ব্রেকিং নিউজ

ক্লিয়ারেন্স অপারেশনে রাখাইন

প্রকাশ : ২৮ অক্টোবর ২০২০, ০৯:১৪

রায়হান আহমেদ তপাদার

দুই হাজার সতেরো সালে যেসব বিভ্রান্ত বৌদ্ধ যুবকদের সহায়তায় গণহত্যা, গণধর্ষণসহ বর্বর নির্যাতনের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের সমূলে উচ্ছেদ চেষ্টা চালিয়েছিল আজ সেই বৌদ্ধদের টার্গেটে অপারেশন চালাচ্ছে মিয়ানমার আর্মি। তাদের টার্গেটে পরিবর্তন এলেও অশান্ত রাখাইন পরিস্থিতি বাংলাদেশের জন্য মাথাব্যথার কারণ হিসেবেই থাকছে। কারণ সব আরাকান রাজ্যজুড়ে নতুন করে সেনা সমাবেশ ঘটিয়েছে মিয়ানমার। সীমান্ত এলাকাতেও তাদের সন্দেহজনক গতিবিধি বাড়ছে।

এদিকে আগামী ৮ নভেম্বর মিয়ানমারে জাতীয় নির্বাচন। এটি সে দেশে বেসামরিক সরকারের অধীনে প্রথম জাতীয় নির্বাচন। কিন্তু দেশটির বাংলাদেশ-সংলগ্ন রাখাইন প্রদেশে নির্বাচনী উত্তাপ নেই; বরং মানুষ যে যেদিকে পারছে, পালাচ্ছে। রাস্তায় বোমা ফাটছে; আকাশে উড়ছে সরকারি ড্রোন। পুরো প্রদেশ সন্ত্রস্ত। বাংলাদেশে রাখাইন প্রদেশ আরাকান নামে বেশি পরিচিত। সেই আরাকানে এখন যারা পালাচ্ছে, তারা বৌদ্ধ রাখাইন। স্থানীয় মুসলমান রোহিঙ্গাদের বড় অংশ তিন বছর আগেই গণহত্যার মুখে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তাই পুরো প্রদেশই ক্রমে খালি হয়ে যাচ্ছে। থাকছে কেবল দুটো সশস্ত্র পক্ষ-মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এবং স্থানীয় প্রতিরোধ যোদ্ধাদল আরাকান আর্মি।

বাংলাদেশের সামনে তাই আরাকান একই সঙ্গে সামরিক ও কূটনৈতিক চ্যালেঞ্জ। আরাকান আর্মির সঙ্গে পারছে না ‘টাটমা-ড’। মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনী ‘টাটমা-ড’ নামে পরিচিত। টাটমা-ড দেশটির সবচেয়ে শক্তিশালী ও সুবিধাভোগী প্রতিষ্ঠান। মন্ত্রিসভায়ও তাদের তিনজন প্রতিনিধি থাকেন। পাঁচ লাখ সদস্যের বিশাল জনবল তার। গেরিলাযুদ্ধ মোকাবিলায় টাটমা-ডর বিশেষ সুনাম আছে। গত ৭২ বছর বিশ্বখ্যাত অনেক গেরিলা বাহিনীর স্বাধিকারের সংগ্রাম ঠেকিয়ে তারা ‘ইউনিয়ন-মিয়ানমার’-এর অখন্ডতা রক্ষা করে চলেছে। কিন্তু আরাকানে তারা নবীন আরাকান আর্মির সঙ্গে কুলিয়ে উঠতে পারছে না। ইমেজ বাঁচাতে টাটমা-ড-এর জেনারেলরা আরাকানে চালাচ্ছে পোড়ামাটি নীতি। ২০১৭ সালে তারা রোহিঙ্গা গ্রামগুলো ছারখার করেছিল। এখন পুড়ছে রাখাইনদের বাড়িঘর। গত সপ্তাহে রাথিডং এলাকায় সেনা ও নৌবাহিনীর যৌথ অভিযানকালে বিমান বাহিনীও ব্যাপক গোলাবর্ষণ করে। এত দিন এ রকম আক্রমণে কেবল হেলিকপ্টার বহর অংশ নিত। আরাকানের আকাশে যত্রতত্র দেখা যাচ্ছে ধোঁয়ার কুন্ডলী। তবে বর্তমান যুদ্ধের তাৎক্ষণিক সামরিক কারণ, প্রদেশের উত্তরাঞ্চলে আরাকান আর্মির ঘাঁটি এলাকা গড়তে চাওয়া। এ রকম দুর্ভেদ্য সামরিক উপস্থিতির মাধ্যমে কাচিন, কারেন ও শানরা ইউনিয়ন মিয়ানমারে থেকেও নিজ নিজ এলাকায় নিজস্ব বেসামরিক প্রশাসন পরিচালনা করছে। ঠিক ও রকম লক্ষ্য নিয়ে আরাকান আর্মির গেরিলারা দলে দলে আরাকানে ঢুকছে।

এদিকে চীন প্রদেশের যে পালিতোয়া এলাকা দিয়ে তারা আরাকানে ঢুকছে, সেটা বাংলাদেশের বান্দরবান-সংলগ্ন। বান্দরবান থেকে মাত্র ১৮ কিলোমিটার দূরে পাহাড়ি পালিতোয়া শহর। এ এলাকাই এখন যুদ্ধের মূল উত্তাপকেন্দ্র। তবে আরাকান আর্মির গেরিলারা উত্তর আরাকানের প্রায় প্রতিটি গ্রামে হাজির আছে এখন। ফলে মিয়ানমারের ইতিহাস নতুন করে আরেক চিরায়ত গেরিলাযুদ্ধ দেখছে। আরাকানে সশস্ত্র বাহিনীর পাশে সু চির দল আরাকান যুদ্ধের প্রধান এক শিকার এই মুহূর্তের নির্বাচন। ১৯৯০-এর আগে-পরে আরাকানের রোহিঙ্গা ও রাখাইন—উভয় সম্প্রদায় সেনাশাসনের বিরুদ্ধে সু চির দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির সমর্থক ছিল। কিন্তু ক্ষমতায় আসার পর রোহিঙ্গাবিরোধী সেনা অভিযানে যেমন এনএলডি সরকার চুপচাপ ছিল, এখন রাখাইনবিরোধী অভিযানকালেও অনুরূপ ভূমিকায়। উপরন্তু যুদ্ধের সুযোগ নিয়ে সু চি চাইছেন আরাকান থেকে স্থানীয় রাজনৈতিক দল ‘আরাকান ন্যাশনাল পার্টি’কে দুর্বল করে প্রদেশজুড়ে তার দলকে একচেটিয়া করতে। ইতোমধ্যে মহামারির কথা বলে আরাকানের অনেক জায়গায় নির্বাচন হবে না বলে দেওয়া হয়েছে। এতে আরাকানের প্রায় ১২ লাখ রাখাইন এবার ভোট দিতে পারবেন না। মূলত আরাকান ন্যাশনাল পার্টিকে ঠেকাতে এই আয়োজন। কারণ, এই দলকে আরাকান আর্মির প্রতি সহানুভূতিশীল বলে মনে করা হয়। অর্থাৎ টাটমা-ড যখন আরাকান আর্মির ওপর বোমা ফেলছে, এনএলডি তখন সেখানকার রাজনৈতিক নেতৃত্বকে অকার্যকর করার চেষ্টা করছে।

কিন্তু পাল্টা হিসেবে আরাকান আর্মিও এনএলডির কয়েকজন প্রার্থীকে অপহরণ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বাংলাদেশের জন্য এই অবস্থা ভূরাজনীতির দিক থেকে উদ্বেগজনক ও গভীরভাবে তাৎপর্যময়। মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের সীমান্ত বেশি বড় নয়, ২০০ মাইলের কম। কিন্তু অশান্ত আরাকান বাংলাদেশের স্বস্তি কেড়ে নেওয়ার জন্য যথেষ্ট। এটা সত্য যে আরাকান এখনই আরাকান আর্মির পূর্ণ দখলে যাচ্ছে না। কিন্তু ক্রমে মাঠের পরিস্থিতি তাদের নিয়ন্ত্রণে যাচ্ছে। স্থানীয় রাখাইনরা ইতোমধ্যে তাদের নীরব কর্মী হিসেবে কাজ করছে। পাশাপাশি টাটমা-ড এর আক্রমণও বাড়ছে এবং আরো বাড়বে। রাখাইনদের বাংলাদেশে শরণার্থী হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এমনকি আরাকানে টাটমা-ড-এর নিয়ন্ত্রণ কমতে থাকলে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে রাখাইনদের আন্তঃসম্পর্ক কেমন দাঁড়ায়। যে সমস্যায় বাংলাদেশ ইতোমধ্যে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত। আরাকান যুদ্ধে নিজেদের সামরিক ব্যর্থতা আড়াল করতে মিয়ানমার রাখাইন গেরিলাদের পেছনে বাংলাদেশের মদদ আবিষ্কার করতে পারে। ইতোমধ্যে দেশে-বিদেশে এ রকম প্রচারণা শুরু করেছে তারা। এমনকি বঙ্গোপসাগরে অস্থিতিশীলতা বাড়াতে পারে টাটমা-ড-এর বহুমাত্রিক প্রচারণা সত্ত্বেও বিশ্বসমাজ আরাকানের ঘটনাবলি পুরোপুরি অবহিত বলেই মনে হচ্ছে। সেখানে টাটমা-ড-এর পোড়ামাটি নীতির বিরুদ্ধে জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা প্রায়ই উদ্বেগ প্রকাশ করছে। তবে মিয়ানমারের বড় কূটনৈতিক সফলতা হলো চীন, ভারত, জাপানসহ এশিয়ার সব প্রভাবশালী রাষ্ট্রকে তারা আরাকানে মানবাধিকার দলনের বিষয়ে নীরব রাখতে পারছে।

সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, বাংলাদেশের সামনে তাই আরাকান একই সঙ্গে এক সামরিক ও কূটনৈতিক চ্যালেঞ্জ। টাটমা-ড সম্প্রতি উসকানিমূলক তৎপরতা হিসেবে সীমান্তে সৈন্য সংখ্যাও বাড়াচ্ছে। বিজিপি নামে পরিচিত রাখাইন প্রদেশের সীমান্ত পুলিশের তিনটি নতুন ব্যাটালিয়নও গড়ছে তারা। যেসব সামরিক অফিসারকে সেনাবাহিনী থেকে সীমান্ত পুলিশে পাঠানো হচ্ছে, তারা মাঠপর্যায়ের অভিযানে বিশেষ দক্ষ হিসেবে বিবেচিত। এসবই বাংলাদেশের জন্য বাজে ইঙ্গিত। এভাবে টাটমা-ড ও সু চির দল এনএলডির দ্বিমুখী রাজনৈতিক ও সামরিক যৌথ অভিযানে বাংলাদেশের পাশে নতুন যে অগ্নিগর্ভ আরাকান তৈরি হচ্ছে, তা বঙ্গোপসাগরের এই অঞ্চলজুড়ে বাড়তি অস্থিতিশীলতার ইঙ্গিতবহ। ২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের ওপর যে বর্বরতা হয়েছিল প্রায় অভিন্ন কায়দায় মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এখন রাতে রাখাইন গ্রামবাসীর ওপর বেপরোয়া গুলী চালাচ্ছে। বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়ায় আশ্রয়হীন গ্রামবাসী নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে দিগ্বিদিক ছুটছেন। বাংলাদেশের আশঙ্কা-পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে রাখাইনে অবশিষ্ট প্রায় ৫ লাখ রোহিঙ্গা এবং নির্যাতিত মগরা আন্তর্জাতিক সীমান্তে আশ্রয় খুঁজতে পারে। রাখাইন সংকট নতুন মাত্রা পেতে পারে। রাখাইন কনফ্লিক্টেরে বিদ্যমান বাস্তবতা এবং বাংলাদেশ-মিয়ানমার সমুদ্র সীমান্তসংলগ্ন এলাকা দিয়ে আচমকা হাজারও বর্মি সেনার সন্দেহজনক পারাপার, সীমান্তের অন্তত তিনটি পয়েন্টে সৈন্যদের উপস্থিতির বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ।

২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনে গণহত্যা শুরুর প্রাথমিক পর্বে এভাবেই সেখানে সেনাদের জড়ো করেছিল মিয়ানমার তাছাড়া ১১ সেপ্টেম্বরের সেনা সমাবেশের কারণে রাখাইনে এখন যেসব রোহিঙ্গা রয়েছেন, তাদের মধ্যে নতুন করে ভীতি ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বিভিন্ন সূত্র বলছে, রাখাইনে সেনা সমাবেশের একাধিক কারণ থাকতে পারে। সেনা উপস্থিতি বাড়িয়ে নিজেদের অবস্থানের জানান দিতে পারে মিয়ানমার। তাছাড়া তিন-চার বছর ধরে, বিশেষ করে যারা ২০১৭ সালের আগস্টে রোহিঙ্গা গণহত্যার অপারেশনে যুক্ত ছিল, তাদের সীমান্ত থেকে সরিয়ে অন্যত্র নেওয়ার জন্যও এটি হতে পারে।

স্মরণ করা যায়, আইসিসিতে দুই সৈন্যের জবানবন্দি রেকর্ডের পর থেকে পুরনো সেনাদের রাখাইন থেকে ফেরত নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে মিয়ানমার। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলোতে কমাস ধরে নিয়মিতভাবে রাখাইন পরিস্থিতি এবং ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে হাজারও মানুষের বাস্তুচ্যুতি এবং দুর্দশার সিরিজ রিপোর্ট প্রচার হচ্ছে। রাখাইন পরিস্থিতি এমন যে মরণঘাতী করোনার চেয়েও সেখানকার জনসাধারণ বেশি ভীত সম্প্রতি নিয়োগকৃত সেনাবাহিনীকে নিয়ে। এক রিপোর্টে উঠে এসেছে, রাখাইনে যখন-তখন আকিস্মকভাবে গুলি চলে। গুলির শব্দে স্থানীয়দের রাতের ঘুম হারাম। টার্গেটকৃত গ্রামে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশের জন্য এই অবস্থা ভূরাজনীতির দিক থেকে উদ্বেগজনক ও গভীরভাবে তাৎপর্যময়। এমনকি অশান্ত আরাকান বাংলাদেশের স্বস্তি কেড়ে নেওয়ার জন্য যথেষ্ট বলে বিশেষজ্ঞ মহলের অভিমত।

লেখক : গবেষক ও কলামিস্ট
[email protected]

পিডিএসও/হেলাল