লামা প্রতিনিধি

  ১৪ অক্টোবর, ২০২১

বান্দরবানে বিক্ষোভ-সংঘর্ষ, ওসিসহ আহত ২০ 

ছবিঃ লামা প্রতিনিধি

কুমিল্লায় কোরআন অবমাননার জের ধরে বান্দরবানের লামায় বিক্ষোভ চলাকালীন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোহাম্মদ মিজানুর রহমানসহ ২০ জন আহত হয়েছেন। 
বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা ও পাশের চকরিয়া উপজেলার বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের ‘সর্বস্তরের মুসলিম তৌহিদি জনতা’র ব্যানারে এ বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করে।
সূত্র জানায়, প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে বিক্ষুব্ধরা মিছিল বের করে। মিছিলটি শহরের বাজারে পৌঁছালে পাল্টাপাল্টি ইট পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে বিক্ষোভকারীরা আশপাশের ১০-১২টি দোকান ও কেন্দ্রীয় হরি মন্দিরের সামনের সড়কের পুঁজা প্যান্ডেল ভাংচুর করে। তবে মন্ডপের প্রতিমার কোনও ক্ষতি হয়নি বলে জানা গেছে।
স্থানীয়রা আহতদেরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও আলিঙ্গন হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তাৎক্ষণিকভাবে উপজেলা শহরে সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি ও আনসার সদস্য মোতায়েন করা হয়।  বিক্ষোভকারিদের দাবি শান্তিপূর্ণ মিছিলে ইটপাটকেল মারলে ঘটনার সূত্রপাত হয়। 
লামা থানার এসআই জুম্মা মোল্লা জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি সম্পুর্ণ শান্ত রয়েছে। যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলাই শহরে ৩০জন পুলিশ, ২ প্লাটুন বিজিবি ও ২ প্লাটুন সেনাবাহিনীসহ আনসার ব্যাটালিয়ন সদস্য নিয়োজিত রাখা হয়েছে। 
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, কিছু উঠতি বয়সী কিশোর যুবক অতি উৎসাহি হয়ে হামলার ঘটনায় জড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল ও পৌরসভা মেয়র মো. জহিরুল ইসলাম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আপ্রাণ চেষ্টা চালায়। 
এ বিষয়ে লামা কেন্দ্রীয় হরি মন্দির কমিটির সভাপতি প্রশান্ত ভট্টাচার্য বলেন, প্রতি বছর আমরা মুসলিম ভাইদের সাথে ভাগাভাগি করে উৎসব পালন করে থাকি। মুসলিম ভাইয়েরা আমাদেরকে উৎসব পালনে সব সময় সহযোগিতা করে আসছেন। কিন্তু এ বছর কেন এ হামলার শিকার হলাম, তা ভাবতে পারছিনা। 
এদিকে খবর পেয়ে বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ইয়াসমিন পারভীন তিবরীজি ও পুলিশ সুপার জেরিন আখতারসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তাৎক্ষণিক হিন্দু সম্প্রদায়সহ মসজিদের ইমাম, জনপ্রতিনিধি ও সাংবাদিকদের নিয়ে শান্তি সভা করেন। 
তিনি জানান, এ ঘটনার যেন পুণরাবৃত্তি না ঘটে ও পরিস্থিতি শান্ত রাখতে শহরে বিজিবি, সেনাবাহিনী, পুলিশ, আনসার ব্যাটালিয়ন ও আনসার ভিডিপি সদস্য মোতায়ন করা হয়েছে। তদন্ত করে হামলার ঘটনায় জড়িতদের বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।
সভায় নির্বাহী অফিসার মোস্তফা জাভেদ কাইসার, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা জামাল, পৌরসভা মেয়র মো. জহিরুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
বান্দরবানে সংঘর্ষ,কোরআন অবমাননা
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close