কাহালু (বগুড়া) প্রতিনিধি

  ১৩ অক্টোবর, ২০২১

কাহালুতে যত্রতত্র দাহ্যপদার্থ বিক্রি

বগুড়ার কাহালুতে যত্রতত্র বিক্রয় হচ্ছে পেট্রল, ডিজেল ও এলপি গ্যাস সিলিন্ডারসহ দাহ্য জাতীয় পদার্থ। প্রায় অধিকাংশ বিক্রেতার নেই লাইসেন্স। চাল, ইলেট্রনিকস, পান-বিড়ি, মুদি দোকানসহ গ্রামগঞ্জের বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে এলপি গ্যাস সিলিন্ডার মজুদ করে ব্যবসা করা হচ্ছে। রাস্তার পাশে বিভিন্ন দোকানে টেবিলে বোতল রেখে বিক্রয় হচ্ছে পেট্রল, ডিজেলের মতো দাহ্য পদার্থ। এক লিটার পেট্রল খুচরা মূল্যে ৯০ টাকা নেওয়া কথা হলেও বিভিন্ন বোতলে ভরে লিটারপ্রতি ১০০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। এতে প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন ক্রেতারা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের কাহালু বাজার, গোয়াল পুকুর, লক্ষ¥ীপুর, সারাই, এরুইল, ইন্দুখুর, মালঞ্চা, গুড়বিশা, সাবানপুর স্ট্যান্ড, দুর্গাপুর বাজার, দেওগ্রাম মোর, শান্তা, অন্তাহার, ভালশুন, বারমাইল, বাবলাতলা, শেখাহার, কাজীপাড়া, বিবিরপুকুর, দরগাহাট, মুরইল, আড়োলা, পাইকড়, তিনদিঘী, রাজবাড়ী, কর্ণিপাড়া, বীরকেদার বাজারসহ বিভিন্ন গ্রামগঞ্জে বিক্রয় হচ্ছে।

এলপি গ্যাস সিলিন্ডার, পেট্রল, পরিবহন, বাজারজাত করতে হলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বা ব্যবসায়ীকে বিস্ফোরক অধিদপ্তরের লাইসেন্স ও অগ্নিনিবারক সিলিন্ডার বাধ্যতামূলক সংরক্ষণ করতে হয়। কিন্তু ব্যবসায়ীদের এসবের বিক্রয়ে বৈধ লাইসেন্স নেই। এমনকি মুদির দোকান, প্লাস্টিক সামগ্রী ও স্যানেটারি সামগ্রীর দোকানেও অনুমোদনহীন এসব পণ্য বিক্রি হচ্ছে।

অনেক দোকানে নিম্নমানে পুরাতন সিলিন্ডারে এলপি গ্যাস বিক্রি হতে দেখা যায়। এসব দোকানে নেই কোনো মূল্যে তালিকা, দোকানদাররা তাদের ইচ্ছামতো বিক্রি করছেন। গ্যাস সিলিন্ডারগুলো বিক্রির জন্য বিভিন্ন দোকানিরা বাসাবাড়িতে ব্যক্তিগত বাইসাইকেলে করে নিয়ে যায়, ক্রেতা সাধারণও সাইকেল ও মোটরসাইকেলে বহন করে নিয়ে যায় এর ফলে বড় ধরনের দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যবসায়ীরা বলেন, ‘লাইসেন্স নিতে গেলে নানা রকম সমস্যা হয়, বিভিন্ন বিভাগে যোগাযোগ করতে হয়, লাইসেন্স পাওয়া কঠিন হয়ে যায়। তাই ঝুঁকি নিয়ে ব্যবসা করছি।’

এ বিষয়ে ইউএনও মো. মাছুদুর রহমান জানান এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সাধারণত, জনসাধারণ বড় ধরনের দুর্ঘটনা এড়াতে অবৈধভাবে এলপি গ্যাস পেট্রল, ডিজেল, মুদিদোকানসহ বিভিন্ন দোকানে দাহ্যজাতীয় জ¦ালানি পদার্থ বিক্রয় বন্ধ করতে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

 

"

প্রতিদিনের সংবাদ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
close