ব্রেকিং নিউজ

রায়পুরা, বাঘা ও কয়রা

বিয়ের আশ্বাসে তিন কিশোরীকে ধর্ষণ

প্রকাশ : ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

নরসিংদীর রায়পুরায় বিয়ের জন্য বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রলীগ নেতাসহ আরো একজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। একই ঘটনা ঘটেছে রাজশাহীর বাঘায়। সেখানে বিয়ের আশ্বাসে বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এছাড়া খুলনার কয়রায় তরুণীকে বিয়ের প্রলোভনে অন্য জেলায় নিয়ে ধর্ষণ করেছে দুই বন্ধু। তাদের বিরুদ্ধে মামলার পর গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে রায়পুরা (নরসিংদী) প্রতিনিধি জানান, গত বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে দশম শ্রেণির ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অডিটোরিয়ামে ডেকে নেন রায়পুরা উপজেলার ছাত্রলীগ সভাপতি আসাদুল হক চৌধুরী শাকিল। সেখানে ওই ছাত্রীকে নির্যাতন করার সময় স্থানীয় লোকজন চারদিক থেকে অডিটোরিয়াম ঘেরাও করেন। এ সময় ছাত্রলীগ নেতা ক্ষমতার দাপটে কৌশলে পালিয়ে যান। পরে ৯৯৯ নম্বরে কল করে জানালে পুলিশ বিবস্ত্র অবস্থায় ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শ্রীরামপুর রাজু অডিটোরিয়াম ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, কয়েকদিন পরপরই শাকিল ওই ছাত্রীকে রাতে অডিটোরিয়ামে ডেকে নিয়ে আসত। কিশোরীর পরিবারের লোকজন নিরীহ হওয়ায় ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে সাহস পেত না।

রায়পুরা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসাইন বলেন, আমি ঘটনাটি শুনেছি। শাকিল ছেলেটি খুবই বাজে স্বভাবের। আমি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই এবং দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করছি।

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি জানান, বাঘায় বিয়ের আশ্বাসে বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার পুলিশ ওই ছাত্রীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ওসিসিতে পাঠিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ওই ঘটনায় ছাত্রী নিজেই বাদী হয়ে ধর্ষণের মামলা করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি রিবন আহম্মেদ বাপ্পি (২৮) কলেজ পড়ুয়া এক ছাত্রীকে (১৮) বিয়ের আশ্বাস দিয়ে গত জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে চকরপাড়া গ্রামে এক বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে। তারপর থেকে ওই ছাত্রী ছাত্রলীগ নেতা বাপ্পিকে বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকেন। কিন্তু বাপ্পি বিয়ে করতে রাজি হচ্ছিল না। এর মধ্যে ঘটনার তিন মাস অতিবাহিত হয়ে যায়। কোনো উপায় না পেয়ে অবশেষে ওই ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে থানায় মামলা করে সে। ছাত্রলীগ নেতা বাপ্পি আড়ানী পৌরসভার চকসিংগা মহল্লার মৃত বাবুল হোসেনের ছেলে।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগ নেতা রিবন আহম্মেদ বাপ্পি বলেন, আসন্ন আড়ানী পৌরসভা নির্বাচনে আমি মেয়র প্রার্থী। এ কারণে একটি মহল আমার সুনাম ক্ষুণœ করার জন্য বিভিন্ন ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছে। তবে আমি এ ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত নেই। বাঘা থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, ধর্ষণের অভিযোগটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে। ওই ছাত্রীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হেেয়ছে। আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধি জানান, কয়রা উপজেলার ঘুঘরাকাটি গ্রামে এক তরুণীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ করেছে দুই বন্ধু। তারা ওই তরুণীকে মাগুরা ও মানিকগঞ্জ এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে দুই বন্ধু হজরত আলী (১৮) ও জুয়েল (১৮) তরুণীকে ধর্ষণ করে। এ ব্যাপারে তরুণীর বাবা বাদী হয়ে কয়রা থানায় অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা করেছেন। পুলিশ অভিযান চালিয়ে হজরত আলী ও জুয়েলকে আটক করেছে। কয়রা থানার ওসি মো. রবিউল হোসেন বলেন, বিশেষ অভিযান চালিয়ে ধর্ষণ মামলার দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়া কয়রা উপজেলার কাঠমাচর এলাকার ছিদ্দিক সরদারকে অপহরণের দায়ে সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার সোনাটিকারী গ্রামের আবুল হাসান শিকদারের ছেলে রিপনকে আটক করা হয়েছে। আর দুই দফায় রিমান্ড শেষে তার তথ্যমতে মানিকগঞ্জ থেকে ছিদ্দিক সরদারকে উদ্ধার করা হয়।

 

"