাণহাণি ঘটতে পারে যেনেও দোকানিরা দোকান বসিয়েছেন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পেলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অবৈধ সব দোকানপাট উচ্ছেদ করা হবে বলে জানান তিনি।

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close