কালভার্টের মুখ বন্ধ করে স্থাপনা

গোবিন্দগঞ্জে জলাবদ্ধতায় দুর্ভোগে ১০ গ্রামের মানুষ

প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০২০, ০০:০০

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

গাইবান্ধা গোবিন্দগঞ্জে পানি নিস্কাশনের কালভার্টের মুখ বন্ধ করে সরকারি জায়গায় ঘরবাড়ি নির্মাণ করায় সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এতে সাহেবগঞ্জ বাজার থেকে সাহেবগঞ্জ ঘাট পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার পাকা সড়ক চলাচলালের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই সড়কটি হাঁটু পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় পথচারী, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ীসহ ১০ গ্রামের লোকজন চলাচলে সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।

জানা গেছে, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাপমারা ইউনিয়নের সাহেবগঞ্জ বাজারটিতে প্রতিদিন ছাড়াও সপ্তাহে বুধবার ও রোববার হাট বসে। বাজার সংলগ্ন সাহেবগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও সাহেবগঞ্জ বহুমুখী উচ্চবিদালয়ে আসা যাওয়ার জন্য সাহেবগঞ্জ ঘাটের ওই পাকা রাস্তাটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বহু আগ থেকেই স্থানীয় ব্যবসায়ীরা সাহেবগঞ্জ ঘাট থেকে কৃষি পণ্যসহ অন্যান্য মালামাল পরিবহনের জন্য সড়কটি ব্যবহার কওে আসছেন। কিন্তু ওই এলাকার কিছু ব্যক্তি রাস্তার পানি নিষ্কাশনের পথ কালভার্টের মুখ বন্ধ করে বাড়িঘর নির্মাণ করায় এলজিইডির অর্থায়নে নির্মিত ওই পাকা রাস্তাটি ভেঙে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই রাস্তাটি হাঁটু পানিতে নিমজ্জিত হয়ে থাকে। এতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ সাপমারা ও দরবস্ত ইউনিয়নের ১০টি গ্রামের মানুষকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সাহেবগঞ্জ গ্রামের লোকজন বলেন, কিছুিদন আগেও এখানে জলাবদ্ধতা ছিল না। পানি নিষ্কাশনের জন্য সরকারি অর্থে নির্মিত কালভার্ট দিয়েই সব পানি নেমে যেত। কিন্ত রাস্তার দুই ধারের লোকজন কালভার্টের মুখ বন্ধ করে বাড়িঘর নির্মাণ করায় সাহেবগঞ্জ বাজার থেকে ঘাট পর্যন্ত পাকা সড়কটি বর্তমানে চলাচলের অয়োগ্য হয়ে পড়েছে। ওই এলাকার সুধীজনসহ সচেতন মহল বন্ধ করে দেওয়া কার্লভাটের মুখ খুলে দিয়ে জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল লতিফ জানান, কার্লভাটের মুখ বন্ধ করে দিয়ে পানি নিষ্কাশনের পথ অবরুদ্ধ করার কথা আমি শুনেছি। এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রামকৃষ্ণ বর্মন বলেন, ওই রাস্তাটি এলজিইডির অর্থায়নে নির্মিত। রাস্তার পাশে সরকারি জায়গায় মাটি রাখা এবং অবৈধভাবে ঘরবাড়ি তোলার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দফতরের মাধ্যমে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

 

"